৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সেলফি তুলতে গিয়ে দুর্ঘটনার ঘটনা এখন আর নতুন কিছু নয়। ভয়ংকর সমস্ত জায়গায় দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার নেশায় প্রাণও হারিয়েছেন অনেকে। যুব প্রজন্মের এমন প্রবণতাকে আয়ত্তে আনতে এবার নতুন উদ্যোগ নিল আইআইআইটি দিল্লি। এমন একটি অ্যাপ তৈরি করা হয়েছে, যার মাধ্যমে সেলফি নেওয়ার সময় বিপদের সতর্কতা আগেভাগেই পাওয়া যাবে।

[আগামী বছরই বাজারে আসছে ভারতের প্রথম 3D স্মার্টফোন]

দিল্লির ইন্দ্রপ্রস্থ ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন অ্যান্ড টেকনোলজির গবেষকরা একটি নতুন অ্যাপ তৈরি করেছেন। নাম সেফটি (Safety)। প্রতিষ্ঠানের অধ্যাপক পন্নুরঙ্গম কুমারগুরুর হাতেই তৈরি এই বিশেষ অ্যাপ। তিনি বলেন, সেলফি তোলার সময় অনেকেরই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মৃত্যু হয়। সেই মৃত্যুর হার কমানোই আমাদের লক্ষ্য। কীভাবে কাজ করবে অ্যাপটি? এর ক্যামেরায় ছবি তোলার সময় সেখানকার সার্বিক পরিস্থিতি আপনার সামনে তুলে ধরবে। সেখানে যদি কোনও বিপদের আশঙ্কা থাকে তাহলে সঙ্গে সঙ্গে সতর্ক করে দেবে ইউজারকে। এমনভাবেই প্রযুক্তিকে কাজে লাগানো হয়েছে যে ছবি তোলার আগেই পৌঁছে যাবে বার্তা। শুধু তাই নয়, মোবাইলে ইন্টারনেট ডেটা না থাকলেও কাজ করবে এই অ্যাপ। আপনি কত উচ্চতায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন কিংবা আপনার আশেপাশে কী দেখা যাচ্ছে, এ সবই লক্ষ্য রাখে অ্যাপটি। এবং সেই অনুযায়ী আপনাকে সতর্ক করে দেয়। ধরুন আপনি রেলওয়ে ট্র্যাক কিংবা কোনও হিংস্র পশুর কাছাকাছি দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার চেষ্টা করছেন। সেক্ষেত্রে ছবি তোলার সময় আপনার কাছে একটি নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে। সেখানে স্পষ্ট জানানো থাকবে, আপনি অসুরক্ষিত বা বিপদজনক এলাকায় রয়েছেন।

[গুজব নয় সত্যি, নোকিয়ার হাত ধরে শীঘ্রই আসছে 5G পরিষেবা]

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে গবেষণার পর অ্যাপটি তৈরি করেছেন কুমারগুরু এবং তাঁর দল। এর আগে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য একটি অ্যাপ বানিয়েছিল এই দল। যার মাধ্যমে চিহ্নিত করা যায় বিপদজনক জায়গাকে। ইতিমধ্যেই বিশ্বের ৬০০টি এলাকার সাড়ে পাঁচ হাজার জায়গাকে অসুরক্ষিত বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৬ সালে ভারতে কমপক্ষে ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে সেলফি তুলতে গিয়ে। তাই এই নয়া সেফটি অ্যাপ যে সেলফি প্রেমীদের কাছে আশীর্বাদের মতোই, তা বলাই বাহুল্য।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং