BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সম্পত্তির জন্য নাতি ও পুত্রবধূর হাতে খুন বৃদ্ধা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 26, 2016 11:52 am|    Updated: June 26, 2016 11:52 am

An Images

নিজস্ব সংবাদদাতা, বারাকপুর: জোর করে সম্পত্তি লিখিয়ে না নিতে পেরে বৃদ্ধাকে পিটিয়ে খুন করল পুত্রবধূ ও নাতি৷ শুক্রবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার বরানগর থানা এলাকার ৫ নম্বর নিয়োগীপাড়ায়৷ ছেলে ও বউয়ের হাত থেকে মাকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন বৃদ্ধার ছেলেও৷ অভিযুক্ত পুত্রবধূ ও নাতিকে গ্রেফতার করে বরানগর থানার পুলিশ৷

দীর্ঘদিন ধরেই বছর পঁচাত্তরের মাধবী জানার বিবাদ চলছিল পুত্রবধূ শিখা জানা ও নাতি দেবাঙ্গন জানার সঙ্গে৷ শুক্রবার দুপুরে তা চরমে ওঠে৷ বৃদ্ধার স্বামী হরিপদ জানা বেশ কয়েক বছর আগেই মারা গিয়েছেন৷ তারপর থেকে মাধবী জানার নামেই বসতবাড়ি ও যাবতীয় সম্পত্তি৷ মাধবীদেবীর ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন৷ তিন মেয়ের বিয়ে হয়ে গিয়েছে অনেক আগে৷ পাঁচ কাঠা জমির উপর তিনতলা বাড়ি৷ তার পাশে আরও ছয়টি ঘর আছে৷ সেগুলি ভাড়া দেওয়া৷ ভাড়ার টাকা দিয়েই সংসার চলত জানা পরিবারের৷

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, জমি-সহ ওই বাড়ি তাদের নামে লিখে দেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে মাধবীদেবীর উপর মানসিক শারীরিক নির্যাতন চালাত মা ও ছেলে৷ মাধবীদেবীর ছোট মেয়ে সোমা প্রামাণিকের অভিযোগ, শুক্রবার ফের জোর করে ওই জমি লিখিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে তারা৷ সম্পত্তি তাদের নামে লিখে দিতে অস্বীকার করেন বৃদ্ধা৷ এর পর মাধবীদেবীকে পেরেক গাঁথা কাঠ দিয়ে বেধড়ক মারধর করে পুত্রবধূ ও নাতি৷ স্ত্রী ও ছেলের হাত থেকে মাকে বাঁচাতে গেলে গুরুতর আহত হন বৃদ্ধার ছেলে৷

মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে তিন নম্বর নিয়োগীপাড়ায় ছোট মেয়ের বাড়িতে পালিয়ে যান বৃদ্ধা৷ মাধবীদেবীকে প্রথমে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরানগর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ অবস্থার অবনতি হলে নিয়ে যাওয়া হয় সাগর দত্ত হাসপাতালে৷ শুক্রবার রাতে সেখানেই মৃত্যু হয় বৃদ্ধার৷

শনিবার সকালে বৃদ্ধার ছোট মেয়ে সোমা প্রামাণিক, শিখা ও দেবাঞ্জনের বিরুদ্ধে বরানগর থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করেন৷ স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃদ্ধার নাতি দেবাঙ্গন বরানগর কুঠিঘাটের কাছে রামেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয়ের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র৷ অভিযোগ উঠেছে, সে মাদকাসক্ত৷ তার ঘর থেকে নেশার দ্রব্যও বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ৷

পারিবারিক সূত্রে আরও জানা দিয়েছে, শ্বশুরের মৃত্যুর আগেই নিজের নামে সম্পত্তির উইল করিয়ে নেয় পুত্রবধূ শিখা জানা৷ কিন্তু ননদদের নো অবজেকশন না থাকায় সম্পত্তি দখল করতে পারছিল না শিখা৷ সম্পত্তির দখল পেতে স্বামীর উপর মানসিক অত্যাচার চালাত সে৷ সোমা প্রামাণিক বলেন, দেড় কাঠা জমি তাঁর নামে লিখে দিতেই বেপরোয়া হয়ে ওঠে শিখা৷

মা ও ছেলেকে গ্রেফতার করেছে বরানগর থানার পুলিশ৷ ধৃতদের শনিবার বারাকপুর আদালতে পেশ করা হলে বিচারক তাদের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন৷ অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি তুলেছেন মৃতার মেয়ে ও পড়শিরা৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement