BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

গণতন্ত্রের জয়, কুকুরকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হল ছাগল!

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: March 11, 2019 7:13 pm|    Updated: March 11, 2019 7:13 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কথায় বলে গণতন্ত্রে সবই সম্ভব। আমেরিকার একটি শহর হয়তো সেকথাই প্রমাণ করল। ভারমন্টের একটি শহরের মেয়র নির্বাচিত হল একটি ছাগল। লিঙ্কন নামের ছাগলটির বয়স মোটে ৩ বছর। এই বয়সেই রীতিমতো একটি শহরের মেয়রের পদ পেয়ে গেল ছাগলটি। মোট ১৩টি ভোট পেয়ে, নিকটবর্তী প্রতিদ্বন্দ্বী একটি কুকুরকে হারিয়ে দিল সে।

[সমঝোতা এক্সপ্রেসই গাঁথল একসূত্রে, পাক কন্যাকে বিয়ে ভারতীয় যুবকের]

ভাবছেন, একটি আস্ত শহরের মেয়র একটি ছাগল কী করে হল? একটু খোলসা করে বলা যাক। ভারমন্টের ছোট্ট শহর ফেরায় হ্যাভেন। শহরটির জনসংখ্যা মোট আড়াই হাজার মতো। সেই অর্থে, এই শহরের মেয়র বলে কোনও পদ নেই। শহরের প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করেন টাউন ম্যানেজার। বর্তমানে ফেয়ার হ্যাভেনের টাউন ম্যানেজারের পদে রয়েছেন জোশেফ গুন্টার। আসলে, গুন্টার শহরে একটি খেলার মাঠ তৈরি করতে চাইছিলেন। কিন্তু, তাঁর কাছে উপযুক্ত অর্থ ছিল না। তাই, তিনিই পরিকল্পনা করেন মেয়র পদে নির্বাচন করানোর। খবরের কাগজে, গুন্টার পড়েছিলেন মিসিসিপির এক ছোট্ট গ্রামে প্রধান নির্বাচিত হয়েছে একটি বিড়াল। তখনই, আইডিয়াটা মাথায় খেলে যায় গুন্টারের। তিনি ঠিক করেন ফেয়ার হ্যাভেনেও মেয়র পদে নির্বাচন করবেন। পদটি হবে সাম্মানিক। আর এই ভোটে অংশ নেবে গৃহপালিত পশুরা। নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য প্রত্যেক প্রার্থীকে জমা দিতে হবে পাঁচ ডলার করে। এভাবে মাঠ তৈরির জন্য টাকাও উঠে যাবে।

[মানসিকতার বদল আনতে বসতি রাঙিয়ে দিচ্ছেন এই শিল্পী]

সেই মতো নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু করেন। লিঙ্কন-সহ ১৫টিরও বেশি গৃহপালিত পশু প্রার্থী হয়। তাদের মধ্যে নির্বাচনে সর্বোচ্চ ১৩টি ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছে ছাগলটি। লিঙ্কন স্থানীয় একটি স্কুলের শিক্ষিকার গৃহপালিত পশু। তাঁর নিকটবর্তী প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল একটি কুকুর। টাউন ম্যানেজার গুন্টার জানাচ্ছেন, নতুন মেয়রকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। মোট একবছর মেয়র পদে থাকবেন তিনি। শহরের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সাম্মানিক পদ অলংকৃত করবেন নতুন মেয়র। প্রথম বছরের নির্বাচন সম্পর্কে গুন্টারের অভিমত, প্রথম বছর নির্বাচনে ততটা সাড়া মেলেনি। মোট ৫৩টি ভোট পড়েছে। তবে, তিনি আশাবাদী আগামী বছরগুলিতে ভোটে মানুষ সাড়া দেবে। প্রতিবছর নতুন নতুন পশু বা পাখিকে মেয়র নির্বাচিত করা হবে। আসলে, আজকের ঘৃণ্য রাজনীতি অনেক নেতাকেই পশু বানিয়ে দেয়। তাই আমরা পশুকেই নেতা বানিয়েছি। এটা আসলে একটা বার্তা দেওয়ার চেষ্টা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement