৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হাঁসফাঁস গরম মুহূর্তে গায়েব। আকাশ জুড়ে ঘন কালো মেঘ। ভর দুপুরেই আঁধার নামল শহর কলকাতায়। ঝেঁপে এল বৃষ্টি। শুক্রবার এমন ঘটনারই সাক্ষী থাকল শহরবাসী। আবহাওয়া দপ্তরের তরফেও জানানো হয়েছে খবর। বলা হয়েছে, আগামী ৪৮ ঘণ্টা গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলা এবং উত্তরবঙ্গেও ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস দিয়েছে হাওয়া অফিস।

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, বঙ্গোপসাগরে একটি গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে। তার উপর ভরা শ্রাবণে এখন সক্রিয় রয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। এই দুইয়ের জোড়া ফলায় বৃষ্টি নেমেছে ঝমঝমিয়ে। কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় শুক্রবার বিকেলেই মুষলধারায় বৃষ্টি নামে। অনেক জায়গায় জল জমে যায়। জল জমেছে কলেজ স্ট্রিট, সেন্ট্রাল অ্যাভেনিউ, মহাত্মা গান্ধী রোড, ঠনঠনিয়া, আমহার্স্ট স্ট্রিট, মুক্তারাম বাবু স্ট্রিট এবং বড়বাজার এলাকায় নিচু জায়গায় জল জমেছে। কোথাও গোড়ালি পর্যন্ত আবার কোথাও হাঁটু পর্যন্ত জল জমে যাওয়ায় ভোগান্তির শিকার স্থানীয় বাসিন্দারা৷  প্রবল বৃষ্টি ও জল জমে যাওয়ার কারণে ব্যাহত হয় যান চলাচল। খারাপ আবহাওয়ার কারণে বিমান অবতরণেও সমস্যা দেখা দিয়েছে। চারটি বিমান এখনও নামতে পারেনি কলকাতা বিমানবন্দরে। আগামী ৪৮ ঘণ্টা গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। কলকাতার পাশাপাশি হাওড়া, দুই ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, মুর্শিদাবাদেও প্রবল বৃষ্টিপাত হয়।

[ আরও পড়ুন: আইনজীবীর পরামর্শে সিদ্ধান্ত বদল, রোজভ্যালি মামলায় সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা রাজীব কুমারের ]

আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, শ্রাবণ শেষে দক্ষিণবঙ্গকে বৃষ্টি ভাসিয়ে দিলেও বাদ যাবে না উত্তরবঙ্গও। সেখানেও ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে হাওয়া অফিস। উত্তরবঙ্গের ৫ জেলায়- দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারে শুক্র থেকে রবিবার ভারী বৃষ্টি হতে পারে বলে খবর। এছাড়া সোমবারও রাজ্যের একাধিক জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রবল বৃষ্টিতে শহরবাসীর যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তাই কন্ট্রোল রুম চালু করল কলকাতা পুরসভা। কিন্তু সতর্কতা নেওয়ার আগেই বিপত্তি। ইতিমধ্যেই ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল চত্বরে বাজ পড়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া বাজ পড়ার কারণে আরও ১৭ জন গুরুতর জখম হয়েছেন বলে খবর। বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচার জন্য তাঁরা টিকিট কাউন্টারে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তখনই তাঁদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়। তিনি দমদমের বাসিন্দা। নাম সুবীর পাল। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে হেস্টিংস থানার পুলিশ। এছাড়া শুক্রবার সন্ধেবেলা বাঙুর হাসপাতালে এক আহতের মৃত্যু হয়। মৃতের নাম অপর্ণা মণ্ডল।

subir-aparna

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ১০ জুন রবীন্দ্র সরোবরের একটি ক্রিকেট কোচিং ক্যাম্পে বাজ পড়ে মৃত্যু হয় এক কিশোর ক্রিকেটারের। এছাড়া বাজ পড়ে পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরে একই পরিবারের ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন ওই পরিবারেরই একজন।

[ আরও পড়ুন: সারদা কাণ্ডে এবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তলব সিবিআইয়ের, সিজিও কমপ্লেক্সে গেলেন মন্ত্রী ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং