BREAKING NEWS

২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

এটিএম থেকে হাতে এসেছে নকল নোট, কী করবেন?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: September 2, 2017 11:33 am|    Updated: October 1, 2019 1:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নিত্যনতুন নোটের হাজিরা বাজারে৷ হরেক বৈশিষ্ট৷ নানারকম নিরাপত্তা বলয়৷ কিন্তু বজ্র আঁটুনির মধ্যে ফস্কা গেরোও আছে৷ আর তাই এর ফাঁকফোকর গলেই দেদার বেরোচ্ছে নকল নোট৷ কখনও তা এটিএম কাউন্টার থেকে৷ হাতে নোট নিয়ে অনেকেরই নকল বলে মনে হয়৷ পরে ভাল করে পরীক্ষা করে তা সত্যি বলেও প্রমাণিত হয়৷ কিন্তু এসব ক্ষেত্রে ঠিক করণীয়?

কেক কেটে অভিনব ইদ উদযাপনে নতুন বার্তা ]

ব্যাঙ্কে যদি নকল নোট লেনদেন হয়, তবে হাতেনাতে ধরা পড়ার সম্ভাবনা আছে৷ যদি অফিসাররা ধরতে পারেন যে কেউ নকল নোট জমা দিতে এসেছেন, তবে তা কখনওই অ্যাকাউন্ট পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছবে না৷ সেই নোট গ্রাহককে ফেরতও দেওয়া হবে না৷ বরং নকল নোট বাজেয়াপ্ত করে ক্যাশিয়ার ও গ্রাহককে দিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হবে৷ আরবিআই-এর নিয়ম এমনই৷

[ ডোকলাম বিবাদে বড় ধাক্কা চিনের, ভারতের পাশেই রাশিয়া ]

কিন্তু এটিএম-এ যদি নকল নোট হাতে আসে, তখন কী করা যায়? কেননা সেই মুহূর্তে কেউ এর সাক্ষী থাকে না৷ কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক জানাচ্ছে, এটিএম-এ নকল নোট রুখতে বিভিন্ন ধাপে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়৷ তাই নকল নোট না আসাই উচিত৷ তাও যদি আসে তবে বিপাকে পড়তে হয় গ্রাহককে৷ কেননা ভিনদেশে এটিএম রিসিপ্টে কারেন্সির নম্বর উল্লেখ থাকে৷ কিন্তু ভারতে শুধু কত টাকা তোলা হচ্ছে তার অ্যামাউন্টই উল্লেখ থাকে৷ এই পরিস্থিতিতে হাতে নকল নোট এলে একজন গ্রাহক কী করবেন? বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, এরকম সন্দেহ হলে প্রথমেই নোটটি সিসিটিভি-র সামনে ধরা উচিত৷ যাতে স্পষ্ট বোঝা যায় যে নোটটি এটিএম-থেকেই পাওয়া গিয়েছে৷ সঙ্গে সঙ্গে এটিএম-এ যে নিরাপত্তারক্ষী আছেন তাঁর কাছে নোটের ডিটেলস দিয়ে অভিযোগ দায়ের করে রাখা শ্রেয়৷ এতে নোটটি এটিএম থেকে কোন সময়ে বেরিয়েছে, তা স্পষ্ট হবে৷ সেই সঙ্গে যে ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট আছে সেখানেও সঙ্গে সঙ্গে অভিযোগ জানিয়ে রাখতে হবে৷ প্রয়োজন হলে রিজার্ভ ব্যাঙ্কেও৷ পাশাপাশি পুলিশের কাছেও অভিযোগ দায়ের করতে হবে৷ তদন্ত চলাকালীন এই সিসিটিভি ফুটেজই প্রমাণ করবে নোটটি এটিএম থেকে বেরিয়েছে৷ প্রমাণ দেবে নিরাপত্তারক্ষীর কাছে জমা হওয়া অভিযোগও৷ একই সঙ্গে ব্যাঙ্কও জানাবে যে গ্রাহক, এই অসুবিধার কথা জানিয়েছেন৷ এই প্রমাণগুলিই গ্রাহকের টাকা ফিরে পাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে৷ সাধারণ কোনও বড় অ্যামাউন্টের টাকার মধ্যে নকল নোট চলে এলে মাথায় হাত পড়ে গ্রাহকের৷ এ নিয়ে আতান্তরে পড়তে হয়৷ তাই সন্দেহ হলে আগাম সাবধানতা অবলম্বন করাই বাঞ্ছনীয়৷

জন্ম থেকে নেই চোখ-নাক, ৯ বছর ধরে দিব্যি বেঁচে এই শিশু! ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement