৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নিজেদের দাবিতে অনড় আন্দোলনরত চিকিৎসকরা। ফের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন এনআরএসে আন্দোলনরত চিকিৎসকরা। তাঁদের দাবি, স্রেফ নিঃশর্ত ক্ষমাই নয়, এসএসকেএম হাসপাতালে তিনি যে মন্তব্য করেছেন, তা প্রত্যাহার করতে হবে মুখ্যমন্ত্রীকে। দেখতে যেতে হবে আহত ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিবহ মুখোপাধ্যায়কে। তাঁদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কোনওমতেই যে পরিস্থিতি বদলাবে না, ফের তা বুঝিয়ে দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

[আরও পড়ুন:  ‘বাংলায় থাকতে হলে, বাংলায় কথা বলুন’, দলীয় কর্মিসভায় মন্তব্য মমতার]

এনআরএস কাণ্ডের আঁচ লেগেছে গোটা রাজ্যের চিকিৎসা ব্যবস্থায়। সরকারি হাসপাতালে কার্যত বন্ধ পরিষেবা। এমত অবস্থায় বৃহস্পতিবার এসএসকেএমে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রোগীর পরিবারের সঙ্গে কথা বললেও আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কোনও কথা বলেননি তিনি। বরং চিকিৎসকদের কথা না শুনেই কার্যত জোর করে বিক্ষোভ উঠিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এতেই আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। একে একে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের হাসপাতালের চিকিৎসকরা ইস্তফা দিতে শুরু করেছেন। ইস্তফা দেওয়ার কারণ হিসাবে নিরাপত্তার অভাবকেই দায়ি করেছেন তাঁরা। প্রথম থেকেই চিকিৎসকদের বক্তব্য, তাঁরা পরিষেবা দিতে প্রস্তুত৷ কিন্তু, তার আগে সরকারকে তাঁদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে৷ প্রশাসনের উদ্দেশে তাঁদের প্রশ্ন, ‘‘যদি আমরাই না বাঁচি, তাহলে মানুষের প্রাণ বাঁচাব কীভাবে?’’ অভিযোগ, তাঁদের কথা শুনতে রাজিই নন মুখ্যমন্ত্রী। 

[আরও পড়ুন: রাজনৈতিক খুন নাকি ব্যক্তিগত শত্রুতার শিকার, হাসনাবাদের ঘটনার বাড়ছে ধোঁয়াশা]

এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার বিকেলে আরও একবার নিজেদের দাবি স্পষ্ট করেন আন্দোলনকারীরা। বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর এদিন তাঁরা দাবি করেন, এসএসকেএম হাসপাতালে যে মন্তব্য করেছেন,তা প্রত্যাহার করতে হবে  মুখ্যমন্ত্রীকে। আলোচনা করতে হবে তাঁদের সঙ্গে। সেইসঙ্গে দেখতে যেতে হবে আক্রান্ত পরিবহকে। দাবি মানা হলে মুহূর্তে নিজেদের কাজে ফিরে যাবেন চিকিৎসকরা। নিজেদের দাবি ও জুনিয়র চিকিৎসককে আক্রমণের ঘটনায় শুক্রবার বিকেলে কলকাতায় একটি মিছিলের আয়োজন করেন আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা। পাশাপাশি, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তেও মিছিলের আয়োজন করা হয়েছে চিকিৎসকদের তরফে।  

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং