BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফ্ল্যাটে মোমবাতির আলোয় ছাত্রের সঙ্গে যৌনতায় মাততে চেয়েছিলেন এই শিক্ষিকা!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: November 19, 2017 4:11 pm|    Updated: September 23, 2019 2:38 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আয়োজনের কোনও খামতি ছিল না। নিজের ফ্ল্যাটের বসার ঘরে মোমবাতি জ্বেলে ছাত্রের জন্য অপেক্ষা করছিলেন শিক্ষিকা। আধো অন্ধকার পরিবেশে ছাত্রের সঙ্গে উদ্দাম যৌনতায় মেতে উঠতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেই সাধ অপূর্ণ রয়ে গেল। পুলিশের হাতে ধরা পড়ে গেলেন মার্কিন মুলুকের এক শিক্ষিকা। পুলিশের দাবি, জেরায় নিজের কুকীর্তির কথা স্বীকার করেছেন বাইশ বছরের যুবতী হুটার ডে। তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণ, নাবালকের সঙ্গে যৌনতা-সহ একাধিক অভিযোগে মামলা রুজু করেছে পুলিশ।

[ফেল করিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ছাত্রদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক গড়তেন এই শিক্ষিকা]

দিন কয়েক আগে কলম্বিয়ায় পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে কিশোর পড়ুয়াদের সঙ্গে চল্লিশ বছরের শিক্ষিকার যৌন সম্পর্ক স্থাপন কথার ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছিল। ইয়োকাস্তা এম নামে ওই শিক্ষিকাকে ৪০ বছরের কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছে আদালত। আর এবার মার্কিন মুলুকে তেমনই এক শিক্ষিকা সন্ধান মিলল। পুলিশ জানিয়েছে, ওকলাহোমার একটি স্কুলে পড়ান অভিযুক্ত শিক্ষিকা হুটার ডে। দিন কয়েক আগে ওই স্কুলের এক পড়ুয়ার মোবাইলে নগ্ন ছবি ও ম্যাসেজ দেখতে পান অভিভাবকরা। এরপরই গোটা বিষয়ে পুলিশকে জানান তিনি। মোবাইলটি খতিয়ে দেখার পর তদন্তকারীরা নিশ্চিত হন, অভিযুক্ত শিক্ষিকার সঙ্গে ওই পড়ুয়া নিয়মিত দেখা করে এবং তাঁদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কও আছে। এরপরই অভিযুক্ত শিক্ষিকা হুটান ডে-র ফ্ল্যাটে হানা দিয়ে, তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। স্থানীয় এক পুলিশ আদিকারিক জানিয়েছে, পুলিশ যখন ওই শিক্ষিকার ফ্ল্যাটে যায়, তখন বসার ঘরে আলো নিভিয়ে মোমবাতি জ্বেলে ছাত্রের অপেক্ষায় বসেছিলেন তিনি। অভিযুক্ত শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ধর্ষণ, নাবালকের সঙ্গে যৌনতা-সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।

[OMG! ১৮৬০ সালেও ব্যবহৃত হত স্মার্টফোন!]

এদিকে স্কুল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ওই পড়ুয়ার অভিভাবকরা আগেই গোটা বিষয়টি তাদের জানিয়েছিলেন। অভিভাবকদের আশঙ্কা ছিল, অভিযুক্ত শিক্ষিকা হুটার ডে যখন ওই পড়ুয়াকে রসায়ন পড়াতেন, তখন থেকে তাদের মধ্যে এই শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হয়। বস্তুত, ওই শিক্ষিকা ইতিমধ্যেই তাঁদের সন্তানের সঙ্গে শারীরিকভাবে মিলিত হয়েছেন বলেও দাবি করেছেন অভিভাবকরা। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

[খবরের সত্যতা যাচাইয়ে হাত মেলাল ফেসবুক, গুগল-সহ অন্যান্যরা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement