৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

নিউজিল্যান্ড: ২৪১-৮ (নিকোলস ৫৫, লেথাম ৪৭)

ইংল্যান্ড: ২৪১ (স্টোকস ৮৪, বাটলার ৫৯)

সুপার ওভারে জয়ী ইংল্যান্ড

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এ যেন স্বপ্নের ফাইনাল। এর চেয়ে বেশি আর কিছু হয়তো প্রত্যাশা করতে পারেন না ক্রিকেট সমর্থকরা। ১০০ ওভার ক্রিকেট খেলার পরও হার মানল না কোনও দল। ৪৪ বছরের বিশ্বকাপ ফাইনালের ইতিহাসে প্রথমবার আয়োজিত হল সুপার ওভার। তাতেও ফয়সালা হল না। দু’দলই সুপার ওভারে তুলল ১৫ রান করে। কিন্তু, নির্ধারিত ওভারে বেশি বাউন্ডারি মারায় চ্যাম্পিয়ন হল ব্রিটিশরা। আর সেই স্বপ্নের ফাইনালে স্বপ্নপূরণ হল ইংল্যান্ডের।

নতুন রূপকথার সূচনা হল বিশ্বক্রিকেটে। বলা ভাল, একটি বৃত্ত সম্পূর্ণ করল ক্রিকেট বিশ্ব। যে দেশের মাটিতে ক্রিকেটের পথচলা শুরু সে দেশেই অধরা ছিল বিশ্বচ্যাম্পিয়নের খেতাব। ইংল্যান্ডবাসীর অধরা স্বপ্ন পূরণ করল মর্গ্যান এন্ড কোম্পানি। স্নায়ূর চাপ সামলে, নিখুঁত রণকৌশল অনুযায়ী খেলে বিশ্বচ্যাম্পিয়নের খেতাব পকেটে পুরল ইংল্যান্ড। বোথাম, গ্যাটিং, গাওয়ার, গুচ, স্ট্রসরা যা দিতে পারেননি, ইংল্যান্ড ক্রিকেটকে সেই অধরা অলঙ্কার পরিয়ে দিলেন মর্গ্যান।

বৃত্তটি শুরু হয়েছিল ১৯৭৯ সালে। এই লর্ডসের মাটিতেই। সেবারই প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলে ইংল্যান্ড। ভিভ রিচার্ডস আর জোয়েল গার্নারের ক্যারিশমার কাছে সেবার হার মানতে হয়েছিল ইংরেজদের। এরপর বিশ্ব ক্রিকেটের আরও দুই বিখ্যাত স্টেডিয়ামে ফাইনাল খেলেছে ইংরেজরা। একটি ১৯৮৭-র ইডেনে অপরটি ১৯৯২-এ মেলবোর্নে। কোনওটিতেই শিঁকে ছেঁড়েনি। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে বিশ্বকাপ স্বপ্ন অধরাই ছিল ইংরেজদের। অবশেষে হল স্বপ্নপূরণ। আর ফাইনালে সেই স্বপ্ন পূরণের কারিগর বেন স্টোকস এবং হোফ্রা আর্চার। স্টোকস দলকে হারের মুখ থেকে ফিরিয়ে আনলেন। আর আর্চার সুপার ওভারে দলকে জেতালেন।

[আরও পড়ুন:মায়ের ইচ্ছায় মামাতো বোনকে বিয়ে, দেশে ফিরেই রিসেপশন সারলেন মুস্তাফিজুর]

বড় ম্যাচ, তাই বল শুরুতে সুইং করবে জেনেও লর্ডসে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক উইলিয়ামসন। কঠিন পরিস্থিতিতে স্লো খেললেও শুরুটা ভালই করেছিলেন কিউয়ি ব্যাটসম্যানরা। একটা সময় মাত্র ১ উইকেটের বিনিময়ে একশো রানের গণ্ডিও পেরিয়ে যায় তাঁরা। কিন্তু উইলিয়ামসনের উইকেট পড়তেই শুরু হয় পতনের খেলা। পরপর প্যাভিলিয়নে ফেরেন নিকোলস এবং টেলরও। চার উইকেটের পতনের পর ইনিংসের হাল ধরেন টম লেথাম। প্রথমে নিশাম এবং পরে গ্র্যান্ডহোমকে সঙ্গে নিয়ে নিউজিল্যান্ডকে সম্মানজনক জায়গায় পৌঁছে দেন তিনি। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ২৪১ রান করে কিউয়িরা।

[আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ ফাইনালে বিপত্তি, খেলা চলাকালীন মাঠে ঢুকে পড়লেন স্বল্পবসনা মহিলা]

২৪২ রানের টার্গেট খাতায় কলমে বিরাট কিছু না হলেও, বিশ্বকাপের মতো চাপের ম্যাচে তা যে যথেষ্ট কঠিন সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর কঠিন টার্গেটের মোকাবিলা করতে গিয়েই ল্যাজে-গোবরে হতে হল ইংল্যান্ডকে। টপ অর্ডারের ব্যর্থতা প্রায় ডুবিয়েই দিয়েছিল ইংরেজদের। জস বাটলার এবং বেন স্টোকস দুর্দান্ত ইনিংস খেলে ম্যাচে ফেরান ইংল্যান্ডকে।একটা সময় কার্যত অসম্ভব মনে হওয়া ম্যাচ শেষপর্যন্ত বাঁচিয়ে আনলেন স্টোকস। তবে, এক্ষেত্রে ভাগ্যও সঙ্গ দিয়েছে তাঁর। শেষ ওভারের চতুর্থ বলে গাপ্তিলের থ্রো স্টোকসের গায়ে লেগে যায় বাউন্ডারির বাইরে। ভাগ্যের জোরে ইংল্যান্ড উপহার পেয়ে যায় ৪টি রান। শেষ দু’বলে দরকার ছিল ৩ রান। কিন্তু, বোল্টের শেষ দু’বলে দুটো রান আউট আবার বদলে দেয় অঙ্ক। ইংল্যান্ডের ইনিংসও শেষ হয় ২৪১ রানে।

খেলা গড়ায় সুপার ওভারে। ইংল্যান্ডের হয়ে ব্যাট করতে নামেন স্টোকস এবং বাটলার। ট্রেন্ট বোল্টের বিরুদ্ধে ১৫ রান নেন দুই ইংরেজ ব্যাটসম্যান।জবাবে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ব্যাট করতে আসেন গাপ্তিল এবং নিশাম। ইংল্যান্ডের হয়ে বোলিং করতে আসেন আর্চার। টার্গেট ছিল ১৬। কিন্তু, ১৫ রানেই আটকে যান দুই কিউয়ি ব্যাটসম্যান। কিন্তু, বেশি বাউন্ডারি মারায় শেষ পর্যন্ত জিতল ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপ তার ঘরে ফিরল ব্রিটিশদের হাত ধরে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং