BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‌O‌M‌G! শুধু পায়ের পাতার ছবি বিক্রি করে মাসে তিন লক্ষ আয় করেন এই ব্যক্তি!

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 26, 2020 6:55 pm|    Updated: August 26, 2020 6:55 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার কারণে গোটা বিশ্বে দেখা দিয়েছে আর্থিক মন্দা। কাজ হারিয়েছেন কয়েক লক্ষ মানুষ। কেউ আবার বিগত কয়েকমাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না, তো কারোর আবার বেতন কমেছে। কিন্তু এই পরিস্থিতিতেও এক মার্কিন নাগরিক মাসে প্রায় তিন লক্ষ টাকা রোজগার করছেন। তাও আবার কেবল নিজের পায়ের পাতার ছবির বিক্রি করে। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। কিন্তু কারা কিনছে এই ছবিগুলো? কেনই বা এত টাকা পাচ্ছেন ওই ব্যক্তি? আসুন জেনে নেওয়া যাক এই প্রতিবেদনে।

[আরও পড়ুন: বুড়ো বয়সে ‘ভীমরতি’! নামে-বেনামে এক ডজন বিয়ে করে বিপাকে প্রৌঢ়]

আমেরিকার অ্যারিজোনার বাসিন্দা ওই ব্যক্তির নাম জেসন স্ট্রম। জানা গিয়েছে, ৩৫ বছর বয়সি জেসনের এই পায়ের পাতার ছবি কেনেন পুরুষ-মহিলা উভয়েই। আর এই ছবি বিক্রি করেই প্রতি মাসে ৪ হাজার ডলার আয় করেন জেসন। অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ২.‌৯০ লক্ষ টাকা। এমনকী তাঁর নিজস্ব ইনস্টাগ্রাম পেজও রয়েছে। তাতে ফলোয়ারের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। কিন্তু কেন এত টাকা পান জেসন? আসলে পৃথিবীতে প্রত্যেক মানুষের কিছু না কিছুর প্রতি তীব্র আকর্ষণ থাকে। তেমনই এমন অনেক মানুষ আছেন, যাঁরা অন্যের পায়ের পাতার ছবির প্রতি আকৃষ্ট হন। জেসন নিজেও সেরকমই একজ। আর তাই তো হটাৎ করে একদিন এই ভাবে অর্থ উপার্জনের রাস্তাও খুঁজে বের করেন তিনি। তারপর থেকে নিজেই নিজের পায়ের পাতার ছবি তুলে বিক্রি করতে শুরু করেন। এজন্য তিনি ‘‌only f‌ans’‌ নামে একটি ওয়েবসাইটের সাহায্য নেন। সেটির মাধ্যমে সরাসরি নিজের গ্রাহকদের ছবি পাঠান জেসন। এই ওয়েবসাইটে সাবস্ক্রিপশন নিতে গেলে প্রতি মাসে গ্রাহককে দিতে হয় ৭.৯৯ ডলার।

এই প্রসঙ্গে জেসনের মন্তব্য, ‘‌‘‌যেহেতু এই সমস্ত ছবি বিনা পয়সায় বা অনলাইনে বিনামূল্যে পাওয়া যায় না, তাই সবাই ওয়েবসাইট থেকে ছবিগুলো কেনেন। এজন্য আমি টাকাও পাই। আর আমি নিজেও একইভাবে পায়ের পাতার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ি। তাই ওদের ব্যাপারটা বুঝতে আমার অসুবিধা হয় না।’‌’‌ এদিকে, খবরটি সামনে আসতেই সোশ্যাল মিডিয়াতে রীতিমতো হইচই পড়ে গিয়েছে।‌

[আরও পড়ুন: হাজার বছর পুরনো গুপ্তধনের সন্ধান! মাটি খুঁড়তেই মিলল শয়ে-শয়ে স্বর্ণমুদ্রা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement