১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

টাকা চাওয়ায় বাবাকে মার ছেলের, এয়ারগান থেকে গুলি বাবার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: December 8, 2017 9:48 am|    Updated: September 20, 2019 4:19 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সংসারে টাকা দেওয়া নিয়ে বাবা-ছেলের রোজ অশান্তি। সামান্য ৫ হাজার টাকা নিয়ে গণ্ডগোল শেষ হল রক্তারক্তিতে। টাকা চাওয়ায় বাবাকে বেধড়ক মারল ছেলে। প্রাণ বাঁচাতে শূন্যে গুলি ছুড়লেন বাবা। এয়ারগান তাক করে কোনওরকমে রক্ষা পেলেন। বাগুইআটির এই ঘটনায় বাবা ও ছেলেকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

[ফুলশয্যার রাতে নববধূর রহস্যমৃত্যু, জা-স্বামীর অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগ]

ধৃতদের নাম অনুপ সোম এবং অপূর্ব সোম। বাগুইআটির দেশবন্ধুনগর ঘোষপাড়ার বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব অনুপবাবু। তিনি অবসরপ্রাপ্ত সরকারিকর্মী। বর্তমানে মাছের ব্যবসা করেন। তাঁর ছোট ছেলে অপূর্ব। বছর পঁয়ত্রিশের অপূর্ব হোমিওপ্যাথি প্র্যাকটিস করেন। পরিবার সূত্রে খবর, অপূর্ব সংসারে ঠিকমতো টাকা দিত না। এই নিয়ে বাবার সঙ্গে তাঁর প্রায়ই গণ্ডগোল হত। বাবাকে অপূর্ব মারধর করত বলেও অভিযোগ। বৃহস্পতিবার তা চরম পর্যায়ে পৌঁছয়। অপূর্ব প্রতি মাসে সংসারে পাঁচ হাজার টাকা দিত। কিন্তু গত মাসে সে টাকা দেয়নি। অনুপবাবু ছেলের কাছে সংসার চালানোর জন্য দু মাসের হিসাবে ১০ হাজার টাকা চান। এতে রেগে গিয়ে অপূর্ব বাবাকে লোহার রড দিয়ে পেটাতে থাকে। ছেলেকে ঠেলে ফেলে দেন অনুপবাবু। পাঁচিলে ধাক্কা খেয়ে মাথায় আঘাত পান অপূর্ব। এরপর বাড়ির তিন তলায় উঠে যান গৃহকর্তা। সেখান থেকে এয়ারগান শূন্যে গুলি ছোড়েন তিনি। প্রচণ্ড আওয়াজে এলাকার বাসিন্দারা ভয় পেয়ে যান। আত্মরক্ষায় এয়ারগান ছেলের দিকে তাক করেন অনুপ সোম। তারপর নিরস্ত হয় ছেলে। রাতে অভিযোগ দায়ের হয় বাগুইআটি থানায়। বাবা ও ছেলেকে আলাদা আলাদা বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশ পরে দুজনকে গ্রেপ্তার করে।

[ছত্তিশগড় পুলিশে কনস্টেবল পদে চাকরি পাবেন বৃহন্নলারা]

ধৃতদের বিরুদ্ধে ৩২৬ ও ৩০৭ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিন তাদের বারাসত জেলা আদালতে পেশ করা হয়। মাত্র পাঁচ হাজার টাকার জন্য গণ্ডগোল যে এত দূর গড়াতে তা বুঝতে পারেননি প্রতিবেশীরা। তাদের বক্তব্য অপূর্ব সংসারের প্রতি কোনও দায়িত্ব দেখাত না। এই নিয়ে বারবার বিরক্ত হতেন গৃহকর্তা অনুপ সোম। অন্যদিকে অপূর্ব বক্তব্য ছিল বাবা এখন ব্যবসা করেন তাহলে সংসারের খরচ তাঁর দেওয়া উচিত। পরিবারের লোকজনও এই ঘটনার জন্য অপূর্বকে দুষেছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement