BREAKING NEWS

২৬ শ্রাবণ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১১ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

রাজ্যের ব্র্যান্ডিংয়ের হাতিয়ার করোনা! ‘বাংলা আমার মা’ মাস্ক বানাচ্ছে সরকার

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: July 10, 2020 5:17 pm|    Updated: July 10, 2020 5:32 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যের ব্র্যান্ডিংয়ের হাতিয়ার এবার করোনা (Corona Virus)। একদিকে করোনা প্রতিরোধ অন্যদিকে প্রচার, দুইয়ের স্বার্থে ‘বাংলা আমার মা’ মাস্ক তৈরি শুরু করল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) সরকার। জানা গিয়েছে, মাস্কের নিচে লেখা থাকবে ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার’।

চলতি বছরের শুরু থেকেই আতঙ্ক ছড়াতে শুরু করেছিল নোভেল করোনা ভাইরাস। সুরক্ষার খাতিরে তখনই অনেকে মুখ ঢেকেছিলেন মাস্কে। পরবর্তীতে দাপট বাড়তে থাকে করোনার। মাস্ক-স্যানিটাইজার চলে আসে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর তালিকায়। বর্তমানে ঘর থেকে বের হওয়ার ক্ষেত্রে আবশ্যক মাস্ক ব্যবহার। সেই কারণেই এবার মাস্ক রাজ্যের ব্র্যান্ডিংয়ে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ইতিমধ্যেই মাস্কের ক্যাচলাইন লিখে ফেলেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। জানা গিয়েছে, সরকারের উদ্যোগে সম্পূর্ণ ফেব্রিকের তৈরি এই ত্রিস্তরীয় মাস্কের উপর লেখা থাকবে ‘বাংলা আমার মা’। নীচে ছোট হরফে লেখা থাকবে ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার’। এই মাস্ক সরবরাহের দায়িত্ব পেয়েছে রাজ্য সরকারেরই সংস্থা ‘বিশ্ববাংলা মার্কেটিং কর্পোরেশন লিমিটেড’।

mask-mamata

[আরও পড়ুন: এক মেসেজেই পৌঁছে যাবে জরুরি সামগ্রী, কনটেনমেন্ট জোনের বাসিন্দাদের জন্য WhatsApp গ্রুপ পুলিশের]

সূত্রের খবর, রাজ্য সরকারের তরফে দুটি সাইজের প্রায় ৬ লক্ষ মাস্ক তৈরির বরাত দেওয়া হয়েছে। সেগুলির রং কী হবে ইতিমধ্যেই তা ঠিক করে দেওয়া হয়েছে নবান্নের তরফে। জানা গিয়েছে, রাজ্যের নেতা-মন্ত্রী ও সরকারি আধিকারিক, পুলিশ অফিসার ও কর্মীরা ছাড়াও সাধারণ মানুষদের হাতেও সরকারের তরফে এই মাস্ক তুলে দেওয়া হবে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে রাজ্যকে তোপ দেগেছেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু (Sayantan Basu)। বলেছেন, “এটা রাজনীতি। মাস্কের রাজনীতি।” প্রসঙ্গত, মাস্কে অনেক আগেই রাজনীতির রং লেগেছে। কখনও সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর মুখে দেখা গিয়েছে সাদা-নীল মাস্ক, উপরে বাংলার মানচিত্র। কখনও আবার দিলীপ ঘোষকে দেখা গিয়েছে গেরুয়া রংয়ের পতাকা চিহ্নিত মাস্ক ব্যবহার করতে!

[আরও পড়ুন: সংক্রমণ বাড়ছে ব্যাংক কর্মীদের, কনটেনমেন্ট জোনে পরিষেবা দেওয়া নিয়ে মুখ্যসচিবকে চিঠি সংগঠনের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement