১৪ মাঘ  ১৪২৯  রবিবার ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

রবিবার থেকে ভেরিফায়েড Twitter অ্যাকাউন্টের জন্য দিতে হচ্ছে টাকা! ভারতে কবে চালু?

Published by: Paramita Paul |    Posted: November 6, 2022 4:37 pm|    Updated: November 6, 2022 4:38 pm

Twitter rolls out 8 dollar verified account service on IOS | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যেমন কথা তেমন কাজ! টুইটারে (Twitter) চালু হয়ে গেল টাকার বিনিময়ে ব্লু টিক অ্যাকাউন্ট (Blue Tick Account) ব্যবহার প্রক্রিয়া। আপাতত আইওএস ইউজারদের জন্য এই পরিষেবা চালু করল টুইটার। এদিন মাইক্রোব্লগিং সাইটটি জানিয়েছে, আরও নতুন ফিচার আনা হচ্ছে। যার সুবিধা পাবেন ইউজাররা।

টুইটারের তরফে জানানো হয়েছে, ব্লু টিক ইউজারদের প্রতি মাসে ৭.৯৯ ডলার দিতে হবে। তবে এই গাঁটের কড়ি খরচ করতে আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ব্রিটেনের আইফোন অর্থাৎ আইওএস ইউজারদের। ভারতে কবে থেকে চালু হবে এই পরিষেবা? এক টুইটার ইউজারের প্রশ্নের জবাবে টেসলা তথা স্পেসএক্সের কর্ণধার জানান, আশা রাখছি একমাসেরও কম সময়ের মধ্যে ভারতেও চালু হয়ে যাবে এই পরিষেবা।

 

[আরও পড়ুন: ‘জনগণমন’র সমান মর্যাদা প্রাপ্য ‘বন্দেমাতরম’ গানটিরও! আদালতে জানাল কেন্দ্র]

টুইটারের মাথা পরিবর্তন হওয়ার পর থেকেই মাইক্রোব্লগিং সাইটে একাধিক পরিবর্তন এসেছে। ব্লু টিক পরিষেবা ব্যবহারের জন্য গুনতে হচ্ছে টাকা। এবার যাতে টুইটারে লম্বা লেখা পোস্ট করা যায় সেই ফিচার আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পাশাপাশি যে কোনও ধরনের কনটেন্টের উপর মনিটাইজেশন চালু করতে চলেছে টুইটার। অর্থাৎ ইউজারের কনটেন্ট অন্য কেউ ব্যবহার করলে সেই ইউজারকে টাকা দেবে টুইটার।

মাস্ক দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই টুইটারের (Twitter) খোলনলচে বদল শুরু হয়েছে। টুইটারে খোলনলচে বদলানো জন্য সময় বেঁধে দিয়েছেন এলন মাস্ক। আর সেই ডেডলাইনের মধ্যে কাজ শেষ করার জন্য অমানুষিক পরিশ্রম করতে হচ্ছে ইঞ্জিনিয়ারদের। সূত্রের খবর, টানা ৭ দিন ১২ ঘণ্টা কাজ করতে হবে তাঁদের। এর বিনিময়ে কোনও ছুটি বা অতিরিক্ত বেতন পাবেন না। তারপরেও স্রেফ চাকরি হারানোর আশঙ্কায় অমানুষিক পরিশ্রম করছেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের সঙ্গে হবে বেশ কয়েকটি পুরসভার ভোটও, জানিয়ে রাখলেন ফিরহাদ]

এদিকে একসঙ্গে বহু কর্মীকে ছাঁটাই করেছেন টুইটারের নতুন মালিক। আর তার এই ভূমিকার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন টুইটারের প্রাক্তন চিফ এক্সিকিউটিভ জ্যাক ডরসি। টুইটারে লেখেন, “এই পরিস্থিতিতে অনেকেই আমার উপর রেগে আছেন, আমি জানি। আমি সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। সকলের এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী আমি। আমি খুব তাড়াতড়ি সংস্থার আকার বাড়িয়ে ফেলেছিলাম। তাই আমি ক্ষমাপ্রার্থী।”

 

 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে