২৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগ বা কেপিএলে ম্যাচ গড়াপেটার অভিযোগে আগেই গ্রেপ্তার হয়েছেন রঞ্জি ক্রিকেটার সিএম গৌতম ও আবরার কাজি। তাঁদের জেরা করা ধরা হয়েছিল সেলিব্রেটি ড্রামবাদক ভবেশ বাফনাকে। আর জেলে থাকা সেই বাফনাকে জেরা করে ধরা হল আন্তর্জাতিক বুকি শ্যামকে। হরিয়ানার বাসিন্দা ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছেন বেঙ্গালুরুর সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা। তার নামে লুকআউট নোটিস জারি হওয়ার পরেই দেশে ছেড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পালিয়ে ছিল সে। কিন্তু, শেষ রক্ষা হল না। তাকে গ্রেপ্তার হতে হল ক্রাইম ব্রাঞ্চের হাতে।

[আরও পড়ুন: বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ভারতকে ভরসা দিচ্ছেন পরিবর্তনের চাহাল]

তদন্তকারীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলবন্দি ভবেশ বাফনা ও সদ্য ধৃত শ্যাম মিডিলম্যানের মাধ্যমে কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগ খেলা ক্রিকেটার ও কোচদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখত। তাদের মাধ্যমে ম্যাচ গড়াপেটায় অংশ নিত। কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগে বিলারি তুস্কার্সের হয়ে খেলা সিএম গৌতম ও আবরার কাজি গ্রেপ্তার হওয়ার পরেই ভূপেশ বাফনার কথা জানা যায়। আর তাকে গ্রেপ্তার করে জেরা করতেই বেরিয়ে আসে আন্তর্জাতিক বুকি শ্যামের জড়িত থাকার কথা।

[আরও পড়ুন: পর্ন তারকা থেকে আম্পায়ার, বিশ্বকে চমকে দিলেন নিউজিল্যান্ডের স্টিরাট]

বিষয়টি জানতে পেরে ভারত ছেড়ে পালিয়ে যায় সে। তদন্তে নেমে গোয়েন্দারা জানতে পারেন ওয়েস্ট ইন্ডিজে আত্মগোপন করেছে অভিযুক্ত। এরপরই তার নামে লুকআউট নোটিশ জারি করার পাশাপাশি হরিয়ানায় থাকা বাড়িতে নজর রাখা হয়। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে সেখানে ফিরতেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ধৃতকে জেরা করে ম্যাচ গড়াপেটা চক্রের সঙ্গে আরও কারা যুক্ত আছে তা জানার চেষ্টা চলছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে বেটিং কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত থাকার জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছিল দু’জনকে। আবার একই ঘটনার জন্য গত বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার হয়  সিএম গৌতম ও আবরার কাজি।এখনও পর্যন্ত সবমিলিয়ে ছ’জন দোষী ক্রিকেটারকে গ্রেপ্তার করল কর্ণাটক পুলিশ।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং