BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা আবহে প্রত্যেক তৃণমূল কর্মীকে ১০টি করে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হবে, নির্দেশ অভিষেকের

Published by: Paramita Paul |    Posted: July 18, 2020 12:01 pm|    Updated: July 18, 2020 12:19 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা (Covid-19) পরিস্থিতিকে হাতিয়ার করেই জনসংযোগে জোর দিচ্ছে তৃণমূল। শনিবার যুবশক্তি কর্মসূচির অংশ হিসেবে ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন যুব তৃণমূলের সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjeee)। সেখান থেকেই নতুন জনসংযোগ কর্মসূচির কথা ঘোষণা করেন অভিষেক। একইসঙ্গে নাম না করে বিজেপিকেও একহাত নেন তিনি। ডায়মন্ড হারবারের সাংসদের কথায়, “কোনও অশুভ শক্তিকে বাংলার ঢুকতে দেব না। বাংলার মানুষ একজোট হয়ে যে কোনও অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করবে।”

২১ জুলাই আর মাত্র হতে গোনা কয়েকদিন বাকি। এবার করোনা পরিস্থিতিতে জনসভা বা মিছিল করা সম্ভব নয়। তাই দলনেত্রীর মমত বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে ভারচুয়াল সংযোগে ব্রতী হয়েছেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। নেওয়া হয়েছে একাধিক ভারচুয়াল কর্মসূচিও। তারই অংশ হিসেবে এদিন লাইভে এসে বক্তব্য রাখলেন অভিষেক। তিনি জানান, করোনা আবহেও স্বেচ্ছায় দলে যোগ দিয়েছেন কয়েক হাজার যুবক-যুবতী। তাঁরাই দলের আসল শক্তি। এরপরই দলের নতুন কর্মসূচির কথা ঘোষণা করেন তিনি।

[আরও পড়ুন : কলকাতাবাসীর জন্য সুখবর, মাঝেরহাট ব্রিজ চালু হবে পুজোর আগেই]

অভিষেক জানান, পাড়া প্রতিবেশীর দায়িত্ব নিতে হবে যুব সম্প্রদায়কেই। তাই করোনা পরিস্থিতিতে প্রত্যেক তৃণমূল কর্মীদের দশটি করে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হবে। তাঁদের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে খোঁজ খবর নিতে হবে। প্রয়োজনে বাজার করে দেওয়া, ওষুধ এনে দেওয়া, কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে সচেতন করতে হবে তাঁদের। এক-দুদিন নয়, আগামী কয়েক মাস তাঁদের দায়িত্ব নিতে হবে তৃণমূল কর্মীদের। যুব তৃণমূলের সভাপতির কথায়, “বহু মনীষী বাংলার মাটিতেই জন্মেছেন। তাঁরা যুব সম্প্রদায়কে দেশের দায়িত্ব নিতে বলেছেন। কারণ, তাঁরাই পারেন দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে। সেই কথায় অনুপ্রাণিত হয়েই যুবশক্তিকে আগিয়ে আসতে আহ্বান জানানো হচ্ছে। একজোট হয়ে লড়াই করলেই এই বিপদ কেটে যাবে।”

[আরও পড়ুন : মাধ্যমিকের গ্লানি ভুলিয়ে দিল উচ্চমাধ্যমিকের ফল, কৃতীদের ফুল-মিষ্টি পাঠিয়ে শুভেচ্ছা মমতার]

পাশাপাশি, নাম না করেই বিজেপিকে এক হাত নেন অভিষেক। তাঁর কথায়, “অনেক বিপদ কাটিয়ে উঠেছে বাংলা। কিন্তু কারোর কাছে মাথা নত করেনি। বরং বাংলা আজ যা ভেবেছে, কাল গোটা দেশ তাই ভেবেছে। এবারও তাই হবে। কোনও অশুভ শক্তিকে বাংলায় ঢুকতে দেব না।” তবে অভিষেকের নয়া কর্মসূচির কথা শুনে সমালোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে। কারণ, বিজেপি কয়েকদিন আগে একই ধরণের কর্মসূচির কথা ঘোষণা করেছিল। তৃণমূল কি তাহলে গেরুয়া শিবিরকেই অনুসরণ করছে, উঠছে প্রশ্ন।  

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement