২২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ক্রমশই বাড়ছে পিঁয়াজের দাম। ৬০, ৮০-র গণ্ডি পেরিয়ে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে পিঁয়াজের দাম। শুধু পশ্চিমবঙ্গেই নয় অন্যান্য রাজ্যেও পিঁয়াজের ঝাঁজে চোখে জল গৃহস্থের। ব্যাগ হাতে বাজারে গিয়েও পিঁয়াজ কিনতে পারছেন না অনেকেই। তবে দামের চিন্তায় পিঁয়াজ কিনতে না পারার গ্লানি থেকে মুক্তি পেতে পারেন আমজনতা। কারণ, এবার মহার্ঘ পিঁয়াজ কিনতে আপনি নিতে পারেন লোন। পরিবর্তে আপনাকে বন্ধক রাখতে হবে আধার কার্ড।

ফ্ল্যাট, গাড়ি, টিভি, ফ্রিজের মতো দামি জিনিস কেনার ক্ষেত্রে লোন নেন অনেকেই। কিন্তু পিঁয়াজ কিনতে লোন পাওয়া সম্ভব, তা ভেবেই অবাক হচ্ছেন তো? ভাবছেন এ কীভাবে সম্ভব? আপনার কৌতুহল মেটাতে না হয় আসল কথায় আসা যাক। বাংলার পাশাপাশি বেশিরভাগ রাজ্যেই ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী পিঁয়াজের দাম। আমজনতার সমস্যা হলেও তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই কেন্দ্রের। এই অভিযোগে সরব রাজনৈতিক দলগুলি। তাই পথে নেমে প্রতিবাদে শামিল প্রায় সকলেই। সেই ময়দানে পিছিয়ে নেই সমাজবাদী পার্টিও। তাই প্রতীকী আন্দোলন হিসাবে বারাণসীর বেশ কয়েকটি দোকানে পিঁয়াজ বিক্রি করতে শুরু করেন দলীয় কর্মীরা। তাঁরা চড়া দামে ক্রেতাদের পিঁয়াজ বিক্রি করেন। যাঁরা এত দামে পিঁয়াজ নিতে অস্বীকার করছেন, তাঁদের লোন দেওয়ার প্রস্তাব দেন সমাজবাদী পার্টির কর্মী সমর্থকরা। তবে শর্ত একটাই পিঁয়াজ কেনার জন্য বন্ধক রাখতে হবে আধার কার্ড অথবা রূপোর গয়নাগাটি। শুধু সমাজবাদী পার্টির কর্মী সমর্থকরাই নয়, এর আগে কংগ্রেসের তরফেও প্রতীকী আন্দোলন করা হয়। রাস্তার পাশে বসে কংগ্রেস কর্মীরা মাত্র ৪০ টাকা কেজি দরে পিঁয়াজ বিক্রি করেন তাঁরা কংগ্রেস নেতা শৈলেন্দ্র তিওয়ারি বলেন, “সবজির দাম ক্রমশই বাড়ছে। যার জেরে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন স্থানীয়রা। তবে তা নিয়ে সরকারের কোনও মাথাব্যথা নেই।”

[আরও পড়ুন: ক্রিসমাসে আতঙ্কের ছায়া, ভারতকে রক্তাক্ত করতে ছক কষছে ইসলামিক স্টেট]

তবে রাজনৈতিক কচকচানিতে কান দিতে নারাজ আমজনতা। পরিবর্তে কবে পিঁয়াজের দাম কমে, সেই প্রতীক্ষার প্রহর গুনছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং