১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

ঝড়ে পড়া বটগাছের আঠায় থমকে যাচ্ছে যন্ত্র, সমস্যায় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 21, 2018 11:26 am|    Updated: November 1, 2018 3:16 pm

Uprooted banyan tress major worry for DMG in Kolkata

অর্ণব আইচ: কথায় বলে, ‘পিরিতি কাঁঠালের আঠা, লাগলে পরে ছাড়ে না।’তবে পিরিত বা কাঁঠালের আঠার সঙ্গে কলকাতা পুলিশের কোনও সম্পর্ক নেই। পুলিশের সমস্যা বটগাছের আঠা নিয়ে। কারণ, এই আঠা একবার লেগে গেলে আর ছাড়ছে না। আর বটের আঠার সঙ্গেই রীতিমতো লড়াই করতে হচ্ছে কলকাতা পুলিশের ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট গ্রুপের (ডিএমজি) কর্মীদের। বিশেষ করে গত মঙ্গলবার ঝড়ের পর শহরের কয়েকটি জায়গায় এই সমস্যায় পড়তে হয়েছিল ডিএমজিকে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণত বটগাছের গোড়া বা মূল অন্যান্য গাছের তুলনায় বেশ শক্তই হয়। অন্য গাছের চেয়ে বেশি মাটি কামড়ে পড়ে থাকার ক্ষমতা রাখে বটগাছ। সেই কারণে ঝড়ে বটগাছ কম পড়ে। যদিও কলকাতায় বড় ঝড় হলে কিছু সংখ্যক বটগাছ পড়েই। আবার পুরো গাছ উপড়ে না পড়লেও অনেক সময় বটগাছের ডাল ভেঙে পড়ে রাস্তা বা ফুটপাতের উপর। এর পরই সমস্যার মুখে পড়ে ডিএমজি।

[দেশের প্রথম টেস্ট টিউব বেবি দুর্গাকে অনন্য সম্মান কলকাতার]

লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে, পড়ে যাওয়া গাছ কাটার জন্য এখন ডিএমজি-র হাতে রয়েছে অত্যাধুনিক যন্ত্র ‘চেন শ’। জার্মানিতে তৈরি এই ‘চেন করাত’টি চলে পেট্রল ইঞ্জিনে। করাতে চেন থাকার ফলে গাছ কাটারও সুবিধা হয়। এরকম প্রায় ৩৫টি করাত রয়েছে কলকাতা পুলিশের ডিএমজির হাতে। কিন্তু বটগাছ কাটতে গেলেই জব্দ ‘চেন শ’। পুলিশকর্মীদেরই অভিযোগ, করাত গাছ কাটতে শুরু করতেই কাণ্ড থেকে বের হতে শুরু করে আঠা বা ‘ল্যাটেক্স’। সেই আঠা ধীরে ধীরে করাতের চেনে জড়াতে শুরু করে। কিছুক্ষণের মধ্যেই শক্ত হতে শুরু করে ওই আঠা। তার পরই শুরু হয় সমস্যা। আঠার দাপটে করাতের চেন আটকে যায়। সেই আঠা ছাড়াতে গিয়ে তা হাতে লেগে যায় পুলিশকর্মীদের। আপৎকালীন পরিস্থিতিতে হাত পরিষ্কার করা সহজ নয়। তার উপর মেশিন চালু রাখতে গেলে প্রথমেই যন্ত্রটির চেন থেকে সরাতে হয় বটের আঠা। কারণ, ওই আঠা না সরালে ফের মেশিন চালু করা প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। সেই আঠা পরিষ্কার করতেও বেশ সময় লাগে।

পুলিশ জানিয়েছে, বটগাছের ডাল কাটতে গেলে ডিএমজি-র টিম তাই ঘটনাস্থলে একাধিক চেন করাত যন্ত্র নিয়ে যায়। কিন্তু একটু বড় বিপর্যয় ঘটলেই একটি টিমের পক্ষে এক জায়গায় বেশিক্ষণ ধরে কাজ করা সম্ভব হয় না। ডিএমজি-র কন্ট্রোল রুমের নির্দেশে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় গিয়ে গাছ কেটে রাস্তা পরিষ্কার করতে হয়। তাই একাধিক যন্ত্র নিয়ে গেলেও পড়ে যাওয়া বটগাছ বা তার ডাল কাটতে গিয়ে সমস্যায় পড়ে ডিএমজি। জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার কালবৈশাখীর পর ডিএমজি-র ১২টি টিম সারারাত ধরে শহরের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে গাছের ডাল কেটে রাস্তা পরিষ্কার করে। কিন্তু বটগাছের সামনে পড়তেই ধীর হয়ে যায় কাজের গতি। তাই বটগাছের আঠা আয়ত্তে আনতে অন্য কোনও পদ্ধতি প্রয়োগ করা যায় কি না, তা নিয়েও ভাবা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

[চড়া দামে বাংলাদেশিদের বেআইনি সিমকার্ড বিক্রি, নিউ মার্কেটে ধৃত ব্যবসায়ী]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে