BREAKING NEWS

১৬ ফাল্গুন  ১৪২৬  শনিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

স্মার্টফোনে ব্যাটারি সেভার অ্যাপ ডাউনলোড করেছেন? সর্বনাশ!

Published by: Sangbad Pratidin |    Posted: September 10, 2017 3:17 pm|    Updated: July 11, 2018 4:19 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্মার্টফোনের ব্যাটারি বাঁচাতে আমরা অনেকেই স্মার্টফোনে নানারকম থার্ড পার্টি অ্যাপ ডাউনলোড করি। কিন্তু ভুলেও ভাবি না, এই সব অ্যাপ আমাদের জীবনে কী চূড়ান্ত সর্বনাশ ডেকে আনতে পারে!

সম্প্রতি, ভারতে হানা দিয়েছে Xafecopy Trojan নামের একটি ম্যালওয়ার। সাইবার সিকিউরিটি ফার্ম ক্যাসপারস্কি জানাচ্ছে, ভারতের অন্তত ৪০ শতাংশ স্মার্টফোন ইউজারের ফোনে ঘাপটি মেরে লুকিয়ে রয়েছে এই মারাত্মক ম্যালওয়ার। ‘ব্যাটারি মাস্টার’-এর মতো জনপ্রিয় ব্যাটারি সেভিং অ্যাপের ছদ্মবেশে এই ঘাতক ম্যালওয়ার স্মার্টফোনে লুকিয়ে থাকে। ফোনও দিব্যি চলে, কোনও গড়বড় করে না। কিন্তু একেবারে সাধারণ আর পাঁচটা অ্যাপের মতো দেখতে এই ম্যালওয়ারই আপনার ফোন থেকে যাবতীয় পাসওয়ার্ড চুরি করে লোপাট করে দিতে পারে ব্যাঙ্কের টাকা।

[আচমকা চাকরি যাওয়ার ভয়! বাঁচতে কোন কোন বিষয়ে খেয়াল রাখবেন?]

ক্যাসপারস্কি সংস্থা সূত্রে জানানো হয়েছে, ‘আমাদের ল্যাব বিশেষজ্ঞরা ভারতীয়দের স্মার্টফোনে এমন এক বিপজ্জনক ভাইরাস খুঁজে পেয়েছেন, যার মাধ্যমে ইউজারের অজান্তেই তাঁর মোবাইল থেকে টাকা, পাসওয়ার্ড বা দরকারি নথি চুরি যেতে পারে।’ কীভাবে হানা দেয় এই ভাইরাস? কাজই বা করে কীভাবে? ‘ব্যাটারি মাস্টার’-এর মতো অ্যাপের ছদ্মবেশে এই ভাইরাল কারও মোবাইলে ঢুকে পড়লে ‘ওয়্যারলেস অ্যাপ্লিকেশন প্রটোকল’ বা WAP বিলিং ব্যবহার করে এমন কতগুলি ওয়েব পেজ খুলে ফেলে। তারপর প্রায় নিঃশব্দে এমন কয়েকটি পরিষেবা ব্যবহার করে যেগুলির জন্য টাকা মেটাতে হয় ওই মোবাইল ইউজারকেই। অথচ, আক্রান্ত মোবাইলটির ইউজার জানতেও পারেন না আসলে কে ওই পরিষেবাগুলি ব্যবহার করছে।

সবচেয়ে আতঙ্কের কথা হল, এই অ্যাপ আপনার ফোনের ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের নম্বরও ‘ক্লোন’ করে রাখতে পারে। বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইটে এই ধরনের ভাইরাস রুখতে ‘ক্যাপচা’ ব্যবহার করা হয়। জটিল কতগুলি অক্ষর ও নম্বরের কম্বিনেশন ব্যবহার করে ম্যালওয়ার রোখার চেষ্টা করা হয়। ক্লিন্তু এই মারাত্মক অ্যাপ সেই সিস্টেমকেও বোকা বানাতে সিদ্ধহস্ত। শুধু ভারত নয়, মাত্র এক মাসের ব্যবধানে ৪৭টি দেশের ৪৮০০ জনের মোবাইলে এই Xafecopy Trojan ম্যালওয়ার হানা দিয়েছে। অ্যান্টি-ভাইরাস নির্মাণকারী সংস্থার কর্তারা জানাচ্ছেন, এখনও পর্যন্ত অর্ধেক ম্যালওয়ারকেও রুখে দেওয়া যায়নি। একদল দুষ্কৃতী ও হ্যাকাররা ইচ্ছাকৃতভাবে এই ম্যালওয়ার ছড়িয়ে দিচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

[যৌনতায় উৎসাহ হারাচ্ছেন সঙ্গী! কীভাবে বুঝবেন?]

An Images
An Images
An Images An Images