২ শ্রাবণ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভাড়া নিয়ে বচসার জের। ট্যাক্সি চালককে পিটিয়ে খুনের অভিযোগে পুলিশের জালে এক ব্যক্তি। মৃতের নাম সুকুমার জানা। শুক্রবার বিকেলে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে কেষ্টপুরের রবীন্দ্রপল্লি এলাকায়।

[আরও পড়ুন: ‘নবান্ন নয়, কথা হবে এনআরএসে’, মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন ফেরাল জুনিয়র চিকিৎসকরা]

জানা গিয়েছে, শুক্রবার বিকেলে ৪ টে ১৫ নাগাদ কেষ্টপুরের বাসিন্দা সৌমেন রায় বেলঘরিয়া যাবেন বলে একটি ট্যাক্সি (ডব্লিউবি ০৪এইচ ৪৬০৮) ডাকেন। কিন্তু মিটারে যেতে রাজি হননি চালক সুকুমার জানা। বেলঘরিয়া যাওয়ার জন্য যাত্রীর কাছে মোটা অঙ্কের ভাড়া চান তিনি। কিন্তু ট্যাক্সি চালকের দাবি মতো ভাড়া দিতে রাজি হননি সৌমেনবাবু। তা নিয়েই দু’পক্ষ কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়ে।

অভিযোগ, উত্তেজিত হয়ে ট্যাক্সি থেকে সুকুমারবাবুকে টেনে বের করে আনার চেষ্টা করেন সৌমেনবাবু। ট্যাক্সির দরজা খুলে এগিয়ে যান সুকুমারবাবুও। তার পরেই দু’জনের হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। এর মধ্যে সৌমেনবাবু ওই ট্যাক্সিচালককে চড়, ঘুসি মারতে থাকেন বলে অভিযোগ। মারধরের জেরে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সুকুমারবাবু। এরপরেই অচৈতন্য হয়ে পড়েন সুকুমারবাবু। সেই সময় ওই রাস্তা হয়ে কেষ্টপুরে যাচ্ছিলেন এক অটোচালক। বিষয়টি তাঁর নজরে পড়তেই তিনি সুকুমারবাবুকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন। প্রথমে পুলিশে খবর দেওয়ার চেষ্টা করেন ওই অটোচালক। কিন্তু ফোনে না পেয়ে এক সিভিক ভলান্টিয়ারকে জানান তিনি। এরপর খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। সিভিক ভলান্টিয়ার ও পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে ফিরে যান ওই অটোচালক। সেখানে কাউকে দেখতে না পেয়ে এলাকায় খোঁজাখুঁজি শুরু করে তাঁরা। এলাকার এক চিকিৎসকের চেম্বারে দেখা মেলে সুকুমারবাবু ও সৌমেনবাবুর। সেখান থেকেই সুকুমারবাবুকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছেন অভিযুক্ত সৌমেনকে। 

[আরও পড়ুন: দার্জিলিংয়ের স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধান চেয়ে রাজ্যপালের কাছে গেলেন মুকুল রায়]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং