২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মা তারার আবির্ভাব তিথিতে তারাপীঠে উৎসবের মেজাজ। প্রতি বছরই কোজাগরী লক্ষ্মী পুজোর আগে শুক্লা চতুর্দশী তিথিতে বিশেষ পুজোর আয়োজন করা হয়। পুণ্যার্জনের আশায় এই বিশেষ দিনে মা তারাকে পুজো দিতে ভিনরাজ্য থেকে তারাপীঠে ভিড় জমান অনেকেই।

[আরও পড়ুন: জীবনে সুখ-সমৃদ্ধি চান? লক্ষ্মীপুজোয় এই কাজগুলি ভুলেও করবেন না]

কথিত আছে, পাল রাজত্বের সময় শুক্লা চুতর্দশী তিথিতে জয়দত্ত সদাগর স্বপ্নাদেশ পেয়ে শশ্মানের শ্বেতশিমুল বৃক্ষের তলায় পঞ্চমুন্ডীর আসনের নীচে মা তারার শিলা মূর্তি উদ্ধার করে মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন৷ ঠিক সেই সময় থেকেই পুজোর সূচনা। তখন থেকেই এই দিনটি মা তারার আবির্ভাব তিথি হিসাবে পালিত হয়ে আসছে৷ এই সিদ্ধপীঠে মা তারা সাধারণত উত্তরমুখী৷ তবে কোজগরী লক্ষ্মীপুজোর আগের শুক্লা চতুদর্শী তিথিতে মা তারাকে পশ্চিমমুখী বসিয়ে আরাধনা করা হয়৷ একেবারে রাজবেশে সেজে ওঠেন তারা মা। এদিন পশ্চিমদিকে মা তারার ছোটবোন মলুটির মা মৌলিক্ষা মন্দির৷

[আরও পড়ুন: কেন কোজাগরী? জেনে নিন এই লক্ষ্মীপুজোর মাহাত্ম্য]

সূর্যোদয়ের পর তারা মাকে গর্ভগৃহ থেকে বের করা হয়। তারপর বিশ্রাম মন্দিরে আনা হবে তারা মাকে৷ তারা মাকে স্নান করানোর পর রাজবেশে সাজানো হয়৷ এইদিন মায়ের কোনও অন্ন ভোগ হয় না৷ বিশেষ তিথিতে উপবাস করাই রীতি। সন্ধ্যায় আরতির পর খিচুড়ি এবং পাঁচ রকম ভাজা দিয়ে ভোগ নিবেদন করা হয়৷ ওই প্রসাদ দেওয়া হয় ভক্তদের। তা খেয়েই উপবাস ভাঙেন তাঁরা৷ এরপর মাকে গর্ভগৃহে ফিরিয়ে এনে স্নান করানো হয়। সন্ধেয় পুজো ও আরতি করা হয়।

[আরও পড়ুন: দুর্গা প্রতিমা বিসর্জনের পরই পুজো হয় দেবী অপরাজিতার, জানেন কেন?]

বিশেষ তিথিতে তারা মায়ের পুজো উপলক্ষে বহু মানুষ ভিড় জমান তারাপীঠে। এ রাজ্যের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি ভিনরাজ্য থেকেও বহু মানুষ তারাপীঠে যান। পুণ্যার্জনের আশায় ভক্তিভরে তারা মায়ের পুজো দেন তাঁরা।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং