৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

মাসুদ আহমেদ, শ্রীনগর: ভরা গ্রীষ্মে তুষারপাত! কে কবে শুনেছে এমন কথা? কিন্তু এবছর তেমন দিনের সাক্ষী থাকল কাশ্মীর। সোনমার্গ, গুর্জ ও কাশ্মীর উপত্যকার আরও উত্তরদিকে জুন মাসের মাঝামাঝি তুষারপাত দেখল পর্যটকরা। জম্মু কিন্তু এ সুধা থেকে বঞ্চিত। সেখানে চলছে তাপপ্রবাহ।

মাত্র কয়েক কিলোমিটার দূরত্বে এমন দুরকম বিপরীত আবহাওয়া সচরাচর দেখা যায় না। তাই জম্মু ও কাশ্মীরের এমন দৃশ্য সহজে মিস করতে চাইছেন না পর্যটকরা। শোনা যাচ্ছে জম্মু থেকে নাকি সোনমার্গ যাওয়ার তাড়া পড়ে গিয়েছে পর্যটকদের মধ্যে। এছাড়া কাশ্মীর উপত্যকার কোথাও কোথাও হচ্ছে ব্যাপক বৃষ্টি। ফলে ঠান্ডার আমেজ রয়েছে উপত্যকাজুড়ে। আর উপরের দিকে হচ্ছে তুষারপাত।

কিছুদিন আগে, এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়েও কাশ্মীর তুষারপাতের সাক্ষী থেকেছে। পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর একপ্রকার স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল ভূস্বর্গ।ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরতে শুরু করেছিল কাশ্মীর। তার মধ্যে তুষারপাতের খবর এপ্রিলেই ডেকে এনেছিল খুশির জোয়ার। পর্যটকরা যাওয়ায় স্থানীয়দের মধ্যেও ছিল আনন্দের আবহাওয়া। হাজার হোক পর্যটকদের মধ্যেই তো তাঁদের জীবন কাটে। লোক না এলে ব্যবসা চলবে কী করে? সন্ত্রাসের আবহ কেই বা চায়?

[ আরও পড়ুন: শিকেয় সমুদ্র দর্শন, দ্বিগুণ ঘরভাড়া দিয়েও হোটেল মিলছে না দিঘায় ]

এপ্রসঙ্গে স্থানীয় ব্যবসায়ী মুশারফ আলি বলছিলেন, “পুলওয়ামার পর পর্যটকদের সংখ্যা একবারে কমে গিয়েছিল। ফলে প্রচণ্ড সমস্যা তৈরি হয়েছিল। কিন্তু, এখন নতুন করে বরফ পড়তে শুরু করার পর অনেক পর্যটক আসছেন। ফলে কিছুটা হলেও ব্যবসা বেড়েছে। প্রতিবছরই এই সময় বরফ দেখতে পর্যটকরা ভিড় জমান। এবার তো আরও বেশি বরফ পড়ছে। তাই পর্যটকের সংখ্যা বাড়বে বলেও আমরা আশাবাদী।”

এবারের অবস্থাও খানিকটা তাই। জুনের তপ্ত গরমে এমনিতেই উত্তর ভারতের দিকে ছুটছে পর্যটকরা। এও শোনা যাচ্ছে, অনেকে থাকার জায়গা না পেয়ে ফিরে এসেছেন। এমন পরিস্থিতিতে তারা যারা সেখানে রয়েছেন, তাদের ভাগ্যে বোনাস হিসেবে জুটেছে তুষারপাত। এমন মজা তো যে কেউ চেটেপুটে উপভোগ করে নিতে চাইবে।  

[ আরও পড়ুন: এবার ৪ হাজার টাকারও কম খরচে বৈষ্ণদেবী দর্শন করে আসুন ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং