৭ শ্রাবণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দেবাশিস সেন, ম্যাঞ্চেস্টার: বিশ্বকাপের মঞ্চকে ফের বিচ্ছন্নতাবাদ ছড়ানোর কাজে ব্যবহারের চেষ্টা। ‘আজাদ কাশ্মীর’পন্থীদের পর এবার বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্যানার হাতে দেখা গেল খলিস্তানপন্থী যুবকদের। মঙ্গলবার ম্যাঞ্চেস্টারে সেমিফাইনাল ম্যাচের শুরুতেই দেখা যায় গ্যালারিতে কয়েকজন শিখ যুবক খালিস্তানপন্থী ব্যানার হাতে দাঁড়িয়ে আছেন। আয়োজকদের নজরে যেতেই দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। জানা গিয়েছে, ওই যুবকদের স্টেডিয়াম থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর রাখছে আয়োজকরা।

[আরও পড়ুন: জনপ্রিয়তার শীর্ষে ভারতীয় ‘সুপারফ্যান’, এবার পেপসি’র বিজ্ঞাপনে ৮৭ বছরের ‘যুবতী’]

এই প্রথম নয়, এর আগে গ্রুপ পর্বে ভারতের শেষ ম্যাচেও দেখা গিয়েছিল ভারত-বিরোধী পোস্টার। ব্যানার উড়িয়ে স্টেডিয়ামের মাথায় চক্কর কাটতে দেখা গিয়েছিল জোড়া বিমানকে। যেখানে লেখা ছিল, ‘ভারত, গণহত্যা বন্ধ করো, কাশ্মীরকে মুক্ত করো।’ ঘটনায় বিশ্বজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়। আর তারপরই রবিবার এনিয়ে আইসিসির কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ জানায় ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই)। আইসিসিও সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়। ঘটনার তীব্র নিন্দা করে একটি বিবৃতি জারি করে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা। তাদের তরফে বলা হয়, “এমন ঘটনায় আমরা অত্যন্ত হতাশ। বিশ্বকাপে আমরা কখনও কোনওরকম রাজনীতিকে প্রশ্রয় দিই না। এই ধরনের প্রতিবাদ যাতে খেলার মাঠ পর্যন্ত না পৌঁছায় তার জন্য আমরা স্থানীয় পুলিশের সাহায্যও নিয়েছি। প্রতিনিয়ত নিরাপত্তায় জোর দেওয়া হচ্ছে।”

[আরও পড়ুন: সেমিফাইনালের আগে নিজের বিষয়ে এই তথ্য জেনে অবাক কোহলি!]

কথামতো, এই ম্যাচের আগে বেশ কিছু ব্যবস্থাও নেই আইসিসি। তাঁর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ হল ম্যাঞ্চেস্টারের স্টেডিয়াম চত্বরকে ‘নো ফ্লায়িং জোন’ ঘোষণা করা। ইসিবির তরফে জানানো হয়েছে, ভারত-নিউজিল্যান্ড ম্যাচ চলাকালীন ম্যাঞ্চেস্টারে স্টেডিয়াম চত্বর বা তাঁর আশেপাশে কোনও বিমান বা হেলিক্টার ওড়ানো যাবে না। তাছাড়া ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা এবং স্টেডিয়াম চত্বরে যাতে কোনও রাজনৈতিক কার্যকলাপ না হয়, তাও নিশ্চত করা হবে বলে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছে ভারতকে। কিন্তু, তা সত্ত্বেও কীভাবে খলিস্তানপন্থীরা স্টেডিয়ামে ঢুকে গেল তা নিয়ে সংশয় কাটছে না।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং