২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

KYC আপডেট করার নামে জালিয়াতি, কলকাতায় ফের ‘অপারেশন’ জামতাড়া গ্যাংয়ের!

Published by: Sayani Sen |    Posted: June 6, 2020 9:08 am|    Updated: June 6, 2020 9:08 am

An Images

ছবি: প্রতীকী

অর্ণব আইচ: ই ওয়ালেটে জালিয়াতি। কেওয়াইসি আপডেট করার নাম করে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের এক বাসিন্দার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ৪৯ হাজার ৭৯৯ টাকা তুলে নিল জালিয়াত। এই বিষয়ে বালিগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। লালবাজারের গোয়েন্দারা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছেন। গোয়েন্দাদের ধারণা, এই জালিয়াতির পিছনে রয়েছে কুখ্যাত জামতাড়া গ্যাং। জামতাড়া থেকেই জালিয়াতরা অভিযোগকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল কি না তা জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা।

পুলিশ জানিয়েছে, গত মাসে ওই ব্যক্তিকে ফোন করে নিজেকে একটি নামী ই ওয়ালেটের কর্মী বলে পরিচয় দেয় ওই জালিয়াত। ই ওয়ালেটের কেওয়াইসি আপডেট করার নাম করে ওই ব্যক্তিকে একটি লিংক পাঠানো হয়। তাঁর কাছ থেকে কৌশলে ওটিপি জেনে নেয় সে।অভিযোগকারী বুঝতে পারেননি যে, একটি অ্যাপের মাধ্যমে তাঁর মোবাইল ‘মিরর’ করেছে জালিয়াত। জানার ব্যবস্থা করেছে তাঁর মোবাইলের যাবতীয় তথ্য। মোবাইলে তাঁর ব্যাংক লেনদেনের তথ্য জেনে নেয়। এরপরই ওই ব্যক্তির বেসরকারি ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ৪৯ হাজার ৭৯৯ টাকা তুলে নেয় ওই জালিয়াত। ব্যাংক থেকে তিনি বিষয়টি জানার পর গোয়েন্দা বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: করোনায় মৃত ব্যক্তির দেহ সৎকারের আগের নিয়মে বড়সড় বদল আনল রাজ্য সরকার]

এর আগে গত মে মাসে পার্ক স্ট্রিটের একটি রেস্তরাঁ থেকে হোম ডেলিভারির নাম করে জালিয়াতি করা হয়। এক ব্যক্তি অভিযোগকারীকে ফোন করে নিজেকে পার্ক স্ট্রিটের একটি নামী রেস্তরাঁর ম্যানেজার বলে পরিচয় দেয়। বলে, রেস্তরাঁর তরফ থেকে হোম ডেলিভারি দেওয়া শুরু হয়েছে। এখন দশ টাকা দিয়ে বুক করলে পরের দিন খাবারের অর্ডার দেওয়া যাবে। বাড়িতে পৌঁছে যাবে খাবার। নেতাজিনগরের ওই বাসিন্দা রাজি হলে তাঁর মোবাইলে ওই ব্যক্তি একটি লিংক পাঠায়। সেই লিংকে ক্লিক করা মাত্র দুই হাজার টাকা তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে চলে যায়।টাকা ফেরত দেওয়ার নাম করে অন্য একটি লিংক তাঁকে পাঠানো হয়। ওই লিংকে ক্লিক করার পরই তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে তুলে নেওয়া হয় ৩২ হাজার টাকা। এরপরই তিনি নেতাজিনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। 

[আরও পড়ুন: লকডাউন ও পরিবহণ সংক্রান্ত মামলার জের, কেন্দ্র ও রাজ্যের কাছে রিপোর্ট চাইল হাই কোর্ট]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement