৩০ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কথায় বলে জন্ম-মৃত্যু-বিয়ে, তিন বিধাতা নিয়ে। অর্থাৎ এই তিনটি বিষয় মানুষের হাতে নেই। আর এই প্রবাদ ঠিক কতটা সত্যি তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন মধ্যপ্রদেশের এক কনে। বিয়ের আসরে বরের সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়লেন ঠিকই। কিন্তু অগ্নিসাক্ষী রেখে মন দিয়ে বসলেন অন্য একজনকে। তিনি আর কেউ নন, যে পুরোহিত তাঁদের বিয়ে দিচ্ছিলেন, তাঁকেই।

[আরও পড়ুন: বৃদ্ধা মাকে স্কুটারে চাপিয়ে তীর্থে এ যুগের ‘শ্রবণকুমার’]

শুনতে অবাক লাগলেও এমন ঘটনাই ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের অসথ গ্রামের। দিন ১৬ আগেই গ্রামেরই এক যুবকের সঙ্গে চার হাত এক হয়েছিল বছর একুশের যুবতীর। গত ৭ মে সেজেগুজে বিবাহ বাসরে হাজির হয়েছিলেন কনে। বিয়ের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিতও ছিলেন আত্মীয়রা। সুষ্ঠভাবেই সম্পন্ন হয় বিয়ে। কিন্তু সেই সময় যে তলে তলে যুবতী অন্য কাউকে মন দিয়ে ফেলছিলেন, সেকথা টেরও পাননি বর। যে পুরোহিত বর-কনের নতুন জীবনের নতুন অধ্যায় শুরুর দায়িত্বে ছিলেন, তিনিই হঠাৎ হয়ে উঠলেন কনের স্বপ্নের নায়ক। বিনোদ মহারাজ নামের ওই পুরোহিত অবশ্য বিবাহিতই ছিলেন। এমনকী তাঁর দুই সন্তানও রয়েছে। কিন্তু প্রেমেতে মজিলে মন…। তাই বিয়ে করেও শ্বশুড়বাড়িতে মন টেকাতে পারলেন না কনে। বিয়ের পরপরই বাপের বাড়িতে ফিরে আসেন তিনি। তারপরই গত ২৩ মে বিনোদের সঙ্গে চুপচাপ বাড়ি থেকে পালান। সেই দিনের পর থেকে বেপাত্তা বিনোদের পরিবারের সদস্যরাও।

মজার বিষয় হল, ওই দিনই অন্য একটি বিয়ের দায়িত্বে ছিলেন বিনোদ। কিন্তু লগ্ন বয়ে গেলেও তাঁর দেখা মেলেনি। গ্রামবাসীরা তাঁর খোঁজ শুরু করলে জানা যায়, নিখোঁজ যুবতীও। শ্বশুড়বাড়ি থেকে পাওয়া দেড় লক্ষ টাকার গয়না এবং ৩০ হাজার নগদ টাকা নিয়ে পালান তিনি। পরের দিন থানায় অভিযোগ দায়ের করে যুবতীর পরিবার। তাঁদের অভিযোগ, বিনোদই ভুলিয়ে ভালিয়ে যুবতীকে সঙ্গে নিয়ে পালিয়েছেন। তবে স্থানীয়রা এও জানাচ্ছেন, বিনোদের সঙ্গে যুবতীর সম্পর্ক নতুন নয়। গত দু’বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক তাঁদের মধ্যে। তবে এখনও পর্যন্ত বিনোদ ও যুবতীর কোনও খোঁজ পায়নি পুলিশ।

[আরও পড়ুন: শিকারে চোখ ঈগলের, লেন্সবন্দি শিকারির দুর্লভ ছবি প্রশংসা কুড়োচ্ছে নেটদুনিয়ায়]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং