Advertisement
Advertisement
Sagar theke Pahar Yatra

শুরু কংগ্রেসের ‘সাগর থেকে পাহাড়’ যাত্রা, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের অনুপস্থিতিতে উদ্বোধন অধীরের

বুধবার সকালে কপিলমুনির মন্দিরে পুজোর পর শুরু হয়েছে কংগ্রেসের যাত্রা।

বুধবার সকালে সাগরে ডুব দিয়ে কপিলমুনির মন্দিরে পুজোর পর শুরু হয়েছে প্রদেশ কংগ্রেসের 'সাগর থেকে পাহাড়' যাত্রা। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

এই 'সাগর থেকে পাহাড়' যাত্রা রাহুল গান্ধীর মূল 'ভারত জোড়ো যাত্রার' বঙ্গপর্ব। যাতে যোগ দিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

যাত্রার বঙ্গপর্বের সূচনা করেছেন প্রদেশ সভাপতি অধীর চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক ও সাংসদ চেল্লাকুমার। প্রবীণ কংগ্রেস নেতা আব্দুল মান্নান ও রাজ্য যুব কংগ্রেস সভাপতি আজহার মল্লিক-সহ কংগ্রেসের বিভিন্ন শাখা সংগঠনের প্রধানরা। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু কংগ্রেস কর্মী এই যাত্রায় যোগ দিয়েছেন। বঙ্গ যাত্রীরা যাত্রার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত হাঁটবেন। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

আগামী ২৩ জানুয়ারী কার্শিয়ংয়ে শেষ হওয়ার কথা এই সাগর থেকে পাহাড় যাত্রা। যাত্রা পথে রাজ্যের ১০ জেলার উপর দিয়ে যাবে এই পদযাত্রা। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বের আশা, এই যাত্রাকে হাতিয়ার করেই আগামী দিনে রাজ্যে কংগ্রেসের মরা গাঙে বান আসবে। কংগ্রেস নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও যাত্রায় হাঁটবেন। ছবি: বিশ্বজিৎ নস্কর

'সাগর থেকে পাহাড়' যাত্রার সূচনাপর্বে দিল্লির কোনও শীর্ষনেতা উপস্থিত ছিলেন না। এদিন দলের প্রতিষ্ঠা দিবসে থাকায় অধিকাংশ নেতা দিল্লিতে ব্যস্ত ছিলেন। কংগ্রেস নেতৃত্বের আশা, আগামী দিনে দিল্লির নেতারাও এই যাত্রায় যোগ দেবেন। মালদহ-মুর্শিদাবাদ পর্বে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও সূত্রের খবর।

অধীর চৌধুরী জানিয়েছেন, যাত্রার বঙ্গ পর্বে তৃণমূলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। তৃণমূলকে দিল্লিতে রাহুল গান্ধী আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তারা যায়নি। সেকারণেই বঙ্গে আমন্ত্রণ না জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।