১৭  আষাঢ়  ১৪২৯  রবিবার ৩ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘প্রধানমন্ত্রী হিসেব দাও’! নেটদুনিয়ায় ভাইরাল তৃণমূলের প্রচার ভিডিও

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: March 30, 2019 5:07 pm|    Updated: April 17, 2019 1:30 pm

Trinamool Congress releases video highlighting schemes

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: ভোটপ্রচারে অভিনব পন্থা তৃণমূলের। এবার ভিডিও তৈরি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় যুবসমাজের মন পেতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। ‘প্রধানমন্ত্রী হিসেব দাও’ শীর্ষক একটি ভিডিও নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলিতে পোস্ট করেছে রাজ্যের শাসকদল। যাতে মূলত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিষ্কপ্রসূত সবুজ সাথী প্রকল্পে আলোকপাত করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: ভোট চাইতে ঘরে ঢুকবেন না, বিকাশরঞ্জনের বিরুদ্ধে গৃহস্থের দরজায় নোটিস]

ভোটের বাদ্যি বাজার অনেক আগে থেকেই শুরু হয়েছে প্রচার যুদ্ধ। মূলত সোশ্যাল মিডিয়ায়। আসলে জেনারেশন ওয়াইকে আকৃষ্ট করতে সোশ্যাল মিডিয়ার বিকল্প যে কিছু হয় না, তা বুঝে গিয়েছে শাসক-বিরোধী দুই শিবিরই। তাই তরুণ-তরুণীদের মন পেতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলিকেই ব্যবহার করছে বিজেপি-তৃণমূল-কংগ্রেস-সিপিএম সব দলই। কোথাও অভিনব পোস্টার, কোথাও দেওয়াল লিখন, এসবই ভোটের মরশুমে দেদার শেয়ার করা হচ্ছে। প্রতিপক্ষ দলের দোষত্রুটি এবং নিজেদের শক্তি আর উন্নয়নমূলক কাজকর্ম সাধারণের কাছে তুলে ধরার অন্যতম হাতিয়ার হচ্ছে ছোট ছোট ভিডিও-ও।

ইতিমধ্যেই একটি থিম সং প্রকাশ করেছেন বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। যা নিয়ে বেশ জলঘোলাও হয়েছে। বাবুলের ভিডিওটিতে বেশ কয়েকটি কাটছাঁটের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। বিজেপির এই থিম সংয়ের পালটা হিসেবে তৃণমূল সমর্থকরা একটি ব়্যাপ ভিডিও শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেটিও শেয়ার হচ্ছে বেশ। এরই মধ্যে তৃণমূলের অফিসিয়াল অ্যাকাউন্ট থেকে নতুন একটি ভিডিও প্রকাশ করা হল।

[আরও পড়ুন: মাদ্রাসায় নিয়োগের দাবি, মেয়ো রোড থেকে অনশনকারীদের তুলে দিল পুলিশ ]

১ মিনিট ৮ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে। বিজেপি শাসিত রাজ্য হরিয়ানার সঙ্গে এরাজ্যের গ্রামাঞ্চলের ছাত্রীদের পার্থক্যের কথা তুলে ধরা হয়েছে। একদিকে দেখানো হয়েছে, বিজেপি শাসিত রাজ্য হরিয়ানায় যেখানে মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে মেয়েদের স্কুলে যেতে অসুবিধা হচ্ছে। অনেক মেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ হতে বসেছে, সেখানে বাংলায় পুরোপুরি উলটো ছবি। সবুজ সাথীর সাইকেলের সাহায্যে অনায়াসেই স্কুলে যেতে পারছে মেয়েরা। ফলে হাসি ফুটছে মেয়েদের মুখে, হাসি ফুটছে অভিভাবকদের মুখেও। বাংলার গ্রামে গ্রামে অভিভাবকদের দাবি, দেশের প্রয়োজন, দিদির মতো একজন। তৃণমূলের নেতামন্ত্রীরা ইতিমধ্যেই নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে ছবিগুলি শেয়ার করেছেন।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে