১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সেপ্টেম্বরের শেষেই করোনা নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে, আশাবাদী মুখ্যমন্ত্রী

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: August 25, 2020 8:48 pm|    Updated: August 25, 2020 8:48 pm

An Images

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে করোনা (CoronaVirus)। বদলাতে পারে পরিস্থিতি। বিশেষজ্ঞদের এমনই ধারনার কথা বলে আশা প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। একইসঙ্গে বললেন পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলে তখন আবার জেলায় গিয়ে কাজের তদারক করতে পারবেন।

মার্চ মাস থেকে রাজ্য শুধু নয়, গোটা দেশ কার্যত করোনায় বন্দি। জুলাই-আগস্ট মাসে এর সংক্রমণ চরমে উঠবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সে সময়েও বিশেষজ্ঞদের কথা বলে জানিয়েছিলেন, এই সময় নমুনা পরীক্ষার হার বাড়বে, বলেও সংখ্যাটা বাড়বে। তার পর থেকে কখনও কলকাতা, কখনও উত্তর ২৪ পরগনায় সংক্রমণের হার ছাড়িয়ে গিয়েছে। সোমবার প্রশাসনিক বৈঠকে বসে যা নিয়ে উদ্বেগও প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তার পর দিন মঙ্গলবারের বৈঠকেই পরিস্থিতি বদলাতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছেন। বলেছেন, “সেপ্টেম্বরে আশা করি ২০-২৫ তারিখের মধ্যে অনেকটাই সেটলড হয়ে যাবে কোভিডের (COVID-19) ব্যাপারটা। বিশেষজ্ঞরা তেমনই বলছেন।”

[আরও পড়ুন: মহামারীর অজুহাতে উন্নয়ন ফেলে রাখা যাবে না, সরকারি কাজে ফাঁকি রুখতে কড়া মমতা]

এদিকে, কলকাতা পুরসভার পদ্ধতিতে একটি নতুন সার্ভে করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা হিসাব দিয়েছেন জুন মাসের হিসাব অনুযায়ী, রাজ্যে ৩৫ শতাংশ স্বাভাবিক মৃত্যুর হার কমেছে। কিন্তু যাঁদের মৃত্যু হচ্ছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে তাঁদের করোনা ছিল না। অন্য কোনও অসুখ নিয়ে ভর্তি হয়ে দুর্বলতার কারণে বা হাসপাতালে এসে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীর সতর্কবার্তা, দেখতে হবে যাতে হাসপাতাল থেকে করোনা না নিয়ে ফেরেন। একইসঙ্গে মৃত্যুর হার কমাতে রোগ আলাদা করে কীভাবে নির্ণয় করা যায়, তারও ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। বিশেষজ্ঞ কমিটি হোক বা স্বাস্থ্যশিক্ষা অধিকর্তা, জেলায় হাসপাতাল ঘুরে দেখতে হবে। মৃত্যুর হার কমাতে হবে।

[আরও পড়ুন: চিকিৎসা মিলবে, কিন্তু পড়শি রাজ্যের কোভিড কেস বাংলায় কাউন্ট হবে না: মুখ্যমন্ত্রী]

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার বিষয়েও আইসিএমআরের (ICMR) গাইডলাইন মেনে চলতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। টানা তিনদিন জ্বর না থাকলে আর কোনও করোনা রোগীকে হাসপাতালে রাখা হবে না। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ, এই গাইডলাইন মানতে হবে। তাতে শয্যা বাড়বে। আবার ডিসচার্জ রেটও বাড়বে। নতুন করে স্বাস্থ্যবিমার কভারেজের সময় সেপ্টেম্বর থেকে বাড়িয়ে নভেম্বর পর্যন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি এই কাজ করতে গিয়ে বিডিও, পুলিশের মধ্যে অনেকেই সংক্রমিত হচ্ছেন। তাঁদের শরীরের দিকও নজর দিতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। ডেঙ্গু মোকাবিলায় শহরের নিকাশি ও বিভিন্ন খালে জমে থাকা আবর্জনা নিয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে (Firhad Hakim) ব্যবস্থা নিতে বলেছেন।

ছবি: পিন্টু প্রধান

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement