২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আগামী বছর জুলাই পর্যন্ত ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ করবেন ফেসবুকের কর্মীরা, পাবেন অতিরিক্ত অর্থ!

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 7, 2020 4:41 pm|    Updated: August 7, 2020 4:41 pm

An Images

‌সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ গোটা বিশ্বে হু হু করে ছড়াচ্ছে করোনার (Corona) সংক্রমণ। এখনও প্রতিষেধক আসেনি। এই পরিস্থিতিতে এবার কর্মীদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে বড় পদক্ষেপ করেছে ফেসবুক। আগামী বছর জুলাই মাস পর্যন্ত নিজেদের কর্মীদের ওয়ার্ক ফ্রম হোম (Work From Home) অর্থাৎ বাড়ি থেকে কাজ করার অনুমতি দেওয়া হল। একই সঙ্গে কর্মীদের আরও একটি সুখবর দিল মার্ক জুকারবার্গের (Mark Zuckerberg) সংস্থা। জানানো হল, বাড়িতে অফিসের সেট আপ তৈরির জন্য কর্মীপিছু এক হাজার ডলার করেও দেওয়া হবে!

[আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য, ট্রাম্পের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে জারি নিষেধাজ্ঞা]

সম্প্রতি করোনা আবহে বিশ্বের তাবড় তাবড় সংস্থাগুলো যে পদক্ষেপ করেছে, সেই পথেই পা বাড়িয়েছে ফেসবুক। জনপ্রিয় এই সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্টের মুখপাত্র ওই বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘‌‘‌স্বাস্থ্য ও সরকারি বিশেষজ্ঞদের থেকে পরামর্শ নেওয়ার পর এবং এই বিষয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনার ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, ফেসবুক তার কর্মীদের ২০২১ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত বাড়ি থেকে কাজ চালিয়ে যাওয়ায় অনুমতি দেবে। পাশাপাশি, বাড়িতে অফিসের মতোই সেট আপ বা প্র‌য়োজনীয় সরঞ্জামের জন্য কর্মীদের অতিরিক্ত এক হাজার ডলারও দেবে।’‌’‌ ভারতীয় মুদ্রায় যা প্রায় সাড়ে সাত লক্ষ টাকা।

[আরও পড়ুন: অভূতপূর্ব সাফল্য মুকেশ আম্বানির, বিশ্বের সেরা ব্র্যান্ডের তালিকায় দ্বিতীয় রিলায়েন্স]

তবে করোনার সংক্রমণ কিছুটা কমলে এবং সরকারের অনুমতি পেলে সবরকম বিধি মেনেই অফিস খুলবে বলেও ফেসবুকের তরফে জানানো হয়েছে। এদিকে, ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ বাড়িয়েছে গুগলও (Google)। সংস্থার কর্মীরা আগামী বছরের জুন মাস পর্যন্ত চাইলে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের সুযোগ পাবেন। এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন না ভারতে কর্মরত গুগলের কর্মীরাও। গুগল এবং তার মূল সংস্থা অ্যালফাবেট-এ (Alphabet Inc) পূর্ণকালীন এবং চুক্তি ভিক্তিক মিলিয়ে মোট ২ লক্ষ কর্মী আছেন। এর মধ্যে ভারতে কর্মরত প্রায় ৫,০০০ জন কর্মী। অধিকাংশ কর্মী এই ওয়ার্ক ফ্রম হোমের সুযোগ পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement