BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নাম না করে দিলীপ ঘোষকে ‘জোকার’ বলে কটাক্ষ পার্থর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 22, 2017 11:27 am|    Updated: August 21, 2020 12:38 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সারদা-নারদ বিতর্ককে ব্যাকফুটে ঠেলে ২১ জুলাই ধর্মতলার জনসমুদ্র যে তৃণমূল কংগ্রেসের আত্মবিশ্বাস বেশ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে, সেটা দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য থেকেই স্পষ্ট। শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে নাম না করে বিজেপি ও কেন্দ্রীয় সরকারকে দফায় দফায় আক্রমণ করলেন পার্থ। নাম না করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে ‘সার্কাসের জোকার’ বলে কটাক্ষও করলেন। বললেন, “ওই যে একটা লোক গলায় গামছা বেঁধে টিভি ক্যামেরার সামনে কথা বলেন, উনি অনেকটা সার্কাসের জোকারের মতো। ওই গামছায় ওঁর কাল হবে।” পার্থবাবুর দাবি, ২১ জুলাইয়ের সমাবেশে জনজোয়ার দেখে ভয় পেয়েছে বিজেপি। তাই তৃণমূল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে কুৎসা করছে।

[অবশেষে ফিরছে পাশ-ফেল, চলতি অধিবেশনে আইন সংশোধন]

পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন বলেন, “বিজেপির এই রাজ্যে কোনও সাংগঠনিক ক্ষমতা নেই। ওদের টাকা দিয়ে পতাকা লাগাতে হয়। যাঁরা হিংসায় নিন্দা, কুরুচিপূর্ণ কথা বলছেন, মানুষ তার জবাব দেবেন।” শিক্ষামন্ত্রীর অভিযোগ, বিজেপির আমলে শিক্ষার গৈরিকীকরণ চলছে। শুধু এই রাজ্যে নয়, গোটা দেশেই এই বিপজ্জনক প্রবণতা দেখা যাচ্ছে বলে মুখ খোলেন পার্থবাবু। গায়ের জোরে চাপিয়ে দেওয়ার রাজনীতির বিরোধিতা করে তিনি বলেন, “কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ মন্ত্রীর কোনও সম্যক জ্ঞান নেই। নিজে এক কথা বলছেন, তাঁর দল আর এক কথা বলছে। রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্র নিয়ে বলছেন, এত কুৎসা, এত হিংসা কেন? বাংলার মানুষের হৃদয়ের কথা শুনুন। সেই হৃদয়ে রয়েছে শুধুমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।”

[একুশের মঞ্চে জাতীয় সংগীতের অবমাননা মুখ্যমন্ত্রীর, অভিযোগে সরব দিলীপ]

২১ জুলাইয়ের সমাবেশের পর গতকাল দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাম্প্রদায়িক তাস খেলছেন। তার জবাবে এদিন পার্থবাবু বলেন, “বাংলা যেদিন অশান্ত হয়েছিল, সেদিন কে মাদার টেরেজার সঙ্গে রাস্তায় নেমেছিলেন? তাঁর নাম মমতা। সাম্প্রদায়িক তাস খেলছেন আপনারাই। আপনাদেরই শাখা-সংগঠন ধর্মীয় তাস খেলছেন। মমতার কথা বলছেন? উনি হলেন দেশের অসাম্প্রদায়িক মুখ।” পার্থবাবুর অভিযোগ, কেন্দ্রে বিজেপি সরকারের আমলে গরিব আরও গরিব হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্য দেশের গুটিকয়েক ধনীরা আরও ধনী হচ্ছেন। কিন্তু দেশের ৯০% মানুষ, যাঁরা গরিব, তাঁরা নোট বাতিল, জিএসটির জন্য আধপেটা খেয়ে রয়েছেন। মমতার সুরেও পার্থবাবুরও একই অভিযোগ, “কালো টাকার এক টাকাও বিদেশ থেকে উদ্ধার করে আনতে পারেনি, আবার বড় বড় কথা।” রাজ্যকে সাম্প্রদায়িকভাবে রাজ্যকে ভাগ করতে চেয়েছেন মমতা, বিজেপির এই অভিযোগ এদিন উড়িয়ে দেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

[২১ জুলাই LIVE: ‘দিল্লিকে বোল্ড আউট করার ডাক মমতার’]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement