১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

লকডাউন উঠলেও স্মার্টফোনে বাধ্যতামূলক আরোগ্য সেতু অ্যাপ, নয়া ভাবনা কেন্দ্রর

Published by: Sulaya Singha |    Posted: May 1, 2020 5:03 pm|    Updated: May 1, 2020 5:03 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদি ডিজিটাল ডেস্ক: এত সহজে বিদায় নেওয়ার পাত্র নয় করোনা। সে দীর্ঘদিন থেকে যাবে মানুষের সঙ্গে। মারণ ভাইরাসের ভবিষ্যৎ নিয়ে এমনই ইঙ্গিত দিয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। আর সেই কারণে আগামিদিনেও বজায় রাখতে হবে সামাজিক দূরত্ব। পাশের মানুষটি করোনায় আক্রান্ত নন তো? খোঁজ রাখতে হবে প্রতিনিয়ত। সেই কারণেই মোবাইলে এবার আরোগ্য সেতু অ্যাপটিকে বাধ্যতামূলক করার কথা ভাবছে কেন্দ্র।

সম্প্রতি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখে শোনা যায় আরোগ্য সেতু অ্যাপের কথা। সমস্ত দেশবাসীকে অ্যাপটি ডাউনলোড করার আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি। কনট্যাক্ট ট্রেসিংয়ের মাধ্যমে এই অ্যাপ বলে দিচ্ছে আপনি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় রয়েছেন কি না। সম্প্রতি কোনও আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেছেন কি না। করোনার উপসর্গ কী, কীভাবে সংক্রমণ থেকে নিজেকে দূরে রাখবেন- ইত্যাদি নানা তথ্য পাওয়া যাচ্ছে কেন্দ্রের তৈরি এই অ্যাপে। যাতে উপকৃত হচ্ছেন বহু দেশবাসী। আগামিদিনেও জনসাধারণকে সতর্ক থাকতে হবে। জানতে হবে, তিনি সুরক্ষিত কি না। সেই কারণেই বাধ্যতামূলক করা হতে পারে অ্যাপটিকে। তেমন হলে স্মার্টফোনে আর আলাদা করে অ্যাপটি ডাউনলোডও করতে হবে না। গুগল ক্রোম-সহ একাধিক প্রি-ইনস্টলড অ্যাপের মতো এটিও স্মার্টফোন ডাউনলোড করাই থাকবে।

[আরও পড়ুন: Meru Cabs-এর সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধল Flipkart, জরুরি পণ্য আরও দ্রুত পৌঁছবে গ্রাহকদের হাতে]

একটি স্মার্টফোন সংস্থা এবং তথ্যপ্রযুক্তি প্রস্তুতকারক সংস্থা (MAIT) এ খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছে, যে শীঘ্রই বাধ্যতামূলক অ্যাপে পরিণত হতে পারে। তাই যাতে আলাদা করে সেটি ডাউনলোড করতে না হয়, তাই প্রি-ইনস্টলের ব্যবস্থা করা হতে পারে। এমনকী জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থাকে এই অ্যাপ প্রি-ইনস্টল করতে বলা হয়েছে। তবে আপাতত স্মার্টফোন তৈরির কাজ বন্ধ থাকায় তা সম্ভব হচ্ছে না। তবে খুব তাড়াতাড়ি নিজেদের
কাজ শুরু করে দেবে সংস্থাগুলি।

উল্লেখ্য, দিন দুয়েক আগেই প্রত্যেক সরকারি কর্মীকে কর্মস্থানে হাজির হওয়ার আগে আরোগ্য সেতু অ্যাপ ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছিল। তাঁদের সুরক্ষিত, তা নিশ্চিত হওয়ার পরই কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করতে বলা হয়েছিল। এবার গোটা দেশেই অ্যাপটি বাধ্যতামূলক করার চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত রেকর্ড সংখ্যক সাড়ে সাত কোটি মানুষ অ্যাপটি ডাউনলোড করেছেন। লকডাউন উঠে গেলে এটি অত্যাবশ্যক অ্যাপ হিসেবেই গণ্য করা হবে।

[আরও পড়ুন: করোনা যুদ্ধে চিকিৎসকদের পাশে IIT’র পড়ুয়ারা, বানাচ্ছেন বিশেষ ইনকিউবেশন বক্স]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement