BREAKING NEWS

১১ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ২৬ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

এবার সহজ শর্তে মিলবে চাহিদা মাফিক লোন, গ্রাহকদের পাশে SBI

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: May 9, 2022 3:51 pm|    Updated: May 9, 2022 6:32 pm

Now SBI offers wide range of easy loan options | Sangbad Pratidin

ছবি:‌ প্রতীকী

যে কোনও আর্থিক দরকারে পাশে আছে স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া। দেশের বৃহত্তম এই ব্যাংকের ঝুলিতে গ্রাহকদের জন্য রয়েছে একগুচ্ছ লোন পরিষেবা। যেমন এসবিআই স্টুডেন্ট লোন, এসবিআই রিয়েলটি, এসবিআই গ্রিন কার স্কিম-আরও কত কি! তাই এসবিআই-এর হাত ধরুন। স্বচ্ছন্দে এগোন, নিশ্চিন্তে বাঁচুন।

দেশের বৃহত্তম ব্যাংক, এসবিআই, নিজস্ব লোন ব্যবসার পরিসর বৃদ্ধির জন্য নিয়ে আসছে একাধিক নতুন পরিকল্পনা। ‘টিম সঞ্চয়’ আমন্ত্রণ জানিয়েছিল কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে। এক ঝলকে সেই প্রশ্নোত্তর।

শুরু করছি অটো লোন দিয়ে। বিশেষত ইলেক্ট্রিক ভেহিক্যলের বিষয় আপনাদের পরিকল্পনা কেমন, জানতে চাই।

‘মোবিলিটি’ বিষয়টি যদি খুঁটিয়ে দেখেন, তাহলে বুঝবেন এক যুগসন্ধিক্ষণে আমরা দাঁড়িয়ে। ইলেক্ট্রিক ভেহিক্যল (ইভি) অবধারিতভাবে উল্লেখিত হয় এই সংক্রান্ত যে কোনও আলোচনায়। ‘ক্লাইমেট চেঞ্জ’ তথা জলবায়ু পরিবর্তন বা তেলের দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে ইভির অবদান অনস্বীকার্য। বেশ কয়েকটি ভারতীয় কোম্পানি ইভি ব্যবসায় আজ পা রেখেছে, আরও অনেকের আসার অপেক্ষায় আছে এই সেক্টর। নীতি আয়োগের সাম্প্রতিক রিপোর্টেই তা পরিষ্কার। অটো ইন্ডাস্ট্রির ভবিষ্যৎ অনেকাংশেই ইভি-নির্ভর হবে, তাও বেশ প্রাঞ্জলভাবে বোঝা যাচ্ছে। ইলেক্ট্রিক গাড়ির বাজার যে ক্রমশই বাড়বে, তা আমরা জানি। ইতিবাচক সরকারি নীতির জন্য এই বাজারে শীঘ্রই গতি আসতে চলেছে। স্টেট ব্যাঙ্ক ইতিমধ্যে একটি বিশেষ লোন প্রোডাক্টের সূচনা করেছে-‘এসবিআই গ্রিন কার স্কিম’ বিগত ২০১৭ সাল থেকে চলছে। আকর্ষণীয় সুদের হার (২০ বেসিস পয়েন্ট কম, সাবেকি গাড়ির তুলনায়, যেগুলি ফসিল ফুয়েল নির্ভর), লম্বা রিপেমেন্ট (আট বছর, অন্যগুলির জন্য যা সাত বছর) এবং শূন্য প্রসেসিং ফি। সব মিলিয়ে ইভির গ্রাহক উপকৃত হবেন বলেই আমাদের বিশ্বাস।

[আরও পড়ুন: বাজারে লক্ষ্যভেদের চাবিকাঠি কী, জেনে নিন লগ্নির আসল রহস্য]

এডুকেশন লোন ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য জরুরি। তুলনায় অল্পবয়েসিদের জন্য আপনাদের ভাবনাচিন্তা কী ধরনের?

শিক্ষার নানা ক্ষেত্রে বহু ধরনের প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। ছাত্র-ছাত্রীদের জ্ঞান বৃদ্ধি এবং হাতে কলমে ট্রেনিং, দরকার আছে বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির জন্য। তবে অনেক সময়ই দেখা যাচ্ছে, শিক্ষামূলক কোর্স খুব খরচসাপেক্ষ। তাই আমাদের মতো দেশের পক্ষে এডুকেশন লোন বেশ প্রয়োজনীয় একটি পরিষেবা। ছাত্রছাত্রীরা তার মাধ্যমে নিজেদের স্বপ্নপূরণ করবেন, এ তো আনন্দের কথাই বটে-টাকার চিন্তা প্রাথমিকভাবে কাটিয়ে উঠে পঠনপাঠনের প্রতি তাঁরা মন দিতে পারবেন।

এসবিআই স্টুডেন্ট লোন আজ ৭.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ‘কোলেটারাল-ফ্রি’-যে কোনও পরিবার তার মাধ্যমে সন্তানের পড়াশোনার ব্যবস্থা করতে পারবেন সুষ্ঠুভাবে। পরে ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের রোজগার থেকে তা ফেরত দিতে পারবেন। যে সকল ছাত্রছাত্রীদের আরও বেশি আর্থিক ঋণের প্রয়োজন, তঁারা এসবিআই স্কলার লোন নিতে পারেন ৪০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। এ বিষয়ে অবশ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত কয়েকটি শর্ত আছে। যাঁরা বিদেশে পড়তে চান, তাঁরা আমাদের ‘গ্লোবাল এড-ভান্টেজ’ লোন প্রকল্পের সদ্ব্যবহার করতে পারেন।

হোম লোনের ক্ষেত্রে কী পরিকল্পনা আপনাদের?

জানেন নিশ্চয়ই, স্টেট ব্যাংক দেশের বৃহত্তম হোম লোন প্রোভাইডার। আমাদের হোম লোনের বিস্তার বিভিন্ন প্রোডাক্টের মাধ্যমে সম্ভবপর হয়েছে। প্লট কেনার জন্য যেমন ‘এসবিআই রিয়েলটি’ আছে, স্বল্প ইএমআই পেমেন্টের জন্য ‘ফ্লেক্সি পে হোম লোন’ যেমন আছে, তেমনই আছে ‘প্রিভিলেজ’ (সরকারি কর্মীদের জন্য) এবং ‘শৌর্য্য’ (ডিফেন্স পার্সোনেলদের জন্য)।

আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে গ্রাহকদের সুবিধার্থে হোম লোন দিই। নতুন গৃহনির্মাণ, পুরনো বাড়ির সংস্কার, অন্য ব্যাঙ্কের লোন টেকওভার, নিজের বাড়ির ইন্টিরিয়র ঠিক করা-একাধিক কারণে আজ গ্রাহকরা আমাদের কাছে আসেন। জেনে রাখা ভাল, সর্বাধিক ৩০ বছরের জন্য লোন পাওয়া যায় (শর্তসাপেক্ষে) এবং আমাদের সমস্ত পদ্ধতি খুব স্বচ্ছ এবং রিজার্ভ ব্যাংকের সার্বিক নীতির সঙ্গে সাযুজ্য রেখেই। কম প্রসেসিং ফি, নানা নামী বিল্ডারদের সঙ্গে টাইআপ, টপ-আপ লোন ইত্যাদি সুবিধাগুলির কথা ভাবলে, গ্রাহকদের কাছে আমাদের লোন প্রোডাক্ট যথেষ্ট আকর্ষণীয়।

SBI হাউজিং লোনের সঙ্গে যুক্ত জীবন বিমা অফার করে। Rinn Raksha-এর প্রিমিয়াম SBI দ্বারা অর্থায়ন করা হয় এবং পরিশোধ করা হয় EMI-তে ঋণের পুরো মেয়াদে। এই সুবিধাটি নতুন হোম লোন অ্যাকাউন্ট এবং একটি বিদ্যমান হোম লোনের ক্ষেত্রে উপলব্ধ হবে যদি গ্রাহক এখন লাইফ কভার নিতে চান।

এই প্রজন্মের গ্রাহক তো ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করছেন। এখানে আপনাদের অ্যাপ YONO ও অন্য ইন্টারনেট-ভিত্তিক পরিষেবার ভূমিকা কী?

YONO একটি ‘ওমনি-চ্যানেল’ প্রচেষ্টা, যার ভিত্তিতে একজন সাধারণ গ্রাহকও ভাল ভাবে ব্যাংকের নানাবিধ পরিষেবা নিতে সক্ষম হবেন। তিনটি প্রধান স্তম্ভের উপর আমাদের প্রযুক্তি আজ দাঁড়িয়ে আছে। ডিজিটাল ব্যাঙ্ক, ফাইন্যান্সিয়াল সুপারস্টোর এবং অনলাইন মার্কেটপ্লেস আমাদের নির্দিষ্ট তিনটি প্রচেষ্টা। যে কোনও গ্রাহক নিজের ব্যাংকিং এর মাধ্যমে করতে পারেন। এছাড়াও স্টেট ব্যাংকের যত জয়েন্ট ভেঞ্চার প্রোডাক্ট আছে, তাও নিতে পারেন। সর্বশেষে, অনলাইন শপিং করা সম্ভব। হ্যাঁ, সব ধরনের অফার এবং ডিসকাউন্ট নিয়েই। YONO অ্যাপ আজ খুব বিস্তৃতভাবে ব্যবহার হচ্ছে। এক ছাদের নিচে বিবিধ প্রোডাক্ট YONO দিয়ে পাওয়া সম্ভব।

পশ্চিমবঙ্গে নতুন ইন্ডাস্ট্রি কী আসছে? আপনাদের কাস্টমার প্রোফাইলে কোনও বদল দেখতে পাচ্ছেন কী?

দেখুন, হ্যান্ডলুম, হ্যান্ডিক্র্যাফ্ট, খাদি এবং কিছু গ্রামীণ ক্ষেত্রে নতুন সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আমরা MSME সেগমেন্টের জন্য সর্বতোভাবে চেষ্টা করছি। ক্লাস্টার ডেভলপমেন্ট পরিকল্পনা ফলপ্রসূ হয়েছে। সরকারি নীতি অনুযায়ী যে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কগুলি হয়েছে, সে সমস্ত প্রকল্পে আমরা যথাযথভাবে নিজেদের ভূমিকা পালন করছি।

[আরও পড়ুন: সঠিক বিনিয়োগের গোড়ার কথা, জেনে নিন কীভাবে তৈরি করবেন মজবুত পোর্টফোলিও]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে