১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৫  রবিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৮ 

মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও দীপাবলি ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৫  রবিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৮ 

BREAKING NEWS

শুভময় মণ্ডল: ‘যখন তোমার ভাঙবে ঘুম, সেটাই তোমার সকাল…’। মুখ্যমন্ত্রীর গানে এবার ঘুরে দাঁড়ানোর শপথ এ শহরের নির্ভয়াদের।

মধুসূদন মঞ্চ। জ্ঞান মঞ্চ। এবার কলামন্দির। নিজেদের যন্ত্রণার কাহিনি শুনিয়ে সমাজের ঘুমিয়ে থাকা বিবেককে জাগিয়ে তুলতে ফের একবার মঞ্চে তারা। কেউ আড়কাঠির পাতা ফাঁদে পা দিয়ে পাচার হয়ে গিয়েছিল ভিনরাজ্যে। কেউ প্রেমিকরূপী দালালের খপ্পরে নিষিদ্ধপল্লিতে। কেউ আবার পারিবারিক নির্যাতনের শিকার। মুখ্যমন্ত্রীর গানে এবার ঘুরে দাঁড়ানোর শপথ তাদের। অনুষ্ঠানের নামও রাখা হয়েছে ‘যখন তোমার ভাঙবে ঘুম’। ৫৬ মিনিটের ‘ডান্স থিয়েটার’। কেন্দ্রীয় চরিত্রে এক ধর্ষিতার পরিবারের খুদে সদস্য। যে রাতে বাসে চেপে বাড়ি ফেরার সময় পাশবিক হামলার মুখে পড়ে। অত্যাচারের দাপটে শিশুকন্যার স্মৃতিভ্রংশ হয়। সেই স্মৃতি ফিরে আসা পর ধর্ষকদের মুখোমুখি হয়ে সেদিনের শিশুর কৈফিয়ত তলব, প্রতি মুহূর্তে বিবেকের দংশনে বিদ্ধ হবে জেগে ঘুমিয়ে থাকা সমাজ। এমনটাই জানালেন অনুষ্ঠানের আয়োজক ‘মহিমা ইন্ডিয়া’-র অধিকর্তা স্মিতা সিং। বৃহস্পতিবার সন্ধে ছ’টায় কলামন্দিরে তাদের অনুষ্ঠান। এবার তাদের অনুষ্ঠানের সঙ্গী হচ্ছে বাংলার বিখ্যাত ব্যান্ড ‘ভূমি’ ও ‘জোয়ার’।

 
রিহার্সালে নির্ভয়ারা

যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়া মেয়েরা যাতে সুবিচার পায় তার জন্য ‘পকসো’, ‘ইমমরাল ট্রাফিক অ্যাক্ট’-সহ একাধিক আইন রয়েছে। কিন্তু যৌন নির্যাতন যাতে না হয় তার জন্য তেমন কোনও প্রশাসনিক পদক্ষেপ বা প্রকল্প নেই। উলটে, শিশুদের খাতে বাজেট বরাদ্দ কমছে। বক্তাদের পর্যবেক্ষণ, শুধু মোমবাতি মিছিল, কালো ব্যাজে কিছু হবে না। শিশুদের ছোট থেকে অন্য অঙ্গের সঙ্গে যৌনাঙ্গকেও চেনাতে হবে। ভাল ও খারাপ স্পর্শের ফারাক বোঝাতে হবে। নির্যাতনের শিকার হলে চিৎকার করার বুদ্ধি দিতে হবে। সর্বোপরি পাড়ায় পাড়ায় শিশু নির্যাতন বিরোধী কমিটি গড়তে হবে।
ঠাকুরপুকুর, হরিদেবপুর ও বিবিরহাটে সংস্থার চারটি হোম হয়েছে। এখানেই পাশবিক নির্যাতনের শিকার হওয়া শিশু, কিশোরী ও তরুণীরা নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছে। কয়েক মাস ধরে তাদের রিহার্সাল করাচ্ছেন মহিমার ডান্স-থেরাপিস্ট সঞ্চয়িতা হালদার। ‘যখন তোমার ভাঙবে ঘুম’ সঞ্চয়িতারই ভাবনা। ভাবনাকে স্ক্রিপ্টবন্দি করেছেন নটরাজ দাস। সংগীতে বাংলা ব্যান্ড ‘জোয়ার’। সঞ্চয়িতা জানালেন, “শ্রাবণী সেন-সহ বহু বিশিষ্ট মানুষ এই প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। মেয়েরা দিন-রাত এক করে প্রাণ ঢেলে কাজ করেছে। এটুকু বলতে পারি, মেয়েদের পারফরম্যান্স পেশাগত শিল্পীদেরও চমকে দেবে।”

[ম্যালের পর চৌরাস্তা, পাহাড়ে বিনোদনের নয়া ঠিকানা]

 

আগের দুটি অনুষ্ঠানে আশাতীত দর্শক সমাগম হয়েছিল বলে জানিয়েছেন স্মিতা সিং। কিন্তু রাজ্য তথা দেশজুড়ে যেভাবে দিনদিন ধর্ষণ, যৌন নিগ্রহের ঘটনা বাড়ছে তা উদ্বেগের। তাই সংস্থার তরফে তিনি চাইছেন, আরও বেশি সংখ্যক মানুষ তাদের এই মহৎ কাজে শরিক হন। অনুষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত অর্থ ওই কিশোরীদের ভবিষ্যত নিধিতেই ব্যয় হবে। তারা সাবালিকা হওয়ার পর সমাজের মূলস্রোতে ফিরে যাওয়ার সময় খোরপোশ বাবদ এই অর্থ তাঁদের হাতে তুলে দেওয়ার অঙ্গীকার সংস্থার। যাতে পরবর্তীকালে স্বাবলম্বী হতে পারে ওরা। তাই অনুষ্ঠানে বেশি সংখ্যক দর্শক বৃহস্পতিবার কলামন্দিরে আসুন, এটাই আবেদন স্মিতা সিংয়ের। আগ্রহীরা টিকিটের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন এই মোবাইল নম্বরে- 94333 04353

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং