২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রাম মন্দির ইস্যুতে আজও পথপ্রদর্শক জ্যোতি বসু, তাঁকে সামনে রেখেই বিরোধিতা বাম নেতৃত্বের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 5, 2020 9:36 pm|    Updated: August 5, 2020 9:38 pm

An Images

বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত: আজও তিনি পার্টির মুখ। রাম মন্দির (Ram Temple) নির্মাণের বিরোধিতা করতে গিয়ে আজও তাঁর বক্তব্যকেই সামনে আনতে হল সিপিএম নেতৃত্বকে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে ‘কাকাবাবু’ মুজাফ্ফর আহমেদের জন্মদিনের অনুষ্ঠান। ঘুরেফিরে এলেন জ্যোতি বসু। বিজেপি সম্পর্কে তাঁর মুল্যায়ণ ‘অসভ্য বর্বরের দল’-এর মতো দেশজুড়ে সাড়া ফেলা উক্তি, বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র, মহম্মদ সেলিমরা বারবার টেনে আনলেন তাঁকেই।

তবে নিজেদের সমালোচনাও ছিল কিছু। মন্দির নির্মাণে কেন রাষ্ট্রনেতা হাজির ছিলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। প্রধানমন্ত্রী দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের অপমান করেছেন বলে অভিযোগ করেন কোভিড আক্রান্ত সিপিএম পলিটবুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। হাসপাতাল থেকেই ভারচুয়াল বক্তব্য রাখেন তিনি। দেশের ইতিহাস গুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রর।

[আরও পড়ুন: চেম্বারে বসে হাওড়া হাসপাতালের নামে ভুয়ো করোনা রিপোর্ট! পুলিশের জালে চিকিৎসক]

অযোধ্যায় যখন রাম মন্দিরের ভূমিপুজো চলছে, তখন দেশজুড়ে পার্টির প্রতিষ্ঠাতা মুজফফর আহমদের জন্মদিবস পালনে ব্যস্ত সিপিএম। কিন্তু দিনভর বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাঝেও অযোধ্যার মেগা ইভেন্টের দিকে নজর ছিল আলিমুদ্দিনের কর্তাদের। অবশ্য সকাল থেকেই ভূমিপুজোর বিরোধিতা করে প্রচার চালানো হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে বিভিন্ন সময়ে জ্যোতি বসুর বিভিন্ন বক্তব্য তুলে ধরা হতে থাকে। সন্ধের মূল অনুষ্ঠানেও কেন্দ্রে ছিল সেই ছিল রাম মন্দিরময়, এবং অবশ্যই জ্যোতি বসু (Jyoti Basu)। ধর্ম ও রাজনীতিকে এক করে ফেলার বিরোধিতায় রাজ্যের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য ও অবস্থান বারবার স্মরণ করিয়ে দেন বিমান বসু-সহ অন্যান্য নেতারা। বিমান বসুর আক্ষেপ, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রনেতাদের উপস্থিতি দেশের ধর্মনিরপেক্ষতা ও গণতন্ত্রের উপর আক্রমণ। 

[আরও পড়ুন: আন্তরিক মমতা, উষসীকে ফোন করে করোনা আক্রান্ত শ্যামল চক্রবর্তীর খোঁজ নিলেন]

যখন দেশের ১৬ কোটি মানুষ করোনা আবহে বেকার হয়েছেন, তখন কাজ দেওয়ার বদলে কেন্দ্রীয় সরকার মন্দির নির্মাণে ব্যস্ত। এই সমালোচনা করে দলের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, মানুষ কাজ পেলে তবেই করোনার সঙ্গে মোকাবিলা সম্ভব। সরকার করোনা থেকে দায়মুক্ত হতেই ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে বলে অভিযোগ তাঁর। এই পরিস্থিতিতে বিকল্প পথের সন্ধান নিয়ে মানুষের কাছে পৌঁছতে হবে, পার্টি কর্মীদের এই নির্দেশ দেন সূর্যকান্ত মিশ্র।

করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনদিন আগে হাসপাতালে ভরতি হয়েছেন সিপিএম পলিটবুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। এদিন ‘কাকাবাবু’র জন্মদিনের ভারচুয়াল এই অনুষ্ঠানের বক্তা তালিকায় তাঁর নাম থাকলেও, বক্তব্য রাখতে পারবেন কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল। কিন্তু হাসপাতালের বেড থেকেই তিনি বক্তব্য রাখবেন বলে পার্টি নেতৃত্বকে জানিয়ে দেন। রাম মন্দির নির্মাণে কেন্দ্রের ভূমিকার পাশাপাশি রাজ্যপালের সমালোচনায় সরব হন সেলিম। কেন রাজভবনের মতো একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানে রাম মন্দির নির্মাণের ভূমিপুজোর উৎসব পালন করা হল, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, “যে রামের কথা বলা হচ্ছে, তার সঙ্গে ভারতীয় সংস্কৃতির সামঞ্জস্য নেই। যে রামের কথা বলা হচ্ছে, তা সংঘের রাম।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement