BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দপ্তর, জেলায় জেলায় পাঠানো হল নির্দেশিকা

Published by: Bishakha Pal |    Posted: March 4, 2020 11:59 am|    Updated: March 12, 2020 1:05 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা থেকে বাঁচতে উদ্বিগ্ন রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর। এই মর্মে স্বাস্থ্য ভবন থেকে জারি হয়েছে একটি নির্দেশিকা। করোনা সন্দেহ হলেই বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজ্যের প্রতিটি হাসপাতালগুলিতে নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। এমনকী করোনা মোকাবিলার জেলা ও মহকুমা হাসপাতালগুলিকেও প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। তৈরি রাখতে বলা হয়েছে আইসোলেশন ওয়ার্ড।

ভারতে ইতিমধ্যেই থাবা বসিয়েছে নভেল করোনা ভাইরাস। গোটা দেশে প্রায় ২১ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত বলে খবর। যদিও আক্রান্তদের মধ্যে এ রাজ্যের কারওর নাম নেই। কিন্তু তার জন্য হাত গুটিয়ে বসে নেই স্বাস্থ্য দপ্তর। স্বাস্থ্য ভবনের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই একটি নির্দেশিকা জারি হয়েছে। করোনা আক্রমণ কীভাব প্রতিরোধ করা হবে, তা নিয়ে কলকাতা-সহ জেলার প্রতিটি হাসপাতালে সেটি পাঠানো হয়েছে। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের আইসোলেশন বিভাগের উপর ভরসা করে থাকতে চাইছে না রাজ্য। তাই কলকাতার পাঁচটি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল তো বটেই, রাজ্যের প্রতিটি জেলার সমস্ত হাসপাতালগুলিকে করোনা মোকাবিলায় সতর্ক ও প্রস্তুত থাকার নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের মোকাবিলায় কোনও রকম খামতি রাখতে চায় না সরকার। কোনও ভাবেই সংক্রমণ যাতে না ছড়ায়, তাই সবরকম প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। জেলার প্রতিটি হাসপাতালে জরুরি বিভাগ তৈরি রাখতে বলা হয়েছে। করোনা আক্রান্ত যদি কেউ হাসপাতালে ভরতি হয় তবে তাদের ব্যবহার্য জিনিসপত্র অবিলম্বে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে ফেলার কথাও বলা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি হাসপাতালে CCU প্রস্তুত রাখার কথাও বলেছে স্বাস্থ্য দপ্তর।

[ আরও পড়ুন: CAA-NRC’র ভয়, জাল পরিচয়পত্র নিয়ে ভারত ছাড়ছে অসংখ্য রোহিঙ্গা ]

হাসপাতালগুলির পাশাপাশি সাধারণ মানুষকেও সচেতন থাকার বার্তা দিয়েছে স্বাস্থ্য ভবন। করোনা থেকে বাঁচতে N95 মাস্ক ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এও বলা হয়েছে, ঘনঘন চোখে মুখে যেন হাত না দেওয়া হয়। এতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা বাড়ে। খাওয়ার আগে যেন অতি অবশ্যই অ্যালকোহল মিশ্রিত স্যানিটাইজা ব্যবহার করা উচিত। করোনা ভাইরাসের প্রথম উপসর্গ জ্বর। তারপর দেখা দেয় শুকনো কাশি। সপ্তাহ খানেকের মধ্যে শ্বাসকষ্ট শুরু হয় আক্রান্তের। এই সমস্ত উপসর্গ দেখা দিলে অবিলম্বে হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। বয়স্কদের ক্ষেত্রে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই বয়স্ক ব্যক্তিদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে করোনা মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্র। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন আজ মন্ত্রিসভার সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন। দিল্লির মেডিক্যাল অফিসারদের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি। ইতিমধ্যেই ২৬টি ওষুধ তৈরির উপকরণ রপ্তানি বন্ধ করেছে কেন্দ্র। করোনা ঠেকাতে যাতে ওষুধের আকাল না হয়, তাই আগেভাগেই এই ব্যবস্থা। এছাড়া কেন্দ্র ও রাজ্যের তরফে কন্ট্রোল রুম চালু করা হয়েছে। রাজ্যের হেল্পলাইন নম্বরটি হল +৯১১১২৩৯৭৮০৪৬। করোনা সংক্রান্ত যে কোনও তথ্য এই নম্বরে ফোন করে জানা যাবে। স্বাস্থ্য দপ্তরের ওয়েব সাইটেও (https://www.wbhealth.gov.in/contents/corona_virus) এই নিয়ে একটি সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে।

[ আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কে ত্রস্ত দেশ, রাজ্যে কড়া নজরদারিতে প্রায় ৩৫০ বিদেশফেরত ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement