১১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বেপরোয়া বাইক ধরতে গিয়ে আক্রান্ত ট্রাফিক পুলিশ, গ্রেপ্তার ৩

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 24, 2019 12:53 pm|    Updated: July 25, 2019 2:59 pm

Traffic cop attacked again in Kolkata, 3 accused arrested

অর্ণব আইচ: ফের হেলমেটহীন, বেপরোয়া গতির বাইক আরোহীকে রুখতে গিয়ে আহত পুলিশ৷ টালিগঞ্জের কাছে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের হোমগার্ড ওই বাইকটি আটকাতে গেলে গতি বাড়িয়ে তারা পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ৷ আচমকা গতি বাড়ানোর ফলেই হোমগার্ড প্রতাপ কুমার রায় আহত হন৷ ৩ বাইক আরোহীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ বাজেয়াপ্ত হয়েছে বাইকটিও৷

[আরও পড়ুন: পুরভোট হোক ব্যালটেই, মমতার পাশে দাঁড়াল সিপিএম]

গতকাল রাতের এই ঘটনার পর কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে কর্তব্যরত ট্রাফিক গার্ডদের জন্য কয়েকটি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে৷ আধিকারিকরা বলছেন, এসব ঘটনায় অতিসক্রিয় হবেন না, প্রয়োজনে বাইকের নম্বরপ্লেট এবং আরোহীর ছবি তুলে রাখুন৷ যাতে পরবর্তী সময়ে সেই ছবি, নম্বরের সূত্র ধরে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া যায়৷

ঘটনা মঙ্গলবার রাতের৷ প্রায় বারোটা নাগাদ চারু মার্কেট থানার ওসির সঙ্গে যৌথভাবে নাকা চেকিং চলছিল টালিগঞ্জ ফাঁড়ির কাছে৷ ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে খবর, সেসময় দেশপ্রাণ শাসমল রোডের দিক থেকে একটি বাইক আসে, যাতে তিনজন আরোহী ছিলেন৷ বেপরোয়া গতিতে চলছিল বাইকটি৷ আর সেটাই রুখতে যান হোমগার্ড প্রতাপ কুমার রায়৷ তিনি আহত হন৷ বাইকটি আরও গতি বাড়িয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে৷ কিন্তু তাদের ধাওয়া করে ধরে ফেলে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ৷ মূল আরোহী শেখ শাজাহান প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোডের বাসিন্দা বলে পুলিশ সূত্রে খবর৷ তিনজনের বিরুদ্ধেই চারু মার্কেট থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷

এর আগে পয়লা জুলাই বেকবাগানের কাছে বেপরোয়া বাইকবাহিনী রাস্তার ধারে থাকা এক বৃদ্ধকে ধাক্কা মারে৷ তা দেখতে পেয়ে কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্ট বাইকটিকে রুখতে গেলে তাঁকে বেশ অনেকটা দূর টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায় বাইকটি৷ ঘটনায় ওই যুবকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে৷ এর ঠিক সপ্তাহখানেক পরই স্ট্র্যান্ড রোডে একই ঘটনা ঘটে৷ পরপর এই ঘটনায় উদ্বেগ বেড়েছে পুলিশের৷

[আরও পড়ুন:পুজোর আগেই ভোলবদল শিয়ালদহ স্টেশনের, যাত্রীদের সুবিধায় তৈরি ‘স্পা’]

গতকাল রাতের এই ঘটনার পর কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে কর্তব্যরত ট্রাফিক গার্ডদের জন্য কয়েকটি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে৷ আধিকারিকরা বলছেন, এসব ঘটনায় অতিসক্রিয় হবেন না, প্রয়োজনে বাইকের নম্বরপ্লেট এবং আরোহীর ছবি তুলে রাখুন৷ যাতে পরবর্তী সময়ে সেই ছবি, নম্বরের সূত্র ধরে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া যায়৷ পথ নিরাপত্তায় সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ কর্মসূচিকে আরও কার্যকর করতে রাস্তায় রাস্তায় এভাবেই টহল দিচ্ছেন ট্রাফিক সার্জেন্টরা৷ অথচ সেই কাজ করতে গিয়ে তাঁরা নিজেরাই আক্রান্ত হচ্ছেন৷  

 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে