BREAKING NEWS

২৮ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

সারাদিন স্মার্টফোনে নজর, ‘হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস’-এ আক্রান্ত নন তো?

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: February 5, 2020 6:01 pm|    Updated: February 5, 2020 6:01 pm

An Images

ক্রমাগত চ‌্যাটের সঙ্গে সঙ্গে শরীরে বাসা বাঁধছে রোগ। বুড়ো আঙুল দিয়ে যত বেশি কথার প্রকাশ তত সম্ভাবনা বাড়ে অসুখে আক্রান্ত হওয়ার। টানা টেক্সটিংয়ে হাতের কবজি থেকে বুড়ো আঙুল জর্জরিত হতে পারে ব‌্যথায়। আপনিও আক্রান্ত হতে পারেন হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিসে। কিন্তু কী এই রোগ? চেনালেন ফিজিক‌্যাল অ‌্যান্ড রিহ‌্যাবিলিটেশন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. ক্ষেত্রমাধব দাশ। শুনলেন জিনিয়া সরকার

হোয়াটসঅ‌্যাপ সারাক্ষণ টাচে! আর সেই সুবাদেই দীর্ঘসময় ফোনে মুখ গুঁজে টাইপ করাই অভ্যেসে পরিণত হয়েছে। ট্রেন-বাস যে কোনও জায়গায় এখন এটাই কথোপকথনের মাধ‌্যম। ডিজিটালি স্মার্ট দুনিয়ায় এই অভ‌্যাসে আসক্ত আট থেকে আশি। আর এই হোয়াটসঅ‌্যাপ, ফেসবুক মে‌সেঞ্জার কেন্দ্রিক জীবনের কারণেই গজিয়ে উঠছে নতুন অসুখ। যার নাম হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস।

কী এই অসুখ?

আগে অন‌্য নামে এই রোগের কথা জানা থাকলেও, হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস নামে অসুখটি প্রথম প্রকাশ পায় বিশ্ববন্দিত জার্নাল ‘দ‌্যা ল‌্যান্সেন্ট’-এ। এক ৩৪ বছর বয়সি অন্তঃসত্ত্বা মহিলার হাতের কবজিতে আচমকা অত‌্যধিক ব‌্যথা শুরু হয়। তারপর চিকিৎসকের কাছে গেলে দীর্ঘসময় মোবাইলে মেসেজ টাইপিং-এর কারণেই এই পরিণতি বলে জানান তিনি। তখন চিকিৎসক রোগ নির্ণয় করে বলেন যে, টানা ভারী মোবাইল ফোন ধরে টেক্সট করার অভ‌্যাস থেকেই এই অসুখ। যার নামকরণ করা হয়েছে হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস। চিকিৎসকদের কথায়,
একই কাজ বারবার করা বা দীর্ঘসময় ধরে হোয়াটসঅ‌্যাপে টেক্সট করায় অনেকসময় হাতের বুড়ো আঙুল, কবজিতে খুব ব‌্যথা হয়। হাতের পেশিকে দুর্বল করে দেয়। অতিরিক্ত যাঁরা টেক্সট করেন মোবাইলে তাঁরা কখনও না কখনও এই অসুখে আক্রান্ত হতেই পারেন। তাঁর কথায়, বর্তমানে এই হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস মহামারীর আকার নিচ্ছে। সব বয়সিদের মধ্যেই এই রোগ ধরা পরছে। আগে শুধুমাত্র টিনএজেরদের মধ্যেই এই রোগের প্রবণতা দেখা গেলেও এখন তা পরিধি ছাড়িয়ে সব বয়সের গন্ডিতে ঢুকে পড়েছে।

এই রোগের উপসর্গ কী?

১. কবজির বাইরের দিক বা বুড়ো আঙুলের দিক ব‌্যথা কিংবা আড়ষ্টতা
২. বুড়ো আঙুলের ভিতরের দিকে ব‌্যথা বা ফুলে ওঠা
৩. হাত দিয়ে কিছু ধরতে গেলে নানা সমস‌্যা
৪. বুড়ো আঙুলে জ্বালা জ্বালা ভাব, সঙ্গে ব‌্যথা
৫. এই ব‌্যথা দু’হাতের বুড়ো আঙুলেই হতে পারে, কারণ অনেকেই বড় স্মার্টফোন দু’হাতে ধরে মেসেজ টাইপ করেন।

একজন কতক্ষণ ফোন ব‌্যবহার করছেন ও কীভাবে ফোনটি ধরে ব‌্যবহার করছেন বা টাইপ করছেন সেটার উপর নির্ভর করে রোগের সম্ভাবনা। কারণ, হাতের বুড়ো আঙুলের উপর অযাচিত চাপ থেকেই কিন্তু এই অসুখ হয়। যদিও বুড়ো আঙুলের পেশি অত‌্যন্ত শক্তিশালী ও মজবুত। অনেক ভারী জিনিস তুলে ফেলার ক্ষমতা থাকে। সাধারণত পেনে লেখার সময় বা কিবোর্ডে টাইপ করার সময় এই সমস‌্যা হয় না। কারণ, এইভাবে কাজ করতে বুড়ো আঙুল তৈরি। কিন্তু মোবাইলে দীর্ঘ সময় টাইপ করার জন‌্য বুড়ো আঙুল তৈরি নয়। এটা এই আঙুলটির বিপরীতধর্মী কাজ। বিশেষ করে স্মার্টফোন ব‌া ট‌্যাবের স্ক্রিন বড় হয়। সেগুলো ধরে টানা টাইপ করলে বুড়ো আঙুল, হাত ও কবজিতে ব‌্যথা হয়। তাই যতটুকু প্রয়োজন তার বাইরে টানা মোবাইলে টাইপিং অত‌্যন্ত বিপজ্জনক হতে পারে। দুর্বল হতে শুরু করে বুড়ো আঙুলের পেশি। শিথিল হয়ে পরে হাত ও কবজি। তাই মোবাইল ব‌্যবহারকারীর হাতে বা বুড়ো আঙুলের কাছে অল্প ব‌্যথা শুরু হলে সাবধান হতে হবে। হঠাৎ করে সমস‌্যা প্রকাশ পেতে পারে অথবা কারও ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে ব‌্যথা প্রকাশ পায়। অবহেলায় বিকল বুড়ো আঙুল সারাদিনের যাবতীয় কাজের ক্ষেত্রে মাল্টি টাস্কার এই আঙুলটি ছাড়া অনেক কাজই করা অসম্ভব। কাজেই হোয়াটসঅ‌্যাপাইটিস হলে অনেক ক্ষেত্রেই বাধা দেখা দেয়। কাজ করতে অসুবিধা হয়। এই সমস‌্যা বাড়তে থাকলে বা শুরুতেই সচেতন না হলে ধীরে ধীরে আর্থ্রাইটিসের সমস‌্যাও দেখা দিতে পারে।

চিকিৎসার পদ্ধতি

যাদের হাতে এই ধরনের ব‌্যথা প্রকাশ পেয়েছে তাঁদের শুরুতেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজনে ব‌্যথার তীব্রতা অনুযায়ী ব‌্যথার ওষুধ খেতে হবে। ঠান্ডা সেঁক দিলে উপকার। ক্রনিক সমস‌্যায় লেজার বা আল্ট্রাসোনিক থেরাপি করা যেতে পারে। অনেকসময় পেশিতন্তুর আবরণে ইনজেকশন দেওয়া হয়। খুব বাড়াবাড়ি হলে অপারেশন করার প্রয়োজন হতে পারে।

এই রোগ থেকে বাঁচতে কী করবেন?

১. স্মার্ট ফোনের সঠিক ব‌্যবহার জানতে হবে। অল্প বা প্রয়োজনে টেক্সট করা যেতে পারে তবে অতিরিক্ত সবকিছুই যেমন ক্ষতিকর তেমনই হোয়াটসঅ‌্যাপ করলেও ক্ষতি।
২. খুব দরকার হলে ইয়ার ফোন ব‌্যবহার করে ভয়েজ মেসেজ পাঠান বা ফোনে কথা বলুন।
৩. ট‌্যাব বা মোবাইলে যাঁরা বেশি টেক্সট করেন তাঁদের নিয়মিত হাত ও কবজির ব‌্যায়াম করতে হবে। হাত ও কবজিকে বিভিন্ন দিকে ঘুরিয়ে ব‌্যায়াম করুন।
৪. হাতের গ্রিপ স্ট্রেন্দেনিং এক্সারসাইজ করলে উপকার মেলে। যেমন-হাতে মেডিসিন বল ধরে মুঠো করে চাপা ইত‌্যাদি।
৫. টেক্সটিং করার সময় কখনও কখনও ফোন হাতে না ধরে কোনও টেবিলের উপর রেখে অন‌্য আঙুল বা তর্জনী দিয়ে টাইপ করুন। এতে বুড়ো আঙুলের উপর চাপ কম পড়বে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement