Advertisement
Advertisement
Intimacy

একসঙ্গে স্নান, সিক্ত শরীরেই মাতুন চরম সঙ্গমে, জানুন সেরা চার পজিশনের হদিশ

চতুর্থ পজিশনটাই সেরা।

Know some best intimacy positions during shower
Published by: Biswadip Dey
  • Posted:June 16, 2024 7:56 pm
  • Updated:June 16, 2024 7:58 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্নানের সঙ্গে যৌনতার জল ছপছপ একটা সম্পর্ক রয়েছে। দুজনে একসঙ্গে শাওয়ারের তলায় দাঁড়িয়ে একে অপরের শরীরের স্পর্শে মাতোয়ারা হয়ে ওঠায় রয়েছে চরম সুখের এক অন্যতর উদযাপন। তবে মাথায় রাখতে হবে, বাথরুম জায়গাটা বেডরুম বা অন্য যে কোনও ঘরের থেকে আকারে খানিকটা ছোটই। তার উপর পিচ্ছিল মেঝেও ডেকে আনতে পারে বিপদ। এসবকে হেলায় সরিয়ে রেখে দুজনে মিলে আনন্দঝরনায় মাততে তাই চাই সঠিক পজিশন। রইল এমনই সেরা কিছু পজিশনের হদিশ।

ব্যালে: নাম থেকেই পরিষ্কার কেমন হতে পারে এই পজিশন। ঠিক যেন নগ্ন শরীরে ব্যালে নাচ। সোজা কথায় এটা একটা এমন পজিশন যেখানে দুজনই দাঁড়িয়ে থাকেন। সেটা শাওয়ারের তলাতেই হোক বা বাথটাবে। সঙ্গিনী তাঁর একটি পা তুলে ধরবেন সঙ্গীর কোমরে। ফলে সঙ্গীর পক্ষে অনায়াসেই সঙ্গমের জন্য লিঙ্গ প্রবেশ করা সম্ভব হবে। তিনি যদি একটি হাত দিয়ে সঙ্গিনীর তুলে রাখা পা ধরে রাখেন তাহলে আরও সহজেই একে অপরের মধ্যে প্রবেশ করা সম্ভব হবে।

Advertisement

রিভার্স টাব সিটার: এই পজিশনের জন্য বাথটাব থাকা দরকার। সঙ্গী বসবেন টাবের একেবারে ধারে। টাব না থাকলে শাওয়ার স্টুলের উপরও বসতে পারেন তিনি। সঙ্গিনী এসে বসবেন তাঁর কোলে। অর্থাৎ দুজনে মুখোমুখি মেতে উঠতে পারবেন সঙ্গমে। আর সেই সময় শরীর ধুয়ে দেবে শাওয়ারের বারিধারা।

Advertisement

[আরও পড়ুন: কোন ভুলে সঙ্গমে নেই জোর! লিঙ্গই দেবে গোপন খবর]

সিটেড ওরাল: নাম থেকেই পরিষ্কার এটা হল ওরাল সেক্স। এখানেও একই ভাবে বাথটাব অথবা শাওয়ার স্টুলে বসতে হবে। তবে সঙ্গী নয়, সঙ্গিনী। তিনি তাঁর হাঁটু দুটি প্রসারিত করে রাখবেন। পুরুষ সঙ্গী এসে মত্ত হবেন লেহনে। কিছুক্ষণ পর আবার উলটোটাও করা যাবে। শাওয়ারের হু হু জলের ভিতরে দুজনে হারিয়ে যাবেন।

স্ট্যান্ডিং ডগি: সঙ্গিনী দাঁড়াবেন দেওয়ালের দিকে মুখ করে। তার পর হাত দিয়ে সামনে সাপোর্ট রাখবেন। সঙ্গী এসে পিছন থেকে নিজের লিঙ্গ প্রবেশ করাবেন তাঁর যোনিতে। বাথরুমে যদি বাথটাব না থাকে, স্রেফ শাওয়ার থাকে, সেখানে অনায়াসে সঙ্গমে মত্ত হতে এই পজিশনের জুড়ি নেই। কেননা জি-স্পট স্পর্শ করা যায় অনায়াসে। ফলে চরম সুখ এক তিরতিরে আনন্দস্রোতের মতো বইতে থাকে। ঠিক মাথার উপরের শাওয়ারের জলধারার মতোই।

[আরও পড়ুন: ভাঙলেন পণ! কোচবিহারে তৃণমূলের জয়ের পর মৎস্যমুখ রবীন্দ্রনাথের]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ