BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

চিনা বাজি রুখতে কড়া পদক্ষেপ লালবাজারের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 19, 2016 10:12 am|    Updated: January 28, 2020 4:10 pm

LalBazar took strong action to stop chinese crackers

স্টাফ রিপোর্টার: চিনা বাজি রুখতে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হল লালবাজারের পক্ষ থেকে৷ বাজারে চিনা বাজির প্রতিপত্তি রুখতেই এবার মিলবে বহু নিষিদ্ধ শব্দবাজি৷ বহুদিন বাদে দেওয়ালি ও কালীপুজোয় আবার ফাটতে চলেছে ‘চকোলেট বোমা’৷ ফাটবে ‘দোদোমা’ও৷ যদিও বাজি বিক্রেতাদের দাবি, ‘চকোলেট বোমা’ হলেও কান ফাটানো শব্দ করে সেগুলি ফাটবে না৷ বরং সাধারণ চকোলেট বোমার চেয়ে এই শব্দ হবে কিছুটা কম৷ কারণ, ‘৬ মিমি’-র বদলে এবার বাজি বিক্রেতারা তৈরি করছেন ‘৪ মিমি’ চকোলেট বোমা৷ একই সঙ্গে পুলিশের কড়া নির্দেশ, বিক্রি হবে না ও ফাটানো যাবে না কোনও বিদেশি বাজি৷

মঙ্গলবার দুপুরে তারাতলায় বাজি পরীক্ষা হয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ, পুলিশ ও বাজি বিক্রেতাদের সামনে৷ পুলিশে জানিয়েছে, ২০০টির মধ্যে ৮৯টি বাজি ‘ফেল’ করেছে৷ নিষিদ্ধ শব্দবাজি রুখতে এদিন হাওড়া, বিধাননগর কমিশনারেট, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, উত্তর ২৪ পরগনার পুলিশকর্তাদের সঙ্গে লালবাজারে বৈঠক করেন কলকাতা পুলিশের কর্তারা৷

দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ সূত্রে জানা গিয়েছে, ৯০ ডেসিবেলের কম হওয়ায় চকোলেট বোমা হওয়া সত্ত্বেও ওই বাজি ফাটানো যাবে৷ এদিন এই বিষয়ে রাজ্যের দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের চেয়ারম্যান কল্যাণ রুদ্র জানান, ৯০ ডেসিবেলের কম যে কোনও বাজিই বিক্রি করা যাবে৷ ফাটানোও যাবে৷ সেইমতো তালিকা তৈরি হয়েছে৷ যদিও পর্ষদের কড়া নির্দেশ, রাত দশটার পর এই ধরনের বাজি ফাটানো যাবে না৷ বাজি ফাটানো যাবে না হাসপাতালের কাছেও৷

বাজি বিক্রেতাদের সংগঠন সারা বাংলা আতশবাজি উন্নয়ন সমিতির চেয়ারম্যান বাবলা রায় বলেন, “বলা যেতে পারে নবরূপে ফিরে এসেছে চকোলেট বোমা৷ দেখতে এই চকোলেট বোমা অবিকল আসলের মতোই৷ শুধু মাপে ছোট৷ তাই শব্দও আসল চকোলেটের থেকে একটু কম৷ চকোলেট বোমা এই রাজ্যে বহু বছর ধরেই নিষি৷ সেই কারণেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, চকোলেট বোমাই এমনভাবে বানাতে হবে, যেন তা ৯০ ডেসিবেলের কম হয়৷ তা তৈরি করা সম্ভব হয়েছে৷ ৪ মিমি চকোলেট বোমার শব্দের মাপ উঠেছে ৮৮ ডেসিবেল৷ পর্ষদ এই চকোলেট বোমা তৈরি করার অনুমতি দিয়েছে৷ এই বাজিশিল্পের সঙ্গে যুক্ত সারা রাজ্যের কয়েক লক্ষ সংখ্যালঘু মানুষ৷ তাঁদের অন্ন সংস্থান হবে৷”

এদিন বাবলা রায় জানান, বহু বছর পর ‘দোদোমা’-র উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হল৷ এই বাজিটি মাটিতে শব্দ করে ফেটে ফের উপরে উঠে গিয়ে ফাটে৷ যে দোদোমাগুলি তৈরি করে এদিন পরীক্ষা করা হয়েছে, দেখা গিয়েছে সেগুলি ৮৮ ডেসিবেলের মধ্যেই৷ এ ছাড়াও শেল ফাটানো নিয়ে প্রশ্ন ওঠে৷ এদিন দেখা গিয়েছে, তিন ইঞ্চি শেলের শব্দ ৮৮.৩ ডেসিবেল৷ ফলে ওই শেল ফাটানো যাবে৷ তবে ৫ ইঞ্চি বা তার চেয়ে বেশি বড় শেলের শব্দ ৯০ ডেসিবেল পেরিয়ে যাচ্ছে বলে সেগুলি নিষিদ্ধ৷ এদিকে, ছোট চকোলেট বোমার আড়ালে যাতে বড় চকোলেট বোমা বা অন্য শব্দবাজি পাচার না হয়, তার জন্যও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে