২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শিরে সংক্রান্তি কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমারের। সারদা মামলার তদন্তে আগে একাধিকবার সিবিআইয়ের তলব এড়িয়ে গেলেও, এবার নিজেকে নিরাপদে রাখা তাঁর পক্ষে ক্রমশই কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে দুঁদে আইপিএস অফিসারও কম যান না। সোমবার প্রথমার্ধ্বেই গ্রেপ্তারি এড়াতে তিনি চলে গেলেন বারাসত আদালতে। আগাম জামিনের আবেদন করলেন। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার সেই মামলা শুনানি। এদিকে, সিবিআই সূত্রে খবর, আজ দুপুর ২টোর মধ্যে তিনি সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা না দিলে, বড়সড় আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে তাঁর বিরুদ্ধে। 

[আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে উড়বে তাঁর নাম লেখা ঘুড়ি, জনসংযোগে নয়া কৌশল বিজেপির]

সারদা মামলায় গত শুক্রবারই কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে উঠে গিয়েছিল কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের রক্ষাকবচ। বিচারপতি মধুমতী মিত্রের দেওয়া রায় অনুযায়ী, যে কোনও মুহূর্তে রাজীব কুমারকে গ্রেপ্তারিতে সবুজ সংকেত দিয়েছিল সিবিআই। সেইমতো শনিবার সকাল ১০টা নাগাদ তাঁকে তলব করেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। দিনভর অপেক্ষার পরও তিনি হাজিরা দেননি। বিকেলের দিকে ই-মেল পাঠিয়ে তদন্তকারী আধিকারিকদের রাজীব কুমার জানিয়েছিলেন, ছুটিতে আছেন, তাই সিবিআই দপ্তরে হাজিরা দেওয়া সম্ভব নয়। ২৫ তারিখ পর্যন্ত ছুটি, তারপর তিনি দেখা করতে পারেন। সূত্রের খবর, গ্রেপ্তারি এড়াতে ফের আইনি রক্ষাকবচের জন্য সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতেই এই সময়টা নিচ্ছেন তিনি। সেটাই প্রমাণিত হল সোমবার বেলা ১০টা নাগাদ। বারাসত আদালতে গিয়ে তিনি আগাম জামিনের আবেদন জানালেন। তবে এরপরও তাঁর গ্রেপ্তারির আশঙ্কা কাটছে না।মঙ্গলবার শুনানির আগে পর্যন্ত তাঁকে হাতে পেলে গ্রেপ্তারের রাস্তা খোলা থাকছে সিবিআইয়ের কাছে।

শনিবার তাঁর ই-মেল পাওয়ার পরই সিবিআই রাজীব কুমারের অবস্থান সম্পর্কে জানার চেষ্টা শুরু করে। তবে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। সিবিআই সূত্রে খবর, কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের ফোন বন্ধ। তাঁর দেহরক্ষীও ফোনও সুইচড অফ। ফলে, রাজীব কুমারের অবস্থান সম্পর্কে একেবারেই অন্ধকারে তদন্তকারীরা। এই পরিস্থিতিতে তাঁকে দ্বিতীয়বার তলবের নোটিস না পাঠিয়ে সরাসরি আইনি পদক্ষেপের কথা আলোচনা হয় সিবিআইয়ের অন্দরে। সেইমতো প্রস্তুতিও শুরু হয়। একদিকে, রবিবার বিকেলে নবান্নে চিঠি পাঠিয়ে রাজীব কুমারের অবস্থান জানার চেষ্টা চলে। আরেকদিকে, আইনের দিকগুলি সাজিয়ে নেওয়ার জন্য তড়িঘড়ি দিল্লি উড়ে যান সিবিআইয়ের আইনজীবী জেওয়াই দস্তুর। সূত্রের খবর, নবান্নে রাজ্য পুলিশের ডিজিকে চিঠি দিয়ে সিবিআই জানতে চায়, রাজীব কুমার কোথায় আছেন। হয় সেই অবস্থান রাজ্য পুলিশ জানাক, নয়ত কবুল করুক যে আইপিএস অফিসারের কোনও খোঁজ তাঁরা জানেন না। 

[আরও পড়ুন: মা উড়ালপুল থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা ব্যক্তির, ছুটির দিনে ছড়াল চাঞ্চল্য]

গত ফেব্রুয়ারি মাসে রাজীব কুমারকে গ্রেপ্তার করতে সিবিআই আধিকারিকরা তাঁর লাউডন স্ট্রিটের বাসভবনে গিয়ে বড় বাধার মুখে পড়েছিলেন। সাদা পোশাকে কলকাতা পুলিশে বাংলো ঘিরে ফেলে সিবিআই আধিকারিকদের ঢুকতে বাধা দেয়। আবার গত সপ্তাহে পার্ক স্ট্রিটে রাজীব কুমারের অফিসে নোটিস দিতে গিয়ে বাধার মুখে না পড়লেও, তদন্তকারীরা বুঝে গিয়েছিলেন, বজ্র আঁটুনি নিরাপত্তা বলয় সবসময়েই রয়েছে এই আইপিএস অফিসারকে ঘিরে। সূত্রের খবর, সেই অভিজ্ঞতা মাথায় রেখে এবার আগাম বাড়তি সতর্কতা নিয়েছে সিবিআই। অতিরিক্ত কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং