২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অর্ণব আইচ: ফেল ডলার, তোল সোনা। বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া সোনা ‘কেনা’ হচ্ছিল ডলারে। উত্তর কলকাতায় ওই লেনদেন চলাকালীনই কলকাতা পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্সের হাতে ধরা পড়ল ৪১ লাখ টাকার সোনা। সঙ্গে উদ্ধার হল ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। তিনজনকে গ্রেপ্তার করলেন গোয়েন্দারা। তাদের মধ্যে সুশান্ত ধর কলকাতার বাসিন্দা। নিরঞ্জন চক্রবর্তী উত্তর ২৪ পরগনা ও সাজু মহলদারের বাড়ি নদিয়ায়।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে এসটিএফের আধিকারিকরা সাউথ সিঁথি রোডে হানা দেন। এখানেই সোনা ও ডলারের লেনদেন হচ্ছিল। তখনই তারা ধরা পড়ে যায়। তাদের কাছে একটি ব্যাগ থেকেই উদ্ধার হয় ১০টি সোনার বাঁট। ১ কিলো ১৪০ গ্রামের ওই সোনার দাম ৪১ লাখ টাকা। জেরার মুখে ধৃতরা স্বীকার করেছে যে, বাংলাদেশের সিন্ডিকেট গোপনে সীমান্ত পেরিয়ে সোনা এই রাজ্যে পাচার করে। সড়কপথেই সোনা চলে আসে কলকাতায়। ধৃতদের জেরা করে এই চক্রের বাকিদের সন্ধান চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে, গত মাসেই উল্টোডাঙায় অরবিন্দ সেতুর কাছে হানা দিয়ে উদ্ধার ২ কিলো ১২৫ গ্রাম ওজনের ১৮টি সোনার বাঁট উদ্ধার করে এসটিএফ। যার বাজার দর প্রায় ৮৩ লক্ষ টাকা। এ ছাড়াও উদ্ধার করা হয় ১০ লক্ষ বাংলাদেশি টাকা। এই সোনা যে বাংলাদেশ থেকেই পাচার করা হয়েছে, তা স্বীকার করে ধৃতর।

লালবাজার সূত্রে খবর, শুধু সোনা নয়, কলকাতা শহরে নিষিদ্ধ মাদকের কারবারও চলছে। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, এমনকী স্কুল পড়ুয়াদেরও টার্গেট করেছে মাদক কারবারীরা। এই পাচারকারীদের মধ্যে যোগ রয়েছে। একে অপরের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সোনা ও মাদক পশ্চিমবঙ্গে পাচার করছে। ফলে ধৃতদের জেরা করলে মাদক পাচারচক্রের বিষয়েও বহু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন কলকাতা পুলিশের দুঁদে তদন্তকারীরা। 

[আরও পড়ুন: ফিরছে ‘তেজস্বিনী’ প্রকল্প, শহরের মহিলাদের মার্শাল আর্টের প্রশিক্ষণ দেবে পুলিশ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং