৩১ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

৩১ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

দীপঙ্কর মণ্ডল: তৃণমূলনেত্রী প্রকাশ্যে কাটমানি ফেরানোর নিদান দেওয়ার পরই একের পর কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ প্রকাশ্যে আসছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অভিযুক্ত স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য কিংবা কাউন্সিলের। সেই অর্থে রাঘব বোয়ালদের বিরুদ্ধে এখনও তেমন অভিযোগ প্রকাশ্যে এসেছিল না। কিন্তু, এবার খোদ তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ টাকার কাটমানি আনলেন সিঁথির এক ব্যবসায়ী। তাঁর অভিযোগ, শাসকদলের রাজ্যসভার সাংসদ তথা বিখ্যাত চিকিৎসক শান্তনু সেন লক্ষ লক্ষ টাকা কাটমানি নিয়েছেন ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে।

[আরও পড়ুন: কথায়, সুরে ‘কাটমানি’ প্রতিবাদ তৃণমূল ঘনিষ্ঠ নচিকেতার]

অভিযোগ তুলছেন সিঁথি এলাকার প্রমোটার সুমন্ত্র চৌধুরি। তাঁর দাবি, কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলর থাকাকালীন তাঁর কাছ থেকে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকারও বেশি কাটমানি নিয়েছেন ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান। সুমন্ত্র চৌধুরি এলাকার খ্যাতনামা প্রমোটার, এলাকায় নান্তিবাবু নামে পরিচিত। সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে নান্তিবাবু বলছেন, “শান্তনুর কাটমানি খাওয়ার হাতেখড়ি ২৫ হাজার টাকা থেকে। প্রথম যখন ২৫ হাজার টাকা নিলেন, তখন বলেছিলেন গাড়ি, মাইক ভাড়ার জন্য টাকা লাগে তো।” ওই ব্যবসায়ীর দাবি, ২৫ হাজার টাকা থেকে শুরু করার পরই কাঠা প্রতি ২ লক্ষ টাকার সিস্টেম তৈরি করে ফেলেন চিকিৎসক সাংসদ। জমিতে যে কোনও কাজ করার আগে শান্তনুকে কাঠা প্রতি ২ লক্ষ টাকা দিতেই হত। এমন করে তিনি নিজেই প্রায় ৪০-৪২ লক্ষ টাকা দিয়েছেন। নান্তি চৌধুরি অবশ্য, তৃণমূলনেত্রীর কাটমানি ফেরানোর উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলছেন, “দিদি অভয় দিচ্ছেন বলেই, আমরা এসব কথা প্রকাশ্যে বলতে পারছি। নাহলে কোনওদিন সাহস হত না।”

[আরও পড়ুন: পুলিশের গুলিতেই ভাটপাড়ায় মৃত্যু, প্রমাণ পেশ করে দাবি অর্জুন সিংয়ের]

যদিও, শান্তনু সেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাফ জানিয়েছেন, এসব কিছুর সঙ্গেই তিনি যুক্ত নন। শান্তনুবাবু বলেন,”আমি একজন সাংসদ, প্রসিদ্ধ চিকিৎসকও। আমার বিরুদ্ধে যা রটানো হয়েছে, তাতে আমার সম্মানহানি হয়েছে। আমি এর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেব। মানহানির মামলা করব।”  কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ অবশ্য শুধু শান্তনুর বিরুদ্ধে একা নয়, বরং যিনি এখন ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সেই পুষ্পালি সিনহার বিরুদ্ধেও উঠছে। ওই প্রমোটার বলেছেন, তিনি নিজে হাতে করে কোনও টাকা পুষ্পালীদেবীকে না দিলেও তাঁর ভাই এবং ভাইপো লাখ তিনেক টাকা দিয়ে ফেলেছেন ইতিমধ্যেই।

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং