১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কখনও পড়াশোনায় অমনোযোগিতার জন্য বা কখনও বন্ধুদের সঙ্গে মারপিট করে অথবা অন্য কোনও কারণে৷ ছাত্রাবস্থায় স্কুলে সাসপেন্ড হওয়ার অভিজ্ঞতা অনেকেরই রয়েছে৷বড় কোনও দোষের স্কুল থেকে বহিষ্কারও হয়েছে অনেকে৷ তবে ইংল্যান্ডের নর্থ সারসার অ্যাকাডেমির পড়ুয়া কেলি শন যা করেছে এবং এরপর তার সঙ্গে যা ঘটেছে, তা সম্ভবত কোনও পড়ুয়ার সঙ্গে ঘটেনি৷

[ আরও পড়ুন: মোটা মাথায় ঢোকে না হেলমেট, জরিমানা করতে গিয়েও পিছু হটল পুলিশ ]

ইংল্যান্ডের হালের বাসিন্দা এই তরুণী দশম শ্রেণির ছাত্রী৷চলতি বছরই জিসিএসই পরীক্ষায় বসার কথা রয়েছে তার৷ কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষের এক অদ্ভুত সিদ্ধান্তে, এখন সেই বিষয়ে তৈরি হয়েছে ধন্দ৷ জীবনের গুরুত্বপূর্ণ এই পরীক্ষায় আদৌ কেলি বসতে পারবে কিনা, সেই বিষয়েও এখন তৈরি হয়েছে চরম আশঙ্কা৷ কী করেছে কেলি? জানা গিয়েছে, প্রচণ্ড গরম আবহাওয়ার জন্য ক্লাসের মধ্যেই পোশাক খুলে ফেলেছিল বছর ১৪-র এই ছাত্রী৷ যে ঘটনা নজরে আসে স্কুল কর্তৃপক্ষের৷ এরপরই কেলিকে এবং তাঁর মা’কে টিচার্স রুমে ডেকে পাঠান স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা৷ এবং তাকে স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয় স্কুল কর্তৃপক্ষ৷

[ আরও পড়ুন: OMG! আটক হওয়ার পর পুলিশের গাড়িতেই উদ্দাম যৌনতায় মাতল যুগল! ]

এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন কেলির মা৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রচণ্ড গরমে আমার মেয়ে ক্লাসের মধ্যে কেবল পরনের ব্লেজারটা খুলেছিল আমার মেয়ে৷ এটাই ওর দোষ৷ কেবলমাত্র এই ছোট কারণে আমার মেয়েকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ৷ এই সিদ্ধান্ত মানতে পারছি না৷ এই তীব্র প্রতিবাদ করছি৷’’ এই ঘটনায় আতঙ্ক বেড়েছে ওই স্কুলের অন্যান্য পড়ুয়াদের মধ্যেও৷ আগামিদিনে এই ঘটনা তাঁদের ছেলে-মেয়েদের সঙ্গেও ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অন্যান্য পড়ুয়াদের অভিভাবকরা৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং