৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ভারত: ১৪৮/৬ (ধাওয়ান-৪১, পন্থ-২৭)
বাংলাদেশ: ১৫৪/৩ (রহিম-৬০*, সৌম্য-৩৯)
সাত উইকেটে জয়ী বাংলাদেশ

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দিল্লির দূষণে অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে উপস্থিত দর্শক ও ক্রিকেটারদের চোখে জ্বালা ধরল কি না, ঠিক বোঝা গেল না। কিন্তু ভারতীয় সমর্থকদের হৃদয় নিঃসন্দেহে জ্বলে ছারখার হয়ে গেল। বিষাক্ত দূষণের মতোই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে বিষাক্ত অভিজ্ঞতা হল টিম ইন্ডিয়ার। দেশের জার্সি গায়ে সবচেয়ে বেশি টি-টোয়েন্টি (৯৯) খেলে নজির গড়ার দিনটি যেন রোহিত শর্মার কাছে অভিশপ্ত হয়ে থাকবে সারাজীবন। কারণ তাঁর নেতৃত্বে এই ম্যাচেই প্রথমবার ভারতকে টি-টোয়েন্টিতে হারালেন বাংলার বাঘরা।

[আরও পড়ুন: ‘ম্যাচ গড়াপেটার জন্য লক্ষাধিক ডলার প্রস্তাব পেয়েছিলাম’, চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি শোয়েবের]

সিরিজ শুরুর আগে দুই শিবিরের ছবিটা ছিল একেবারে দু’রকম। একদিকে গত মাসেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে টেস্টে হোয়াইটওয়াশ করে ইতিহাস রচনা করেছিলেন বিরাট কোহলিরা। টানা খেলার ফলে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজে কোহলিকে তাই বিশ্রামেই পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ফের ব্যাটন ধরেন রোহিত। তাঁর কাঁধে তুলে দেওয়া হয় তরুণ ভারতের দায়িত্ব। আগামী বছরই অস্ট্রেলিয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেই লক্ষ্যে তরুণদের নিয়েই ছোট ফরম্যাটের দল সাজাতে আগ্রহী এমএসকে প্রসাদের নির্বাচন কমিটি। উলটো দিকের শিবিরে আবার গোটা টুর্নামেন্ট নিয়েই তৈরি হয়েছিল অনিশ্চয়তা। আর শেষমেশ যখন ভারত সফর নিশ্চিত হল, ঠিক তখনই নির্বাসিত হয়ে দলের বাইরে চলে গেলেন শাকিব আল হাসান। তা সত্ত্বেও ভাঙা দল নিয়ে দুর্দান্ত লড়াই করলেন সৌম্য সরকাররা। ব্যাটে-বলে ভারতকে চূড়ান্ত চাপে ফেলে দিতে সফল তাঁরা। বুঝিয়ে দিলেন, শাকিবহীন বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিলে ভুল করবেন রোহিতরা।

১৮ তম ওভারে মুশফিকুর রহিমের সুইপ শট থেকে লোফা ক্যাচ হাতছাড়া করলেন ডিপ মিড-উইকেটে দাঁড়িয়ে থাকা ক্রুণাল পাণ্ডিয়া। সেটাই হতে পারত ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট। কিন্তু কোথায় কী! এই ভারতীয় দল আর যাই হোক, বিশ্বকাপ খেলার জন্য এখনও প্রস্তুত নয়। ব্যাটিংয়েও চূড়ান্ত অপেশাদারিত্বের পরিচয় দিলেন লোকেশ রাহুল, শ্রেয়স আইয়াররা। দায়িত্ব নিয়ে খেলার প্রবণতাই দেখা গেল না তাঁদের মধ্যে। শিখর ধাওয়ানই যা দলের মুখ রক্ষা করলেন।

ভারতেরই মাটিতে তাদের রীতিমতো দাবিয়ে রাখলেন মহম্মদুল্লারা। অত্যন্ত দায়িত্ব ও নৈপুণ্যের সঙ্গে ধীর-স্থিরভাবে পৌঁছে গেলেন লক্ষ্যে। অনবদ্য অর্ধশতরানের ইনিংস খেলে দলকে ঐতিহাসিক জয় উপহার দিলেন মুশফিকুর। এ বাংলাদেশ পরিণত, এ বাংলাদেশের ভিতর কিছু করে দেখানোর আগুন জ্বলছে। পরের ম্যাচে রোহিত শর্মা নিশ্চয়ই তা মনে রাখবেন।  

[আরও পড়ুন: একই দিনে জোড়া সুখবর, অলিম্পিকের ছাড়পত্র পেল ভারতের পুরুষ ও মহিলা হকি দল]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং