৩ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৭ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৭ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সময়টা বসন্তকাল হলেও, বাজারে এখনও ব্রকলি (সবুজ ফুলকপি) আর কড়াইশুঁটি বর্তমান। আর এই দুটির রংই সবুজ। তারমধ্যে একটি অবশ্য সবজি, অন্যটি শস্যদানা। যাঁরা অতিরিক্ত মেদের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের জন্য এই দুটি খাদ্য অব্যর্থ। দুই সবুজ মিলে আপনাকে দিব্যি ঝকঝকে এবং ছিপছিপে বানিয়ে তুলবে।

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষকরা বলছেন, ব্রকলি ও কড়াইশুঁটিতে ডায়েটারি ফাইবার আছে। এই ডায়েটারি ফাইবার স্থূলতা বা মেদ কমাতে পারে। এ ছাড়া মেটাবোলিক সিনড্রোম এবং অন্ত্রের প্রতিকূল অবস্থার পরিবর্তন করে অন্ত্রে উপকারি ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টি করে এগুলি।

গবেষকরা বলছেন, বর্তমানে আমাদের রোজকার জীবনের অন্যতম সমস্যা হল মেদ। বিশ্বজুড়ে মেদবহুল মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। মেদের কারণে আবার শরীরে তৈরি হচ্ছে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হরমোনের সমস্যা। তাই এই ধরনের সমস্যা এড়িয়ে যেতে নিয়মিত ব্যায়ামের পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর খাবারের কথাও উঠে আসে। গবেষণা বলছে, প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ব্রকলি (সবুজ ফুলকপি) আর কড়াইশুঁটি রাখলে তা আপনার বাড়তি মেদ ঝরিয়ে ফেলে আপনাকে সুস্থ রাখবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক কড়াইশুঁটি এবং ব্রকলির মধ্যে কী এমন গুণ রয়েছে যা আপনাকে ঝরঝরে রাখবে।

কড়াইশুঁটির ৫ গুণ

১. কড়াইশুঁটিতে অধিক পরিমাণে ফাইবার থাকায় এটি পেট পরিষ্কার রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে।

২. কড়াইশুঁটিতে থাকা নিয়াসিন রক্তে প্রবাহিত ক্ষতিকর কোলেস্টেরল দূর করে উপকারি কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। এটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

৩. ডায়াবেটিক রোগীরাও নিশ্চিন্তে কড়াইশুঁটি খেতে পারেন। এটি ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে।

৪. কড়াইশুঁটি হাড় শক্ত করে। এতে আছে ফলিক অ্যাসিড, যা প্রসূতিদের জন্য ভীষণ দরকারি।

৫. এছাড়া, কড়াইশুঁটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় এবং দৃষ্টিশক্তিও বাড়াতে সাহায্য করে।

[গরম দুধ পানেই তোফা ঘুম! কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?]

ব্রকলির ৫ গুণ

১. লেবুর দ্বিগুণ ও আলুর সাতগুণ ভিটামিন ‘সি’ থাকে ব্রকলিতে। এছাড়া, এতে  চর্বি ও ক্যালরি কম, কিন্তু ফাইবার অনেক বেশি। তাই বেশি করে ব্রকলি খেলে শরীরের কোনও ক্ষতি হয় না।

২. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ব্রকলি। সেলিনিয়াম দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে। এছাড়া, এতে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’ থাকায় ত্বকে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হতে বাধা দেয়। এমনকি, সর্দি-কাশিও ঠেকাতে পারে ব্রকলি।

৪. আলসার ও গ্যাসট্রাইটিস প্রতিরোধে দারুণ কার্যকর ব্রকলি। বাঁধাকপির চেয়েও এতে অনেক বেশি ভিটামিন ‘ইউ’ (মেথিওনাইনের উপজাত) থাকে। ফলে এটি গ্যাসট্রিক, অ্যালসার ও ক্যানসার সহজেই প্রতিরোধ করে।

৫. এটি ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ বলে ত্বক সুন্দর হয় এবং এটি ফাইবারযুক্ত হওয়ায় কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করতেও এটি উপকারি।

[বাড়তি মেদ ঝরাতে টমেটোর জুড়ি মেলা ভার, দাবি বিশেষজ্ঞদের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং