×

৭ চৈত্র  ১৪২৫  শনিবার ২৩ মার্চ ২০১৯   |   শুভ দোলযাত্রা।

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘কী বকাটে ছেলে রে বাবা!’ ‘প্রচণ্ড কথা বলে!’ ‘বকবকের জ্বালায় মাথা খারাপ করে দিল!’ এবার থেকে কাউকে এই কথাগুলি বলার আগে দু’বার অবশ্যই ভাববেন৷ কারণ, কে’ই বা বলতে পারে এই কথার বহরেই হয়তো একদিন বিশ্ব মাত করবে না ওই ব্যক্তি৷ এই কথার জাদুতেই হয়তো একদিন খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে যাবেন তিনি৷ জনপ্রিয় হয়ে উঠবেন সকলের কাছে৷ ঠিক যেমনটা হয়েছে উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা জ্যোতিষচন্দ্র শুক্লার ক্ষেত্রে৷ টানা একশো ঘণ্টা কথা বলে অভিনব বিশ্বরেকর্ড সৃষ্টি করেছেন যিনি৷

[পরিবেশ রক্ষায় অভিনব উদ্যোগ, টোটোয় গাছ লাগালেন চালক ]

জানা গিয়েছে, গত ৫ জানুয়ারি থেকে কথা বলা শুরু করেন উত্তরপ্রদেশে লক্ষ্মীপুরের বাসিন্দা জ্যোতিষ শুক্লা৷ কথা বলা বন্ধ করেন ৯ জানুয়ারি৷ মাঝে মাত্র ৩২ বার থামেন তিনি৷ তৈরি করেন নয়া রেকর্ড৷ তাঁর হাতে স্মারকপত্র ও পুরস্কার তুলে দিয়েছে গোল্ডেন বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষ৷ তাঁর এমন রেকর্ডে স্বভাবতই খুশি পরিবারের লোকজন৷ খুশি এলাকার সাধারণ মানুষ থেকে প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা৷ পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সতীশকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলাশাসক অরুণ কুমার সিং৷

[‘মন চুরি গিয়েছে, খুঁজে দিন’! যুবকের অভিযোগে হতবাক পুলিশ অফিসাররা]

এই প্রথম নয়, আগে আরও দুটি রেকর্ড তৈরি করেছেন জ্যোতিষচন্দ্র শুক্লা৷ একটানা ১৪৮ ঘণ্টা ছাত্র-ছাত্রীদের পড়ানোর রেকর্ড রয়েছে তাঁর ঝুলিতে৷ রয়েছে ১২৩ ঘণ্টা বই পড়ারও রেকর্ড৷ গোল্ডেন বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, এর আগে একটানা ৯০ ঘণ্টা কথা বলে বিশ্বরেকর্ড তৈরি করেছিলেন নেপালের বাসিন্দা অনন্তরাম কেসি৷ একশো ঘণ্টা কথা বলে জ্যোতিষ শুক্লা ভাঙলেন তাঁর রেকর্ড৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং