BREAKING NEWS

২৬ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ে UGC’র নয়া গাইডলাইনে আপত্তি, মোদিকে চিঠি মমতার

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 11, 2020 6:30 pm|    Updated: July 11, 2020 6:39 pm

An Images

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: মতান্তর, আপত্তি অনেক জানানো হয়েছে। করোনা আবহে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (UGC) নয়া গাইডলাইন নিয়ে রাজ্য সরকারের আপত্তির কথা কেন্দ্রের সংশ্লিষ্ট বিভাগে জানানো হয়েছিল। তাতে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। এবার তাই নিজেই আসরে নামলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। এ নিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখলেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে অর্থাৎ করোনা আবহে পড়ুয়াদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তার কথা ভেবে UGC’র সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আবেদন জানালেন তিনি।

গত সপ্তাহে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনা করে করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলির অন্তিম বর্ষে পরীক্ষা নিয়ে নতুন গাইডলাইন জারি করে UGC। তাতে বলা হয়, সেপ্টেম্বরে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলির ফাইনাল পরীক্ষা নেওয়া হবে। তা অনলাইনে হতে পারে অথবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়েও হতে পারে। UGC’র এই গাইডলাইনের বিরোধিতা করে রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়। কারণ, এই পরিস্থিতিতে কোনওভাবেই নতুন করে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব নয় বলে জানান উপাচার্যরা। সেক্ষেত্রে রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে আগের সেমিস্টারের ফলাফলের ভিত্তিতে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল।

[আরও পড়ুন: রাজ্যের একাধিক সরকারি হাসপাতালে ঘুরেও মিলল না চিকিৎসা, মৃত্যু করোনা আক্রান্ত তরুণের]

এরপর UGC’র নতুন গাইডলাইনে আপত্তি তুলে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকে চিঠি পাঠান রাজ্যের উচ্চশিক্ষা সচিব মণীশ জৈন। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে চান রাজ্যপালও। সেইমত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে আলোচনা হয়। রাজ্যপালকেও উপাচার্যরা জানান যে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব নয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে এবার প্রধানমন্ত্রীকেই সরাসরি চিঠি লিখলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর আবেদন, পড়ুয়ারা দেশের ভবিষ্যৎ। তাই তাঁদের কেরিয়ার এবং সুস্থতাই প্রশাসনের অগ্রাধিকার। এই অবস্থায় পরীক্ষা নেওয়া মানে তাঁদের বিপদের আশঙ্কা বেড়ে যাওয়া। তাই সিদ্ধান্ত যেন পুনর্বিবেচনা করা হয়। 

[আরও পড়ুন: দিনে লক্ষাধিক নমুনা পরীক্ষা করতে সুইডেন থেকে ৮টি বিশেষ যন্ত্র আনছে রাজ্য]

মুখ্যমন্ত্রী চিঠিতে এও জানিয়েছেন যে পরীক্ষা নিয়ে রাজ্যের শিক্ষা দপ্তরের যে সিদ্ধান্ত, তা এককভাবে নেওয়া হয়নি। বিশেষজ্ঞ, পড়ুয়াদের অভিভাবক এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমেই মূল্যায়ণের বিকল্প পথ খুঁজে বের করা হয়েছে। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement