BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

এবার করোনার কবলে নার্সও, রিপোর্ট হাতে পেয়ে দাবি মধ্যমগ্রামের সেবিকার পরিবারের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 3, 2020 11:30 am|    Updated: April 3, 2020 1:38 pm

An Images

গৌতম ব্রহ্ম ও ব্রতদীপ ভট্টাচার্য: নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন  রাজ্যের এক নার্স।  নাগেরবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। পরিবার সূত্রে খবর, সেখানে ইটালি ফেরত দুই COVID-19 পজিটিভ রোগীর চিকিৎসা করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন মধ্যমগ্রামের বাসিন্দা ওই নার্স।  তাঁর শরীরেও সংক্রমণ ঘটতে পারে, এই আশঙ্কা করে তাঁকে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা শুরু হয়। লালারসের নমুনা পাঠানো হয় সোয়াব টেস্টের জন্য। বৃহস্পতিবার রাতে রিপোর্ট আসে। পরিবারের সদস্যদের দাবি, রিপোর্ট পজিটিভ। যদিও স্বাস্থ্যভবন সূত্রে এখনও খবরটি নিশ্চিত করা হয়নি। তিনিই এ রাজ্যের প্রথম করোনা আক্রান্ত সেবিকা। তাঁর পরিবারের সদস্যদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

এছাড়া বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতাল এবং পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজ্যে নতুন করে আরও ১২ জনের দেহে করোনার উপসর্গ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।তবে রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে এ নিয়ে এখনও কোনও পরিসংখ্যান মেলেনি।

[আরও পড়ুন: করোনায় মৃতদের অন্ত্যেষ্টি, কুশপুতুল দাহ করার নিদান দিলেন বৈদিক পণ্ডিতরা]

সূত্রের খবর, এঁদের মধ্যে নাগেরবাজারের এক বেসরকারি হাসপাতালে নতুন করে ভরতি হয়েছেন একজন। এছাড়া বাইপাসের ধারে দুটি নামী বেসরকারি হাসপাতালে একই উপসর্গ নিয়ে ভরতি হয়েছেন আরও দু’জন। ট্রপিক্যাল মেডিসিনে রয়েছেন ২ জন। শুক্রবার ফের এঁদের নমুনা পরীক্ষা করা হবে এখানে। তার রিপোর্ট মিললেই বোঝা যাবে তাঁরা করোনা পজিটিভ কি না। এছাড়া এসএসকেএমে দু’জন ভরতি রয়েছেন এবং উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আরও পাঁচজন ভরতি রয়েছেন। এঁদের প্রত্যেকের শরীরেই COVID-19এ আক্রান্ত হওয়ার কোনও না কোনও উপসর্গ রয়েছে।

যদিও স্বাস্থ্যভবন সূত্রে রাজ্যে নতুন করে করোনা আক্রান্তের কোনও খবর নেই। এঁদের মধ্যে অনেকেরই রিপোর্ট হাতে না পাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও মুখ খুলতে নারাজ। তবে সবাইকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। সরকারি হিসেব অনুযায়ী, রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩। মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩ জন। 

[আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে গুজব ছড়ালে হতে পারে কারাবাসও, সতর্ক করলেন পুলিশ কমিশনার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement