BREAKING NEWS

২৩ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  রবিবার ৭ জুন ২০২০ 

Advertisement

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত জিম্বাবোয়ে, আইসিসির সিদ্ধান্তের বিরোধিতা ক্রিকেটারদের

Published by: Sulaya Singha |    Posted: July 19, 2019 7:42 pm|    Updated: July 19, 2019 7:42 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শর্ত ছিল দেশের ক্রিকেট পরিচালন ব্যবস্থায় সরকারি কোনও হস্তক্ষেপ থাকবে না। কিন্তু বাস্তবে সেটা হয়নি। যে কারণে বৃহস্পতিবার আইসিসির তরফে জিম্বাবোয়েকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সাসপেন্ড করা হল। স্বাভাবিকভাবেই আইসিসির এমন সিদ্ধান্তে মন খারাপ সে দেশের ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফ তথা গোটা বিশ্বের ক্রিটেকপ্রেমীদের।

বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থার চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর বলেন, “আমরা চাই ক্রিকেটকে রাজনীতিমুক্ত করতে। জিম্বাবোয়েতে সেটা হয়নি। তাই এই মুহূর্ত থেকেই জিম্বাবোয়ে ক্রিকেটের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হল।” আইসিসির এই সিদ্ধান্তে চূড়ান্ত হতাশ ক্রিকেটার সিকান্দার রাজা এবং প্রাক্তন অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেলর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে জাতীয় দলকে নির্বাসিত করার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছেন না তাঁরা। রাজার দাবি, এমন সিদ্ধান্ত বহু পরিবার এবং ক্রিকেটারের কেরিয়ারের উপর বড়সড় প্রভাব ফেলবে। টুইটারে তিনি লেখেন, “একটা সিদ্ধান্তে অনেক ক্রিকেটার বেকার হয়ে পড়লেন। অনেক পরিবার সমস্যায় পড়ে গেল। আমারও যেন শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা হয়ে গেল। কিন্তু আমি এভাবে আন্তর্জাতিক কেরিয়ার শেষ করতে চাইনি।” এদিকে টেলরও বলেন, “আইসিসির এই সিদ্ধান্ত অত্যন্ত বেদনাদায়ক। জিম্বাবোয়ে ক্রিকেটের প্রতি ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফ, গ্রাউন্ড স্টাফরা যথেষ্ট সৎ।” আইসিসির সিদ্ধান্তের পরই ক্রিকেটকে বিদায় জানান সলোমন মিয়ার। ফেসবুকে একটি আবেগঘন পোস্টও করেন তিনি।

[আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ ফাইনালে নিশামের ছক্কা দেখেই প্রয়াত ছোটবেলার কোচ]

বিশ্বকাপের মধ্যেই নির্বাসিত করা হয়েছিল সে দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে। সরকারি সংস্থা স্পোর্টপ অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশনের (এসআরসি) তরফে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নির্বাসনের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়। বোর্ডের পাশাপাশি বোর্ডের কার্যকরী ম্যানেজিং ডিরেক্টর গিভমোর মাকোনিকেও তাঁর পদ থেকে নির্বাসিত করা হয়। আসলে, স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশনের কাজ দেশের সমস্ত ক্রীড়া সংস্থা এবং বোর্ডগুলি ঠিকমতো কাজ করছে কি না, তা দেখা। সেই কমিশনই জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট বোর্ডের কার্যকলাপ খুঁটিয়ে দেখার দায়িত্ব নিয়েছিল। আর তদন্তে নেমেই তারা জানতে পারে, একাধিক দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে বোর্ড। বার্ষিক সাধারণ
বৈঠকে মনোনয়নের প্রক্রিয়ায় যেমন দুর্নীতি ধরা পড়েছে, তেমনই বেশ কিছু সাংবিধানিক নিয়মও ভঙ্গ করেছে তারা। শুধু তাই নয়, আর্থিক তছরুপ, পক্ষপাতিত্ব-সহ অনেক দুর্নীতিতেই জড়িয়েছে বোর্ড। কমিশন সতর্ক করা সত্ত্বেও বোর্ড তাতে কর্ণপাত করেনি। তারই মধ্যে ফের তাভেঙ্গা মুকুলানিকে চার বছরের জন্য নির্বাচিত করা হয়। আর তারপরই নির্বাসনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এবার আইসিসি ক্রিকেটকে রাজনীতিমুক্ত করতে গিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলে দিল জিম্বাবোয়ের ক্রিকেটারদের ভবিষ্যৎ। বৃহস্পতিবার বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার বার্ষিক কনফারেন্সে আরও বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তার মধ্যে অন্যতম স্লো ওভার রেটের জন্য শাস্তির নিয়মে বদল। এবার থেকে এই কারণে শুধু সংশ্লিষ্ট দলের অধিনায়ক নয়, সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারেরও জরিমানা হবে।

[আরও পড়ুন: ইংল্যান্ডের বিশ্বজয়ী কোচকে কেকেআর-এর থেকে ছিনিয়ে নিল সানরাইজার্স]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement