২ শ্রাবণ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংগ্রাম সিংহরায়, শিলিগুড়ি: বিগত কয়েক বছরে এ রাজ্যের পাহাড়ি পর্যটনশিল্পে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে হোম-স্টেগুলি। মুখ্যমন্ত্রী নিজেও বরাবরই হোম স্টে’র আরও উন্নয়নে জোর দিয়েছেন। এ বার উত্তরবঙ্গের হোম-স্টেগুলিকে এক ছাতার তলায় আনার উদ্যোগ নিল রাজ্য। 

[আরও পড়ুন: আকাশে-মাটিতে কানাকানি, ঘুরে আসুন মায়ের দেশ মণিপুরে]

জানা গিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ পর্যটন দপ্তরের উদ্যোগে হোম-স্টেগুলিকে ‘অলাভজনক সংস্থা’ হিসেবে সরকারি পর্যটন ও সুবিধাভোগী ব্যবসা হিসেবে তুলে ধরা হবে। সে সঙ্গে, পর্যটন দপ্তরের তরফে সেগুলির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য একটা বাৎসরিক তহবিল বরাদ্দ করার কথাও ভাবা হয়েছে৷ এমনকি, পর্যটন দপ্তরের ওয়েবসাইটে এই হোম-স্টেগুলিকে জায়গা করে দেওয়া হবে বলে সূত্রের খবর। 

এছাড়া, পৃথিবীর যে কোনও প্রান্ত থেকেই উত্তরবঙ্গের চারটি জেলার হোম-স্টেগুলি বুক করতে পারবেন পর্যটকরা।
সম্প্রতি রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেবের সঙ্গে এ বিষয়ে বৈঠক করেন উত্তরবঙ্গের পর্যটন, হোটেল এবং গাড়ি চালকের সম্মিলিত সংগঠন হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ক (এইচএইচটিডিএন)-এর সদস্যরা। সেখানেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পর্যটন মন্ত্রী জানিয়েছেন, “অপ্রচলিত পর্যটন কেন্দ্রগুলিকে জনপ্রিয় করে তুলছে এই হোম-স্টে৷ তাই এগুলিকে একত্র করে আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যেই কাজ করা হচ্ছে। পাশাপাশি, যাঁরা ব্যবসায়িক মনোভাব থেকে এই ব্যবসাগুলি করছেন না, তাঁদের পাশে দাঁড়াতে চায় সরকার৷”

home-stay-n
উত্তরবঙ্গে হোম-স্টে’র এক কর্ণধার তথা সংগঠনের অন্যতম সদস্য রাজ বসু জানান, আবেদনের ভিত্তিতে হোম-স্টেগুলিকে পর্যটন দপ্তরের অধীনে নথিভুক্ত করা হবে। এখনও পর্যন্ত ৪০০ টি অপ্রচলিত হোম-স্টে আবেদন জানিয়েছে। উত্তরবঙ্গে কমবেশি চার হাজার হোম-স্টে রয়েছে।

তবে রাজবাবুর দাবি, শিলিগুড়ি বা কলকাতার বাসিন্দারা হোটেল এবং পর্যটন ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন জায়গায় বাড়ি কিনে সেগুলিকে হোম-স্টে হিসেবে চালানোর চেষ্টা করছেন। সে ক্ষেত্রে সেগুলিকে হোম স্টে’র তকমা দেওয়া যায় না। যে সব হোম-স্টে মালিকরা পর্যটনকেন্দ্রে ওই হোম-স্টেগুলিতেই বসবাস করেন, এবং নিজের বাড়ির বাড়তি অংশ হোম-স্টে হিসেবে ভাড়া দেন, তাঁদেরই একমাত্র হোম-স্টে বলে ধরা হবে। একমাত্র তাঁরা আবেদন করলেই পর্যটন দপ্তরের কাছ থেকে সুবিধা মিলবে।একদিকে যেমন প্রচারের দায়িত্ব নেবে পর্যটন দপ্তর, তেমনই ওই হোম-স্টেগুলিকে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এককালীন কিছু টাকাও পাওয়া যাবে।

[আরও পড়ুন: পর্যটক টানতে পুজোর আগেই নয়া সাজে পাহাড়ের মিরিক]

উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ি জেলার অন্তত দেড় হাজার এমন অলাভজনক হোম-স্টে রয়েছে বলে পর্যটন দপ্তর সূত্রের খবর৷ এগুলিকে ঢেলে সাজালে উত্তরবঙ্গের পর্যটন আরও জনপ্রিয় হয়ে উঠবে বলে আশা সকলের৷ এ বিষয়ে আগ্রহী হোম-স্টে কর্তৃপক্ষও। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং