২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যার যত আছে, সে তত বেশি ক্ষতিকারক৷ যার কাছে কিছুই নেই, সে আর ক্ষতি করবেই বা কী? ঠিক এমনই সমীকরণ ধনী-দরিদ্র দেশের সঙ্গে পরিবেশ দূষণের৷ ধাঁধা লাগছে? তাহলে খুলেই বলা যাক৷

[আরও পড়ুন: ধোঁয়ার দূষণ থেকে শিশুদের স্বাস্থ্যরক্ষায় উদ্যোগ, পুরুলিয়ার অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে বসছে ধূমহীন চুল্লি]

খাদ্যশস্য উৎপাদনের পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে পিছিয়ে আফ্রিকার ছোট্ট দেশ বুরুন্ডি৷ সাম্প্রতিক সমীক্ষা বলছে, বিশ্ব উষ্ণায়নের ঘা সবচেয়ে বেশি খাচ্ছে এই দেশ৷ আবহাওয়া বদলের জেরে এখান কৃষিজমি বন্ধ্যা হয়ে যেতে বসেছে৷ ঠিকমত শস্য উৎপাদন হচ্ছে না৷ অথচ মজার বিষয়, এই ক্ষতির জন্য বুরুন্ডিবাসীর নিজেদের কিন্তু কোনও দায় নেই৷ কারণ সমীক্ষা বলছে, পরিবেশ বদলে বুরুন্ডির অবদান প্রায় শূন্য৷ পরিবেশে কোনও দূষণই ছড়ায় না এই দেশ৷ চলতি সপ্তাহেই জেনেভায় একটি পরিবেশ সম্মেলনে শামিল হয়েছেন বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা৷ বিজ্ঞানীদের পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতারাও হাজির সেখানে৷ আলোচ্য বিষয়, উষ্ণায়নের প্রভাব কোন দেশের উপর কতটা পড়েছে৷ তাতেই প্রাথমিকভাবে নাম উঠে এসেছে বুরুন্ডির৷
আরও জানা গিয়েছে, বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ১০টি দেশই নিজেরা পরিবেশে খুব কম কার্বন-ডাই-অক্সাইড ছাড়ে, যার জেরে তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার খুবই কম৷ অর্থাৎ তৃতীয় বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলি অনেকটা পরিবেশবান্ধব৷ বুরুন্ডির পরই স্থান পেয়েছে গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গো, মাদাগাস্কার, ইয়েমেন, সিয়েরা লিওন৷ এবার আসা যাক কার্বন নিঃসরণের তুলনামূলক হারে৷ পরিসংখ্যান বলছে, সৌদি আরবে একজন বছরে যে পরিমাণ কার্বন ডাই-অক্সাইড ছাড়ে বাতাসে, তা বুরুন্ডির ৭১৮ জনের সমান৷ আমেরিকা এবং রাশিয়ার ক্ষেত্রে সেই পরিমাণ আরও বেশি৷

[আরও পড়ুন: বিশ্ব উষ্ণায়নের অভিশাপ, বরফ গলে গ্রিনল্যান্ডে তৈরি আস্ত নদী]

হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিভাগের প্রধান গবেষক স্যামুয়েল মায়ারসের কথায়, ‘এসব পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যাচ্ছে, উষ্ণায়ন বা দূষণ শুধু বিশ্বস্বাস্থ্যের জন্যই উদ্বেগের বিষয় নয়, এটি নীতিগত সমস্যাও বটে৷ প্রথম বিশ্বের উন্নয়নের অভিশাপ কুড়োতে হচ্ছে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিকে৷’ এটা আসল কথা৷ যাদের যান্ত্রিকভাবে উন্নয়নের কোনও সুযোগ নেই, প্রাকৃতিক সম্পদের উপর তাদের অধিকারও কেড়ে নিচ্ছে ব্রিটেন, আমেরিকার মতো ধনী থেকে ধনীতর দেশগুলি৷ অর্থাৎ, এসব দেশ সবদিক থেকেই মার খাচ্ছে ব্যাপকভাবে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং