২৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কখনও জেনে শুনে, আবার কখনও বেখেয়ালেই শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে মানুষ হাত দিয়ে থাকে৷ এটাই মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি৷ কিন্তু জানেন কি, দেহের সব অঙ্গে যখন-তখন হাত দেওয়া উচিত নয়? কারণ আপনার হাত থেকেই ছড়াতে পারে বিভিন্ন ধরনের রোগ৷ তাই এখনই সতর্ক হয়ে যান৷ জেনে নিন শরীর সুস্থ রাখতে দেহের কোথায় কোথায় হাত দেবেন না৷

১. কানের ছিদ্র 
খেয়ালে বা বেখেয়ালে কানের ছিদ্রে আঙুল দিয়ে থাকে অনেকেই৷ কান চুলকালে বা ময়লা পরিষ্কার করতে হাতের কাছে ‘ইয়ার বাড’ না থাকলে সাধারণত মানুষ হাতের আঙুলই ব্যবহার করে থাকেন৷ যা মোটেও নিরাপদ নয়৷ আসলে কানের ভিতর যে পাতলা পর্দা থাকে, আঙুলের চাপে তা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে৷ সেই কারণে চিকিৎসকরা কানের ছিদ্রে আঙুল ঢোকাতে নিষেধ করে থাকেন৷

ear

২. মুখ
মুখ ধোয়ার পর ক্রিম লাগানোর জন্য হাতের বিকল্প নেই৷ সেই সময় হাত পরিষ্কার থাকা অতি আবশ্যক৷ ধরুন মুখ ধোয়ার পর অন্য কোনও কাজ করলেন৷ এবার সেই হাতেই মুখে ক্রিম লাগালেন৷ সেক্ষেত্রে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে৷ তৈলাক্ত হাত যদি কপালে দেন তাহলে কপালের রোমকূপগুলো বন্ধ হয়ে যায়৷ এতে খারাপ প্রভাব পড়ে৷

face

৩. চোখ
কনট্যাক্ট লেন্স পরার সময় বা চোখ ধোওয়ার সময় চোখে হাত পড়েই যায়৷ এসব কাজের আগে অতি অবশ্যই হাত ধুয়ে নিন৷ বেখেয়ালেই অনেক সময় চোখের কোণে হাত চলে যায়৷ বা চোখে কিছু পড়েছে মনে হলে হাত দিয়ে চোখ কচলে ফেলেন অনেকেই৷ এরফলে অজান্তেই আপনার চোখে জীবাণু প্রবেশ করে চোখের ক্ষতি করতে পারে৷

eye

৪. মুখগহ্বর

টেনশনে, ব্যবস্তায় কিংবা অভ্যেসবশত অনেকেই দাঁত দিয়ে নখ কাটেন৷ বা মুখের মধ্যে আঙুল ভরে দেন৷ বিশেষ করে শিশুদের মধ্যে এই প্রবণতা খুব বেশি দেখা যায়৷ ব্রিটেনের একটি সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, তিনভাগের একভাগ জীবাণু আঙুলের মধ্যে দিয়েই শরীরে প্রবেশ করে৷ এবার নিজেই ভাবুন দাঁতে নখ কাটবেন, না শরীরকে সুস্থ রাখবেন৷

mouth

৫. নাকের ছিদ্র

২০০৬ সালে একটি গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, অন্যান্য রোগের তুলনায় মানুষ নাক, কান ও গলার ইনফেকশনেই বেশি আক্রান্ত হয়েছেন৷ যাঁদের নাকের ছিদ্রে আঙুল দেওয়ার কু-অভ্যেস আছে, তাঁরা স্টেফাইলোকক্কাস অরিয়াস ব্যাকটেরিয়া জীবাণু দেহে বহন করেন৷

nose

৬. নখের নিচের ত্বক
বেড়ে ওঠা নখের নিচ ব্যাকটেরিয়ার আঁতুড়ঘর৷ তাই নিয়মিত নখ কাটুন৷ আর যদি নখ রাখার ইচ্ছা থাকে, তাহলে অবশ্যই হাত ও পায়ের নখ পরিষ্কার রাখুন৷ বাড়িতেও বিভিন্ন ঘরোয়া উপায়ে নখের যত্ন নেওয়া যায়৷ বুঝে সুঝে শরীরের অঙ্গ স্পর্শ করুন৷ কারণ স্বাস্থ্যই সম্পদ৷

nail

৭.নিতম্ব
অকারণে নিতম্বে হাত দেবেন না৷ শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এমন অভ্যাস অনেকেরই থাকে৷ ভুল করেও এমনটা করলে কিন্তু শরীরে রোগ জীবাণু প্রবেশ করতে বেশি সময় লাগবে না৷ হার্বারভিউ মেডিক্যাল সেন্টারের এক চিকিৎসক জানাচ্ছেন, নিতম্বে নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়া থাকে, যা হাতের মাধ্যমে দেহের বাকি অংশে ছড়িয়ে যেতে পারে৷ তাই নিতম্ব স্পর্শ করলে অতি অবশ্যই ভাল করে হাত ধুয়ে নিন৷

bum

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং